বাবার কিনে দেওয়া ফোন পছন্দ না হওয়ায় স্কুলছাত্রের আত্মহত্যা
jugantor
বাবার কিনে দেওয়া ফোন পছন্দ না হওয়ায় স্কুলছাত্রের আত্মহত্যা

  চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি  

০১ আগস্ট ২০২১, ১৫:৫২:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

বাবার কিনে দেওয়া ফোন পছন্দ না হওয়ায় স্কুলছাত্রের আত্মহত্যা

চুয়াডাঙ্গায় বাবার কিনে দেওয়া মোবাইল ফোন পছন্দ না হওয়ায় এক স্কুলছাত্র বিষপানে আত্মহত্যা করেছে। রোববার সকালে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

নিহত লাবিব হোসেন সদর উপজেলার গড়াইটুপি ইউনিয়নের খেজুরতলা গ্রামের সালাউদ্দিন উল্লাসের ছেলে। সে ওই এলাকার খাড়াগোদা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্র।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, লাবিব হোসেন ও হামিম হোসেন দুই ভাই একই ক্লাসের ছাত্র। তারা অনলাইনে ক্লাস করার জন্য বাবার কাছে মোবাইল ফোন দাবি করলে তাদের বাবা বৃহস্পতিবার একটি স্মার্টফোন কিনে আনেন। সেই মোবাইল ফোন তাদের পছন্দ না হওয়ায় লাবিব আরেকটি দামি ফোন চায়। এ নিয়ে বাবা ও ছেলের কথা কাটাকাটি হয়।

এর পর শনিবার রাতে লাবিব (১৪) ঘরে থাকা কীটনাশক পান করে। রোববার সকাল ৮টার দিকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সে মারা যায়।

নিহত কিশোরের বাবা সালাউদ্দিন বলেন, বর্তমান প্রেক্ষাপটে কিশোররা মোবাইল গেমসে আসক্ত হয়ে পড়ছে। অনলাইনে ক্লাসের জন্য তাদের হাতে মোবাইল ফোন দেওয়া হলেও তারা অন্য কাজে মোবাইল ব্যবহার করছে। এতে ছাত্রছাত্রীরা ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। এ কারণেই স্কুলের অনলাইন ক্লাসের জন্য দুই ভাইকে একটি মোবাইল কিনে দিই।

এ বিষয়ে দর্শনা থানার ওসি মাহাব্বুর রহমান কাজল বলেন, মোবাইল ফোন কেনা নিয়ে বাবার ওপর অভিমান করে কিশোর লাবিব আত্মহত্যা করেছে। বিষয়টি তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বাবার কিনে দেওয়া ফোন পছন্দ না হওয়ায় স্কুলছাত্রের আত্মহত্যা

 চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি 
০১ আগস্ট ২০২১, ০৩:৫২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
বাবার কিনে দেওয়া ফোন পছন্দ না হওয়ায় স্কুলছাত্রের আত্মহত্যা
ফাইল ছবি

চুয়াডাঙ্গায় বাবার কিনে দেওয়া মোবাইল ফোন পছন্দ না হওয়ায় এক স্কুলছাত্র বিষপানে আত্মহত্যা করেছে।  রোববার সকালে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। 

নিহত লাবিব হোসেন সদর উপজেলার গড়াইটুপি ইউনিয়নের খেজুরতলা গ্রামের সালাউদ্দিন উল্লাসের ছেলে। সে ওই এলাকার খাড়াগোদা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্র।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, লাবিব হোসেন ও হামিম হোসেন দুই ভাই একই ক্লাসের ছাত্র।  তারা অনলাইনে ক্লাস করার জন্য বাবার কাছে মোবাইল ফোন দাবি করলে তাদের বাবা বৃহস্পতিবার একটি স্মার্টফোন কিনে আনেন।  সেই মোবাইল ফোন তাদের পছন্দ না হওয়ায় লাবিব আরেকটি দামি ফোন চায়। এ নিয়ে বাবা ও ছেলের কথা কাটাকাটি হয়।

এর পর শনিবার রাতে লাবিব (১৪) ঘরে থাকা কীটনাশক পান করে। রোববার সকাল ৮টার দিকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সে মারা যায়।

নিহত কিশোরের বাবা সালাউদ্দিন বলেন, বর্তমান প্রেক্ষাপটে কিশোররা মোবাইল গেমসে আসক্ত হয়ে পড়ছে। অনলাইনে ক্লাসের জন্য তাদের হাতে মোবাইল ফোন দেওয়া হলেও তারা অন্য কাজে মোবাইল ব্যবহার করছে। এতে ছাত্রছাত্রীরা ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। এ কারণেই স্কুলের অনলাইন ক্লাসের জন্য দুই ভাইকে একটি মোবাইল কিনে দিই।

এ বিষয়ে দর্শনা থানার ওসি মাহাব্বুর রহমান কাজল বলেন, মোবাইল ফোন কেনা নিয়ে বাবার ওপর অভিমান করে কিশোর লাবিব আত্মহত্যা করেছে। বিষয়টি তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন