২০ কোটি টাকার রাস্তার কাজ বন্ধ করে দিলেন প্রকৌশলী
jugantor
২০ কোটি টাকার রাস্তার কাজ বন্ধ করে দিলেন প্রকৌশলী

  ভেড়ামারা (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি  

০৫ আগস্ট ২০২১, ২৩:০৩:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

নিম্নমানের কাজের অভিযোগে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা রায়টা জুনিয়াদহ সড়কের কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন ভেড়ামারা উপজেলা প্রকৌশলী ইঞ্জিনিয়ার রকিব হোসেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে সড়কের কাজ পরিদর্শনে গিয়ে তিনি নিম্নমানের কাজ দেখতে পান। পরে তা বন্ধের নির্দেশ দেন।

জানা গেছে, ভেড়ামারা উপজেলার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সড়ক রায়টা জুনিয়াদহ সড়ক। ১৯ কিলোমিটার সড়কের জন্য ব্যয় ধরা হয় প্রায় ২০ কোটি টাকা। ইতোমধ্যে প্রায় ৭ কিলোমিটার রাস্তার কাজ শেষ হয়েছে। প্রথম থেকেই নিম্নমানের কাজের অভিযোগ করে আসছিলেন এলাকাবাসী। বর্তমানে বাহাদুরপুর ইউনিয়নের আড়কান্দি বাজারের পাশে সড়কের উন্নয়ন কাজ চলছে। অতিবর্ষণের মাঝেও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান তড়িঘড়ি কাজ করে চলেছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সড়কের কাজ পরিদর্শনে যান ভেড়ামারা উপজেলা প্রকৌশলী ইঞ্জিনিয়ার রকিব হোসেন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন কুষ্টিয়া এলজিডির সহকারী প্রকৌশলী আবদুল্লাহ আল রাশেদি। তারা দেখতে পান অটো মেশিনে মিক্সিং হওয়া খোয়ার সঙ্গে ডাস্টের পরিমাণ খুবই কম। মিক্সিংয়ে কমপক্ষে ৫ ভাগ ডাস্ট প্রয়োজন ছিল। বিটুমিনসহ অন্যান্য খরচ বাঁচাতে তারা ২ বা ৩ ভাগ ডাস্ট দিচ্ছিলেন। ডাস্টের পরিমাণ কম হলে খোয়ার সমন্বয় ঘটে না। এ সময় কাজ বন্ধের নির্দেশ দেন প্রকৌশলীরা।

এ বিষয়ে ভেড়ামারা উপজেলা প্রকৌশলী ইঞ্জিনিয়ার রকিব হাসান জানিয়েছেন, ভেড়ামারা রায়টা জুনিয়াদহ সড়কের আড়কান্দি এলাকায় এখন কাজ চলছে। অটো মেশিনে মিক্সিং করে রাস্তায় খোয়া বিছানো হচ্ছে। তাতে দেখা গেছে, মিক্সিংয়ে কমপক্ষে ৫ ভাগ ডাস্ট প্রয়োজন ছিল। কিন্তু তারা ২ বা ৩ ভাগ ডাস্ট দিচ্ছিলেন। ডাস্টের পরিমাণ কম হলে খোয়ার সমন্বয় ঘটে না। খোয়ার মাঝে অনেক ফাঁকের সৃষ্টি হয়। ফলে অল্প বৃষ্টিতেই রাস্তার ব্যাপক ক্ষতি হয়ে সড়কটি দ্রুত নষ্ট হয়ে যাবে। যে কারণে কাজ বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

২০ কোটি টাকার রাস্তার কাজ বন্ধ করে দিলেন প্রকৌশলী

 ভেড়ামারা (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি 
০৫ আগস্ট ২০২১, ১১:০৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নিম্নমানের কাজের অভিযোগে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা রায়টা জুনিয়াদহ সড়কের কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন ভেড়ামারা উপজেলা প্রকৌশলী ইঞ্জিনিয়ার রকিব হোসেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে সড়কের কাজ পরিদর্শনে গিয়ে তিনি নিম্নমানের কাজ দেখতে পান। পরে তা বন্ধের নির্দেশ দেন।

জানা গেছে, ভেড়ামারা উপজেলার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সড়ক রায়টা জুনিয়াদহ সড়ক। ১৯ কিলোমিটার সড়কের জন্য ব্যয় ধরা হয় প্রায় ২০ কোটি টাকা। ইতোমধ্যে প্রায় ৭ কিলোমিটার রাস্তার কাজ শেষ হয়েছে। প্রথম থেকেই নিম্নমানের কাজের অভিযোগ করে আসছিলেন এলাকাবাসী। বর্তমানে বাহাদুরপুর ইউনিয়নের আড়কান্দি বাজারের পাশে সড়কের উন্নয়ন কাজ চলছে। অতিবর্ষণের মাঝেও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান তড়িঘড়ি কাজ করে চলেছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সড়কের কাজ পরিদর্শনে যান ভেড়ামারা উপজেলা প্রকৌশলী ইঞ্জিনিয়ার রকিব হোসেন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন কুষ্টিয়া এলজিডির সহকারী প্রকৌশলী আবদুল্লাহ আল রাশেদি। তারা দেখতে পান অটো মেশিনে মিক্সিং হওয়া খোয়ার সঙ্গে ডাস্টের পরিমাণ খুবই কম। মিক্সিংয়ে কমপক্ষে ৫ ভাগ ডাস্ট প্রয়োজন ছিল। বিটুমিনসহ অন্যান্য খরচ বাঁচাতে তারা ২ বা ৩ ভাগ ডাস্ট দিচ্ছিলেন। ডাস্টের পরিমাণ কম হলে খোয়ার সমন্বয় ঘটে না। এ সময় কাজ বন্ধের নির্দেশ দেন প্রকৌশলীরা।

এ বিষয়ে ভেড়ামারা উপজেলা প্রকৌশলী ইঞ্জিনিয়ার রকিব হাসান জানিয়েছেন, ভেড়ামারা রায়টা জুনিয়াদহ সড়কের আড়কান্দি এলাকায় এখন কাজ চলছে। অটো মেশিনে মিক্সিং করে রাস্তায় খোয়া বিছানো হচ্ছে। তাতে দেখা গেছে, মিক্সিংয়ে কমপক্ষে ৫ ভাগ ডাস্ট প্রয়োজন ছিল। কিন্তু তারা ২ বা ৩ ভাগ ডাস্ট দিচ্ছিলেন। ডাস্টের পরিমাণ কম হলে খোয়ার সমন্বয় ঘটে না। খোয়ার মাঝে অনেক ফাঁকের সৃষ্টি হয়। ফলে অল্প বৃষ্টিতেই রাস্তার ব্যাপক ক্ষতি হয়ে সড়কটি দ্রুত নষ্ট হয়ে যাবে। যে কারণে কাজ বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন