করোনা ভ্যাকসিনে প্রতারণা
jugantor
করোনা ভ্যাকসিনে প্রতারণা

  দেলদুয়ার (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি  

০১ আগস্ট ২০২১, ১৯:২৪:৩৩  |  অনলাইন সংস্করণ

টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন দেয়া নিয়ে প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে দায়িত্ব পালনকারী সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক সাজেদা আফরিনের বিরুদ্ধে। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে যুগান্তরের অনুসন্ধানে সত্যতা বেরিয়ে আসে।

রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২নং বুথে টিকা দিচ্ছিলেন সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক সাজেদা আফরিন।

এ সময় সাজেদা আফরিন টিকা গ্রহণকারীদের শরীরে শুধু সুচ পুশ করে ভ্যাকসিন প্রবেশ না করিয়ে সিরিঞ্জ ফেলে দিচ্ছেন। ঘটনাটি এক যুবক দেখে ফেলেন। বিষয়টি সংবাদ কর্মীদের কর্ণগোচর হয়। পরে সত্যতা যাচাইয়ে অনুসন্ধান চালান সংবাদকর্মীরা।

ঘটনাটি আবাসিক চিকিৎসক ডা. শামিমকে জানানো হলে তিনি পরিত্যক্ত সিরিঞ্জগুলো সংবাদকর্মীদের সামনে বাছাই করে ২০টা সিরিঞ্জের ভেতর সম্পূর্ণ ভ্যাকসিনের উপস্থিতি দেখতে পান এবং তিনি এও নিশ্চিত হন যে সুচ পুশ করা হলেও ভ্যাকসিন শরীরে প্রবেশ করানো হয়নি।

খবর পেয়ে থানার ওসি বাহালুল খান বাহার ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। তিনি বলেন, বিষয়টি স্বাস্থ্য বিভাগের তবে লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অভিযোগ প্রসঙ্গে সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক সাজেদা আফরিন বলেন, অনেক লোকের চাপ ছিল। অনিচ্ছাকৃতভাবে ঘটনাটি ঘটে গেছে।

আরএমও ডা. শামিম বলেন, বিষয়টি অনাকাঙ্ক্ষিত। আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে ৩ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। দোষী সাব্যস্ত হলে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জেলা সহকারী সিভিল সার্জন ডা. মো. শামিম তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি সাংবাদিকদের জানান, কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

করোনা ভ্যাকসিনে প্রতারণা

 দেলদুয়ার (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি 
০১ আগস্ট ২০২১, ০৭:২৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন দেয়া নিয়ে প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে দায়িত্ব পালনকারী সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক সাজেদা আফরিনের বিরুদ্ধে। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে যুগান্তরের অনুসন্ধানে সত্যতা বেরিয়ে আসে।

রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২নং বুথে টিকা দিচ্ছিলেন সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক সাজেদা আফরিন।

এ সময় সাজেদা আফরিন টিকা গ্রহণকারীদের শরীরে শুধু সুচ পুশ করে ভ্যাকসিন প্রবেশ না করিয়ে সিরিঞ্জ ফেলে দিচ্ছেন। ঘটনাটি এক যুবক দেখে ফেলেন। বিষয়টি সংবাদ কর্মীদের কর্ণগোচর হয়। পরে সত্যতা যাচাইয়ে অনুসন্ধান চালান সংবাদকর্মীরা।

ঘটনাটি আবাসিক চিকিৎসক ডা. শামিমকে জানানো হলে তিনি পরিত্যক্ত সিরিঞ্জগুলো সংবাদকর্মীদের সামনে বাছাই করে ২০টা সিরিঞ্জের ভেতর সম্পূর্ণ ভ্যাকসিনের উপস্থিতি দেখতে পান এবং তিনি এও নিশ্চিত হন যে সুচ পুশ করা হলেও ভ্যাকসিন শরীরে প্রবেশ করানো হয়নি।

খবর পেয়ে থানার ওসি বাহালুল খান বাহার ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। তিনি বলেন, বিষয়টি স্বাস্থ্য বিভাগের তবে লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অভিযোগ প্রসঙ্গে সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক সাজেদা আফরিন বলেন, অনেক লোকের চাপ ছিল। অনিচ্ছাকৃতভাবে ঘটনাটি ঘটে গেছে।

আরএমও ডা. শামিম বলেন, বিষয়টি অনাকাঙ্ক্ষিত। আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে ৩ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। দোষী সাব্যস্ত হলে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জেলা সহকারী সিভিল সার্জন ডা. মো. শামিম তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি সাংবাদিকদের জানান, কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন