বাথরুম থেকে এসে দেখেন শিশুকন্যা নেই, লাশ মিলল ডোবায়
jugantor
বাথরুম থেকে এসে দেখেন শিশুকন্যা নেই, লাশ মিলল ডোবায়

  যুগান্তর প্রতিবেদন, আমতলী  

০৩ আগস্ট ২০২১, ২২:৪৬:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

এক মাস পাঁচ দিনের শিশুকন্যা সারামনির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় শিশুকন্যার বাবা শাহ আলম বাদী হয়েবরগুনার আমতলী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। ঘটনা ঘটেছে উপজেলার পূর্ব সোনাখালী গ্রামে সোমবার রাতে।

জানা গেছে, উপজেলার পূর্ব সোনাখালী গ্রামের শাহ আলম ও রোজিনা দম্পতির গত ২৮ জুন সারামনি নামে এক শিশুকন্যার জন্ম হয়। সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ১৯ মাসের শিশুকন্যা শাকিলা ও ৩৫ দিনের শিশুকন্যা সারামনিকে ঘরে রেখে মা রোজিনা বেগম বাথরুমে যান। তিনি এসে শিশু সারামনিকে ঘরে খুঁজে পাননি।

শিশুটিকে না পেয়ে মা রোজিনা বেগম ডাকচিৎকার দেন। তার ডাকচিৎকারে প্রতিবেশী ও স্বজনরা এসে শিশুকে খুঁজতে থাকেন। ঘণ্টাখানেক পর শিশুকন্যার লাশ ঘরের পাশে একটি ডোবায় স্বজনরা দেখতে পান। পরে স্থানীয়রা শিশুটির লাশ ডোবা থেকে তুলে পুলিশে খবর দেন।

মঙ্গলবার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে শিশুর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বরগুনা মর্গে প্রেরণ করেছে। এ ঘটনায় শিশুর বাবা শাহ আলম বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামি করে আমতলী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

শিশুর মা রোজিনা বেগম কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, মোর এইরহম সর্বনাশ কে হরলো? মোর ময়নারে মোর কোলে ফিরাইয়্যা দেন।

শিশুর বাবা শাহ আলম বলেন, আমার স্ত্রী শিশুকন্যা শাকিলা ও সারামনিকে ঘরে রেখে বাথরুমে যাই। ওই সময় ঘরে আমার প্যারালাইজড মা ছাড়া কেউ ছিল না। আমি ও আমার বাবা দিনমজুরির কাছে চরমোন্তাজ ছিলাম। ফাঁকা ঘরে কেউ আমার শিশুকন্যাকে তুলে নিয়ে ডোবায় ফেলে দিয়েছে। আমি এ ঘটনার বিচার চাই।

আমতলী থানার ওসি মো. শাহ আলম হাওলাদার বলেন, শিশুর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বরগুনা মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় শিশু কন্যার বাবা বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

তিনি আরও বলেন, তদন্ত করে এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের আইনের আওতায় আনা হবে।

বাথরুম থেকে এসে দেখেন শিশুকন্যা নেই, লাশ মিলল ডোবায়

 যুগান্তর প্রতিবেদন, আমতলী 
০৩ আগস্ট ২০২১, ১০:৪৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

এক মাস পাঁচ দিনের শিশুকন্যা সারামনির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় শিশুকন্যার বাবা শাহ আলম বাদী হয়ে বরগুনার আমতলী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। ঘটনা ঘটেছে উপজেলার পূর্ব সোনাখালী গ্রামে সোমবার রাতে।
 
জানা গেছে, উপজেলার পূর্ব সোনাখালী গ্রামের শাহ আলম ও রোজিনা দম্পতির গত ২৮ জুন সারামনি নামে এক শিশুকন্যার জন্ম হয়। সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ১৯ মাসের শিশুকন্যা শাকিলা ও ৩৫ দিনের শিশুকন্যা সারামনিকে ঘরে রেখে মা রোজিনা বেগম বাথরুমে যান। তিনি এসে শিশু সারামনিকে ঘরে খুঁজে পাননি।

শিশুটিকে না পেয়ে মা রোজিনা বেগম ডাকচিৎকার দেন। তার ডাকচিৎকারে প্রতিবেশী ও স্বজনরা এসে শিশুকে খুঁজতে থাকেন। ঘণ্টাখানেক পর শিশুকন্যার লাশ ঘরের পাশে একটি ডোবায় স্বজনরা দেখতে পান। পরে স্থানীয়রা শিশুটির লাশ ডোবা থেকে তুলে পুলিশে খবর দেন।

মঙ্গলবার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে শিশুর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বরগুনা মর্গে প্রেরণ করেছে। এ ঘটনায় শিশুর বাবা শাহ আলম বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামি করে আমতলী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

শিশুর মা রোজিনা বেগম কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, মোর এইরহম সর্বনাশ কে হরলো? মোর ময়নারে মোর কোলে ফিরাইয়্যা দেন।

শিশুর বাবা শাহ আলম বলেন, আমার স্ত্রী শিশুকন্যা শাকিলা ও সারামনিকে ঘরে রেখে বাথরুমে যাই। ওই সময় ঘরে আমার প্যারালাইজড মা ছাড়া কেউ ছিল না। আমি ও আমার বাবা দিনমজুরির কাছে চরমোন্তাজ ছিলাম। ফাঁকা ঘরে কেউ আমার শিশুকন্যাকে তুলে নিয়ে ডোবায় ফেলে দিয়েছে। আমি এ ঘটনার বিচার চাই।

আমতলী থানার ওসি মো. শাহ আলম হাওলাদার বলেন, শিশুর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বরগুনা মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় শিশু কন্যার বাবা বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

তিনি আরও বলেন, তদন্ত করে এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের আইনের আওতায় আনা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন