পানিতে ডুবে শিশু ও কিশোরের মৃত্যু
jugantor
পানিতে ডুবে শিশু ও কিশোরের মৃত্যু

  গফরগাঁওয় (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

০৬ আগস্ট ২০২১, ২৩:৩২:২১  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলায় পানিতে ডুবে দুই শিশু ও কিশোরের মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার সকালে উপজেলারযশরাও পালইকান্দা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

মৃতরা হলো-কিশোর আব্দুল আহাদ (১৫) ও শিশু মরিয়ম।

নিহত আব্দুল আহাদ যশরা গ্রামের রইছ উদ্দিনের ছেলে, আর মরিয়ম আক্তার পালইকান্দা গ্রামের হাফেজ মজিবুর রহমানের মেয়ে।

ভুক্তভোগীদের পরিবার সূত্রে জানা যায়, আব্দুল আহাদ সকালে শিবগঞ্জ বাজার এলাকায় হুরমত উল্লাহ কলেজ সংলগ্ন সুতিয়া নদীতে জাল দিয়ে মাছ ধরতে যায়। সাঁতার না জানার কারণে স্রোতের টানে আহাদ ডুবে যায়। এ সময় তার পাশেই মাছ ধরছিলেন একই এলাকার যুবক আব্দুল জলিল। তিনি টের পেয়ে চিৎকার শুরু করেন। আশপাশের লোকজন এসে ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয়। ফায়ার সার্ভিসের দল ঘটনাস্থলে পৌঁছে এক ঘণ্টার অভিযানে পানি থেকে আব্দুল আহাদের মরদেহ উদ্ধার করে।

অন্যদিকে শিশু মরিয়ম আক্তারকে সকাল ৯ টার দিকে তার মা জান্নাতুল ফেরদৌস বালতির পানিতে রেখে ঘরের কাজ শুরু করেন। একপর্যয়ে শিশুটি বালতির পানিতে ডুবে যায়। অনেকক্ষণ পর মরিয়মের মা এসে দেখেন বালতির পানিতে মরিয়ম ডুবে আছে।

মরিয়মকে উদ্ধার করে তারা স্থানীয় ডাক্তারের কাছে নিয়ে যান। ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

যশরা ইউপি চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম রিয়েল ঘটনার দুইটির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

পানিতে ডুবে শিশু ও কিশোরের মৃত্যু

 গফরগাঁওয় (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  
০৬ আগস্ট ২০২১, ১১:৩২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলায় পানিতে ডুবে দুই শিশু ও কিশোরের মৃত্যু হয়েছে। 

শুক্রবার সকালে উপজেলার যশরা ও পালইকান্দা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

মৃতরা হলো-কিশোর আব্দুল আহাদ (১৫) ও শিশু মরিয়ম। 

নিহত আব্দুল আহাদ যশরা গ্রামের রইছ উদ্দিনের ছেলে, আর মরিয়ম আক্তার পালইকান্দা গ্রামের হাফেজ মজিবুর রহমানের মেয়ে।

ভুক্তভোগীদের পরিবার সূত্রে জানা যায়, আব্দুল আহাদ সকালে শিবগঞ্জ বাজার এলাকায় হুরমত উল্লাহ কলেজ সংলগ্ন সুতিয়া নদীতে জাল দিয়ে মাছ ধরতে যায়। সাঁতার না জানার কারণে স্রোতের টানে আহাদ ডুবে যায়। এ সময় তার পাশেই মাছ ধরছিলেন একই এলাকার যুবক আব্দুল জলিল। তিনি টের পেয়ে চিৎকার শুরু করেন। আশপাশের লোকজন এসে ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয়। ফায়ার সার্ভিসের দল ঘটনাস্থলে পৌঁছে এক ঘণ্টার অভিযানে পানি থেকে আব্দুল আহাদের মরদেহ উদ্ধার করে।

অন্যদিকে শিশু মরিয়ম আক্তারকে সকাল ৯ টার দিকে তার মা জান্নাতুল ফেরদৌস বালতির পানিতে রেখে ঘরের কাজ শুরু করেন। একপর্যয়ে শিশুটি বালতির পানিতে ডুবে যায়। অনেকক্ষণ পর মরিয়মের মা এসে দেখেন বালতির পানিতে মরিয়ম ডুবে আছে। 

মরিয়মকে উদ্ধার করে তারা স্থানীয় ডাক্তারের কাছে নিয়ে যান। ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। 

যশরা ইউপি চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম রিয়েল ঘটনার দুইটির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।  

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন