শিশুপুত্রকে গলা কেটে হত্যার পর আত্মহত্যাচেষ্টা বাবার
jugantor
শিশুপুত্রকে গলা কেটে হত্যার পর আত্মহত্যাচেষ্টা বাবার

  মুক্তাগাছা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  

১৩ আগস্ট ২০২১, ০৯:৪৯:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় পাঁচ মাস বয়সিশিশুপুত্রকে গলা কেটে হত্যা করেছেন এক ব্যক্তি। স্ত্রীকেও এলোপাতাড়ি কুপিয়ে নিজে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন ঘাতক।

বৃহস্পতিবার উপজেলার দাওগাঁও ইউনিয়নের চন্দনীআটা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত শাজাহান (২৬) উপজেলার চন্দনীআটা গ্রামের মৃত তমেজ আলীর ছেলে।

মুক্তাগাছা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জাহাঙ্গীর আলম ঘটনার সত্যতা যুগান্তরকে নিশ্চিত করেছেন।

অভিযুক্তের মা জমেলা বেগম জানান, বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টার পর থেকে অস্বাভাবিক আচরণ করতে থাকে শাজাহান। ‘কেউ তাকে খুন করতে আসছে’ এমন অস্বাভাবিক কথাবার্তা বলতে থাকে। এক পর্যায়ে রাত ১০টার দিকে স্ত্রী, শিশুপুত্র, ভাগিনা শিমুল, শ্যালিকা আকলিমাসহ সবাইকে নিয়ে ঘরে ঢুকে ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে দেয়। এরপর স্ত্রী জেসমিনের কাছ থেকে শিশুপুত্র শরিফকে ছিনিয়ে নিয়ে ধারাল ছুরি দিয়ে তার গলা কাটে। এতে ঘটনাস্থলে শিশুটির মৃত্যু হয়। শিশুটিকে বাঁচানোর জন্য জেসমিন এগিয়ে আসলে তাকেও কুপিয়ে জখম করে এবং নিজের গলায় ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে শাজাহান।

খবর পেয়ে পুলিশ এসে শাজাহান ও তার স্ত্রীকে চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। আর নিহত শিশুটিকে উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন‍্য একই হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

শিশুপুত্রকে গলা কেটে হত্যার পর আত্মহত্যাচেষ্টা বাবার

 মুক্তাগাছা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি 
১৩ আগস্ট ২০২১, ০৯:৪৯ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় পাঁচ মাস বয়সি শিশুপুত্রকে গলা কেটে হত্যা করেছেন এক ব্যক্তি। স্ত্রীকেও এলোপাতাড়ি কুপিয়ে নিজে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন ঘাতক।

বৃহস্পতিবার উপজেলার দাওগাঁও ইউনিয়নের চন্দনীআটা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। 

অভিযুক্ত শাজাহান (২৬) উপজেলার চন্দনীআটা গ্রামের মৃত তমেজ আলীর ছেলে।

মুক্তাগাছা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জাহাঙ্গীর আলম ঘটনার সত্যতা যুগান্তরকে নিশ্চিত করেছেন। 

অভিযুক্তের মা জমেলা বেগম জানান, বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টার পর থেকে অস্বাভাবিক আচরণ করতে থাকে শাজাহান। ‘কেউ তাকে খুন করতে আসছে’ এমন অস্বাভাবিক কথাবার্তা বলতে থাকে। এক পর্যায়ে রাত ১০টার দিকে স্ত্রী, শিশুপুত্র, ভাগিনা শিমুল, শ্যালিকা আকলিমাসহ সবাইকে নিয়ে ঘরে ঢুকে ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে দেয়। এরপর স্ত্রী জেসমিনের কাছ থেকে শিশুপুত্র শরিফকে ছিনিয়ে নিয়ে ধারাল ছুরি দিয়ে তার গলা কাটে। এতে ঘটনাস্থলে শিশুটির মৃত্যু হয়। শিশুটিকে বাঁচানোর জন্য জেসমিন এগিয়ে আসলে তাকেও কুপিয়ে জখম করে এবং নিজের গলায় ছুরি চালিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে শাজাহান।

খবর পেয়ে পুলিশ এসে শাজাহান ও তার স্ত্রীকে চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। আর নিহত শিশুটিকে উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন‍্য একই হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন