‘শেখ হাসিনা বেঁচে থাকতে দেশের কাউকে না খেয়ে মরতে হবে না’
jugantor
‘শেখ হাসিনা বেঁচে থাকতে দেশের কাউকে না খেয়ে মরতে হবে না’

  লামা (বান্দরবান) প্রতিনিধি  

০৩ আগস্ট ২০২১, ২৩:২২:৩৬  |  অনলাইন সংস্করণ

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেঁচে থাকতে কাউকে না খেয়ে মরতে হবে না। পার্বত্য বান্দরবান জেলায় প্রধানমন্ত্রী পর্যাপ্ত খাদ্যশস্য বরাদ্দ দিয়েছেন। কারো খাদ্য সংকট দেখা দিলে ৩৩৩ নম্বরে কল দিলেই ঘরে পৌঁছে যাবে প্রয়োজনীয় খাবার।

কোভিড-১৯ ও সম্প্রতি উপজেলায় প্রবল বর্ষণে পাহাড়ি ঢল ও পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

এ সময় তিনি আরও বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে পাহাড়ি ঢলে নদী ও খালপাড় ভাঙন রোধসহ বিধ্বস্ত সড়ক সংস্কারে দ্রুত কাজ শুরু করা হবে।

মঙ্গলবার দুপুরে লামা পৌরসভার মেয়র মো. জহিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন- বান্দরবান জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভীন তীবরীজি, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. মোস্তফা জামাল, নির্বাহী অফিসার মো. রেজা রশীদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অশোক কুমার পাল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বাথোয়াইচিং মার্মা, পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা অরুপ কুমার প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের আলোচনা শেষে মন্ত্রী পৌর এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত ২ হাজার পরিবারের মাঝে দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় চাল, তেল, ডাল, লবণ, আলু, ৫৫ পরিবারের মাঝে ঢেউটিন ও নগদ টাকা, বান্দরবান জেলা পরিষদের সহায়তায় ৯০ পরিবারের মাঝে নগদ টাকা প্রদান করেন।

পরে উপজেলার রুপসীপাড়া ইউনিয়নের উপর দিয়ে বয়ে চলা লামা খালের দরদরী ইব্রাহিম লিড়ারপাড়া, ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের ইয়াংছা খালের ইয়াংছা বাজার, মাতামুহুরী নদীর সাবেক বিলছড়ি মার্মাপাড়া ও সিলেরতুয়া মার্মাপাড়া এলাকা পরিদর্শন করেন মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং।

‘শেখ হাসিনা বেঁচে থাকতে দেশের কাউকে না খেয়ে মরতে হবে না’

 লামা (বান্দরবান) প্রতিনিধি 
০৩ আগস্ট ২০২১, ১১:২২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বেঁচে থাকতে কাউকে না খেয়ে মরতে হবে না। পার্বত্য বান্দরবান জেলায় প্রধানমন্ত্রী পর্যাপ্ত খাদ্যশস্য বরাদ্দ দিয়েছেন। কারো খাদ্য সংকট দেখা দিলে ৩৩৩ নম্বরে কল দিলেই ঘরে পৌঁছে যাবে প্রয়োজনীয় খাবার।

কোভিড-১৯ ও সম্প্রতি উপজেলায় প্রবল বর্ষণে পাহাড়ি ঢল ও পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

এ সময় তিনি আরও বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে পাহাড়ি ঢলে নদী ও খালপাড় ভাঙন রোধসহ বিধ্বস্ত সড়ক সংস্কারে দ্রুত কাজ শুরু করা হবে। 

মঙ্গলবার দুপুরে লামা পৌরসভার মেয়র মো. জহিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ত্রাণ বিতরণ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন- বান্দরবান জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভীন তীবরীজি, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. মোস্তফা জামাল, নির্বাহী অফিসার মো. রেজা রশীদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অশোক কুমার পাল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বাথোয়াইচিং মার্মা, পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা অরুপ কুমার প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের আলোচনা শেষে মন্ত্রী পৌর এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত ২ হাজার পরিবারের মাঝে দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় চাল, তেল, ডাল, লবণ, আলু, ৫৫ পরিবারের মাঝে ঢেউটিন ও নগদ টাকা, বান্দরবান জেলা পরিষদের সহায়তায় ৯০ পরিবারের মাঝে নগদ টাকা প্রদান করেন।

পরে উপজেলার রুপসীপাড়া ইউনিয়নের উপর দিয়ে বয়ে চলা লামা খালের দরদরী ইব্রাহিম লিড়ারপাড়া, ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নের ইয়াংছা খালের ইয়াংছা বাজার, মাতামুহুরী নদীর সাবেক বিলছড়ি মার্মাপাড়া ও সিলেরতুয়া মার্মাপাড়া এলাকা পরিদর্শন করেন মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন