সন্ধ্যায় ঘাস কাটতে গিয়ে নিখোঁজ, ভোরে লাশ মিলল পুকুরপাড়ে
jugantor
সন্ধ্যায় ঘাস কাটতে গিয়ে নিখোঁজ, ভোরে লাশ মিলল পুকুরপাড়ে

  নেত্রকোনা প্রতিনিধি  

০৬ আগস্ট ২০২১, ২১:৩০:২৭  |  অনলাইন সংস্করণ

লাশ উদ্ধার

নেত্রকোনার বারহাট্টায় গরুর জন্য ঘাস কাটতে গিয়ে লাশ হয়েছেন এক কৃষক। নিহতের নাম সুলেমান মিয়া (৩৫)। তিনি আলোকদিয়া-নামাপাড়া গ্রামের আবদুল জব্বারের ছেলে।

সূত্র জানায়, সুলেমান মিয়া বাড়ি থেকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় খাঁচা ও কাঁচি নিয়ে বের হন। এরপর রাত হলেও তিনি বাড়ি না ফিরলে পরিবারের লোকজন তাকে খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। পরে শুক্রবার ভোরে একটি পুকুরপাড়ে তার লাশ পাওয়া যায়।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার ভোরে গ্রামের লুৎফুর রহমান নামে এক ব্যক্তির পুকুরপাড়ে সুলেমানের লাশ পাওয়া যায়। তার লাশের পাশেই খাঁচাভর্তি ঘাস ও কাঁচি পড়ে ছিল। লাশ দেখে এগিয়ে গেলে খামারের পাহারাদার শুক্কুর আলী (৪২) বিদ্যুৎস্পৃষ্টে আহত হন। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে পাশ্ববর্তী মোহনগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

সিংধা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য উজ্বল মিয়া বলেন, লুৎফুরের ফিশারির সীমানায় জাল দিয়ে ঘেরা আছে। এই ঘেরাওয়ের খুঁটির সঙ্গে বিদ্যুতের লাইন টানানো আছে। ধারণা করা হচ্ছে, বিদ্যুতের লাইনটিতে লিকেজ রয়েছে। কৃষক সুলেমান ঘাস নিয়ে ফেরার সময় অথবা ঘাস কাটতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মারা যেতে পারেন।

এ বিষয়ে বারহাট্টা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মিজানুর রহমান বলেন, ধারণা করা হচ্ছে ঘাস কাটতে গিয়ে কৃষক সুলেমান বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মারা গেছেন। তারা লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

সন্ধ্যায় ঘাস কাটতে গিয়ে নিখোঁজ, ভোরে লাশ মিলল পুকুরপাড়ে

 নেত্রকোনা প্রতিনিধি 
০৬ আগস্ট ২০২১, ০৯:৩০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
লাশ উদ্ধার
প্রতীকী ছবি

নেত্রকোনার বারহাট্টায় গরুর জন্য ঘাস কাটতে গিয়ে লাশ হয়েছেন এক কৃষক। নিহতের নাম সুলেমান মিয়া (৩৫)। তিনি আলোকদিয়া-নামাপাড়া গ্রামের আবদুল জব্বারের ছেলে।

সূত্র জানায়, সুলেমান মিয়া বাড়ি থেকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় খাঁচা ও কাঁচি নিয়ে বের হন। এরপর রাত হলেও তিনি বাড়ি না ফিরলে পরিবারের লোকজন তাকে খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। পরে শুক্রবার ভোরে একটি পুকুরপাড়ে তার লাশ পাওয়া যায়।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার ভোরে গ্রামের লুৎফুর রহমান নামে এক ব্যক্তির পুকুরপাড়ে সুলেমানের লাশ পাওয়া যায়। তার লাশের পাশেই খাঁচাভর্তি ঘাস ও কাঁচি পড়ে ছিল। লাশ দেখে এগিয়ে গেলে খামারের পাহারাদার শুক্কুর আলী (৪২) বিদ্যুৎস্পৃষ্টে আহত হন। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে পাশ্ববর্তী মোহনগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

সিংধা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য উজ্বল মিয়া বলেন, লুৎফুরের ফিশারির সীমানায় জাল দিয়ে ঘেরা আছে। এই ঘেরাওয়ের খুঁটির সঙ্গে বিদ্যুতের লাইন টানানো আছে। ধারণা করা হচ্ছে, বিদ্যুতের লাইনটিতে লিকেজ রয়েছে। কৃষক সুলেমান ঘাস নিয়ে ফেরার সময় অথবা ঘাস কাটতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মারা যেতে পারেন।

এ বিষয়ে বারহাট্টা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মিজানুর রহমান বলেন, ধারণা করা হচ্ছে ঘাস কাটতে গিয়ে কৃষক সুলেমান বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মারা গেছেন। তারা লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন