ধর্ষণের মিথ্যা মামলায় জেল, স্ট্রোক করে বৃদ্ধের মৃত্যু
jugantor
ধর্ষণের মিথ্যা মামলায় জেল, স্ট্রোক করে বৃদ্ধের মৃত্যু

  ব্রাহ্মণপাড়া (কুমিল্লা) প্রতিনিধি   

০১ আগস্ট ২০২১, ২১:৪৩:২৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ধর্ষণের মিথ্যা মামলা মাথায় নিয়ে ১০ মাস জেল খাটার পর বাড়িতে ফিরে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে স্ট্রোক করে এক বৃদ্ধ হাজি মৃত্যুবরণ করেছেন। কুমিল্লা জেলার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার মাধবপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

সরেজমিন এলাকা ঘুরে জানা যায়, ২০২০ সালের ২৪ অক্টোবর উপজেলার মাধবপুর কলেজপাড়া গ্রামের ওমান প্রবাসী ব্যবসায়ী হাজি শেখ আবুল হাছানকে (৫৫) গ্রামের কিছু কুচক্রী মহল মিথ্যা ধর্ষণের ঘটনা সাজিয়ে মামলা করে পুলিশের মাধ্যমে তাকে গ্রেফতার করে কুমিল্লা জেলহাজতে প্রেরণ করে। ওই গ্রামের চেয়ারা খাতুন বাদী হয়ে তার মেয়েকে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ বৃদ্ধ হাজি শেখ আবুল হাছানকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে পাঠায়।

গ্রেফতারের পর আদালতে অনেকবার জামিন চাওয়া হলেও তিনি জামিন পাননি। জেলে থাকা অবস্থায় গত ১ জুন ডিএনএ টেস্টের রিপোর্ট এসে পৌঁছলে তিনি জড়িত নন- এমন রিপোর্টের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত তাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়ে মুক্তি দেন।

১০ মাস জেল খাটার পর ঈদুল আজহার আগের দিন তিনি জেল থেকে মুক্তি পেয়ে বাড়ি আসার পর থেকে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন। সামাজিকভাবে তিনি হেয়প্রতিপন্ন হয়ে লোকসমাগমে নিজে অনেক ছোট হয়েছেন এমনটি ভেবে মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন। শুক্রবার দুপুরে তিনি তার নিজ বাড়িতে স্ট্রোক করে মৃত্যুবরণ করেন।

এ ব্যাপারে তার প্রবাসী ছেলে শেখ সোহেল রানা জানান, সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন হয়ে শুক্রবার আমার বাবা স্টোক করে মৃত্যুবরণ করেন। আমি এলাকাবাসী ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কাছে আমার বাবার অস্বাভাবিক মৃত্যু ও আমাদের সামাজিকভাবে হেয় করায় বিচার দাবি করছি।

ধর্ষণের মিথ্যা মামলায় জেল, স্ট্রোক করে বৃদ্ধের মৃত্যু

 ব্রাহ্মণপাড়া (কুমিল্লা) প্রতিনিধি  
০১ আগস্ট ২০২১, ০৯:৪৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ধর্ষণের মিথ্যা মামলা মাথায় নিয়ে ১০ মাস জেল খাটার পর বাড়িতে ফিরে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে স্ট্রোক করে এক বৃদ্ধ হাজি মৃত্যুবরণ করেছেন। কুমিল্লা জেলার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার মাধবপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। 

সরেজমিন এলাকা ঘুরে জানা যায়, ২০২০ সালের ২৪ অক্টোবর উপজেলার মাধবপুর কলেজপাড়া গ্রামের ওমান প্রবাসী ব্যবসায়ী হাজি শেখ আবুল হাছানকে (৫৫) গ্রামের কিছু কুচক্রী মহল মিথ্যা ধর্ষণের ঘটনা সাজিয়ে মামলা করে পুলিশের মাধ্যমে তাকে গ্রেফতার করে কুমিল্লা জেলহাজতে প্রেরণ করে। ওই গ্রামের চেয়ারা খাতুন বাদী হয়ে তার মেয়েকে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ বৃদ্ধ হাজি শেখ আবুল হাছানকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে পাঠায়। 

গ্রেফতারের পর আদালতে অনেকবার জামিন চাওয়া হলেও তিনি জামিন পাননি। জেলে থাকা অবস্থায় গত ১ জুন ডিএনএ টেস্টের রিপোর্ট এসে পৌঁছলে তিনি জড়িত নন- এমন রিপোর্টের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত তাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়ে মুক্তি দেন। 

১০ মাস জেল খাটার পর ঈদুল আজহার আগের দিন তিনি জেল থেকে মুক্তি পেয়ে বাড়ি আসার পর থেকে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন। সামাজিকভাবে তিনি হেয়প্রতিপন্ন হয়ে লোকসমাগমে নিজে অনেক ছোট হয়েছেন এমনটি ভেবে মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন। শুক্রবার দুপুরে তিনি তার নিজ বাড়িতে স্ট্রোক করে মৃত্যুবরণ করেন। 

এ ব্যাপারে তার প্রবাসী ছেলে শেখ সোহেল রানা জানান, সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন হয়ে শুক্রবার আমার বাবা স্টোক করে মৃত্যুবরণ করেন। আমি এলাকাবাসী ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কাছে আমার বাবার অস্বাভাবিক মৃত্যু ও আমাদের সামাজিকভাবে হেয় করায় বিচার দাবি করছি। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন