‘শ্রমিক নয়, মানুষ হিসেবে দেখো’
jugantor
‘শ্রমিক নয়, মানুষ হিসেবে দেখো’

  মশিহুর রহমান, বিরামপুর (দিনাজপুর)  

০১ আগস্ট ২০২১, ২৩:৩২:৫৮  |  অনলাইন সংস্করণ

দিনাজপুর-৬ আসনের এমপি শিবলী সাদিকের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ‘শিবলী সাদিক’ নামক আইডিতে আমাকে শ্রমিক হিসেবে নয়, মানুষ হিসেবে দেখো- এমন লেখা; যা সামাজিক যোগাযোগমাধমে সাড়া জাগিয়ে ফেলেছে।

সারা বিশ্বে মহামারি করোনার ভয়াল থাবার জন্য বাংলাদেশেও লকডাউন চলছে। এদিকে গার্মেন্টস শিল্প ঈদের ছুটি ও লকডাউনের মধ্যে খুলে দেওয়াই উত্তরবঙ্গসহ সারা দেশ থেকে মানুষ ছুটছেন কর্মের জন্য। এছাড়াও গণপরিবহণ বন্ধ থাকায় মানুষের মাঝে চলছে ঢাকা পৌঁছার প্রতিযোগিতা।

এমন পরিস্থিতির মাঝে এমপি শিবলী সাদিক নিজ ফেসবুক আইডিতে যা লেখেছেন তা হুবহু তুলে ধরা হলো-

‘আমাকে শ্রমিক হিসেবে নয়, মানুষ হিসেবে দেখো আমি তোমার নিকট আত্মীয নই, তবে আমি তোমার অনেক পরিচিত একজন মানুষ, আমি গার্মেন্টস শ্রমিক আমি পরিবহণ শ্রমিক আমি হোটেল শ্রমিক আমি দোকান শ্রমিক আমি নির্মাণ শ্রমিক আমি রিকশাচালক অথবা, দিনমজুর খুব ভালো করে দেখো তো আমাকে চিনতে পারো কিনা, তোমার গায়ে রং-বেরঙের পোশাক পরে আছ, সেই পোশাকটা আমার হাতে তৈরি, এই দেশের জন্য বিদেশের মাটি থেকে লক্ষ কোটি ডলার, আমার হাতে সেলাই করা কাপড থেকে আসে, আমার সান্ত্বনা আমাকে ভালো না বাসলেও আমার হাতে বানানো পোশাকগুলো তোমার অনেক পছন্দের, কি করে পারলে একটিবার আমার খোঁজ না নিতে, আমি পরিবহণ শ্রমিক, তুমি টাকাওয়ালা হবার আগে সারাটা রাত জেগে, সেই নিভৃত গ্রাম থেকে তোমাকে ঢাকায় নিয়ে এসেছি বহুবার, আমি ট্রাক চালিয়ে রাতের পর রাত জেগে তোমাদের জন্য খাবার নিয়ে এসেছি, কী করে যাও ভুলে আমাকে তুমি, আমি নির্মাণ শ্রমিক, আমাকে তোমার চিনতে পারার কথা নয়, দড়িতে ঝুলে সেই ৮ তলা ৯ তলায় জীবনটা হাতে নিয়ে কাজ করা মানুষ আমি, এই ঢাকা শহরের সব বড় বড় অট্টালিকা আমার হাতে তৈরি, আমি থাকি মোহাম্মদপুরের ওই বস্তিতে, এত সুন্দর বাড়ি তোমাদের জন্য বানাই, একটু দু'বেলা দু'মুঠো ভাত খাব বলে, কেমন করে এত সহজে ভুলে গেলে আমায়, আমি রিক্শা চালাই, এখনো প্রতিনিয়ত মাঝে মাঝেই তোমার বাসার বাজারগুলো আমাকেই পৌঁছাতে হয়, অথচ একটু কষ্টের সময় ভুলে গেলে আমায়, আমি দিনমজুর, কাদামাটি আর আবর্জনায় ভরে থাকা দেহ নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকা মানুষটা আমি, এই দেশের খাদ্য উৎপাদন থেকে শুরু করে ডাস্টবিনের ময়লা আবর্জনাগুলো পরিষ্কার করা আমার কাজ, তোমাদের পরিবেশ ভালো রাখতে, তোমাদের মুখে আহার তুলে দিতে আমি দিনরাত পরিশ্রম করে যাই, কি করে পারো একটু খোঁজ না নিতে, একটিবার ভেবে দেখো আমি, আমরা, তোমাদের সবার শান্তি, সমৃদ্ধি এবং বেঁচে থাকার একমাত্র অবলম্বন, অথচ সেই আমার বেলায় এত সিদ্ধান্তহীনতা সেই আমার বেলায়, একটু সাহায্যের হাত বাড়াতে তোমাদের এত কার্পণ্যতা, আমি, সম্মান করে স্যার মহাশয়, বড়বাবু, মেজ বাবু, বড় সাহেব, ছোট সাহেব কত নামে ডাকি, অথচ তোমাদের চোখে আমি সামান্য একজন, দারোয়ান, ড্রাইভার, মিস্ত্রি আর রিকশাচালক, আমাদের ঘামের টাকায় তোমাদের এত ভোগবিলাস অথচ আমরা তোমাদের কাছে শুধুই একজন সামান্য কাজের লোক, শুধু একমুঠো খাদ্যের অন্বেষণে শ্রম বিক্রি করি বলেই অধীনস্থ নিম্নশ্রেণির কর্মচারী, আমি চাকর, আমি শ্রমিক, আমি শ্রমিক, আমি শ্রমিক।’

‘শ্রমিক নয়, মানুষ হিসেবে দেখো’

 মশিহুর রহমান, বিরামপুর (দিনাজপুর) 
০১ আগস্ট ২০২১, ১১:৩২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দিনাজপুর-৬ আসনের এমপি শিবলী সাদিকের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ‘শিবলী সাদিক’ নামক আইডিতে আমাকে শ্রমিক হিসেবে নয়, মানুষ হিসেবে দেখো- এমন লেখা; যা সামাজিক যোগাযোগমাধমে সাড়া জাগিয়ে ফেলেছে।

সারা বিশ্বে মহামারি করোনার ভয়াল থাবার জন্য বাংলাদেশেও লকডাউন চলছে। এদিকে গার্মেন্টস শিল্প ঈদের ছুটি ও লকডাউনের মধ্যে খুলে দেওয়াই উত্তরবঙ্গসহ সারা দেশ থেকে মানুষ ছুটছেন কর্মের জন্য। এছাড়াও গণপরিবহণ বন্ধ থাকায় মানুষের মাঝে চলছে ঢাকা পৌঁছার প্রতিযোগিতা।

এমন পরিস্থিতির মাঝে এমপি শিবলী সাদিক নিজ ফেসবুক আইডিতে যা লেখেছেন তা হুবহু তুলে ধরা হলো-

‘আমাকে শ্রমিক হিসেবে নয়, মানুষ হিসেবে দেখো আমি তোমার নিকট আত্মীয নই, তবে আমি তোমার অনেক পরিচিত একজন মানুষ, আমি গার্মেন্টস শ্রমিক আমি পরিবহণ শ্রমিক আমি হোটেল শ্রমিক আমি দোকান শ্রমিক আমি নির্মাণ শ্রমিক আমি রিকশাচালক অথবা, দিনমজুর খুব ভালো করে দেখো তো আমাকে চিনতে পারো কিনা, তোমার গায়ে রং-বেরঙের পোশাক পরে আছ, সেই পোশাকটা আমার হাতে তৈরি, এই দেশের জন্য বিদেশের মাটি থেকে লক্ষ কোটি ডলার, আমার হাতে সেলাই করা কাপড থেকে আসে, আমার সান্ত্বনা আমাকে ভালো না বাসলেও আমার হাতে বানানো পোশাকগুলো তোমার অনেক পছন্দের, কি করে পারলে একটিবার আমার খোঁজ না নিতে, আমি পরিবহণ শ্রমিক, তুমি টাকাওয়ালা হবার আগে সারাটা রাত জেগে, সেই নিভৃত গ্রাম থেকে তোমাকে ঢাকায় নিয়ে এসেছি বহুবার, আমি ট্রাক চালিয়ে রাতের পর রাত জেগে তোমাদের জন্য খাবার নিয়ে এসেছি, কী করে যাও ভুলে আমাকে তুমি, আমি নির্মাণ শ্রমিক, আমাকে তোমার চিনতে পারার কথা নয়, দড়িতে ঝুলে সেই ৮ তলা ৯ তলায় জীবনটা হাতে নিয়ে কাজ করা মানুষ আমি, এই ঢাকা শহরের সব বড় বড় অট্টালিকা আমার হাতে তৈরি, আমি থাকি মোহাম্মদপুরের ওই বস্তিতে, এত সুন্দর বাড়ি তোমাদের জন্য বানাই, একটু দু'বেলা দু'মুঠো ভাত খাব বলে, কেমন করে এত সহজে ভুলে গেলে আমায়, আমি রিক্শা চালাই, এখনো প্রতিনিয়ত মাঝে মাঝেই তোমার বাসার বাজারগুলো আমাকেই পৌঁছাতে হয়, অথচ একটু কষ্টের সময় ভুলে গেলে আমায়, আমি দিনমজুর, কাদামাটি আর আবর্জনায় ভরে থাকা দেহ নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকা মানুষটা আমি, এই দেশের খাদ্য উৎপাদন থেকে শুরু করে ডাস্টবিনের ময়লা আবর্জনাগুলো পরিষ্কার করা আমার কাজ, তোমাদের পরিবেশ ভালো রাখতে, তোমাদের মুখে আহার তুলে দিতে আমি দিনরাত পরিশ্রম করে যাই, কি করে পারো একটু খোঁজ না নিতে, একটিবার ভেবে দেখো আমি, আমরা, তোমাদের সবার শান্তি, সমৃদ্ধি এবং বেঁচে থাকার একমাত্র অবলম্বন, অথচ সেই আমার বেলায় এত সিদ্ধান্তহীনতা সেই আমার বেলায়, একটু সাহায্যের হাত বাড়াতে তোমাদের এত কার্পণ্যতা, আমি, সম্মান করে স্যার মহাশয়, বড়বাবু, মেজ বাবু, বড় সাহেব, ছোট সাহেব কত নামে ডাকি, অথচ তোমাদের চোখে আমি সামান্য একজন, দারোয়ান, ড্রাইভার, মিস্ত্রি আর রিকশাচালক, আমাদের ঘামের টাকায় তোমাদের এত ভোগবিলাস অথচ আমরা তোমাদের কাছে শুধুই একজন সামান্য কাজের লোক, শুধু একমুঠো খাদ্যের অন্বেষণে শ্রম বিক্রি করি বলেই অধীনস্থ নিম্নশ্রেণির কর্মচারী, আমি চাকর, আমি শ্রমিক, আমি শ্রমিক, আমি শ্রমিক।’

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন