খাগড়াছড়িতে অস্ত্রসহ ৩ ইউপিডিএফ সদস্য আটক
jugantor
খাগড়াছড়িতে অস্ত্রসহ ৩ ইউপিডিএফ সদস্য আটক

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৩ আগস্ট ২০২১, ২২:৩২:১৮  |  অনলাইন সংস্করণ

ইউপিডিএফ সদস্য

খাগড়াছড়ির বঙ্গলতলী ও রাঙ্গামাটির নানিয়ারচরে সেনাবাহিনীর পৃথক অভিযানে অস্ত্রসহ ৩ জন ইউপিডিএফ (প্রসীত) সদস্যকে আটক করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে সেনাবাহিনীর একটি টহল দল খাগড়াছড়ির বঙ্গলতলী নামক এলাকায় অভিযান চালিয়ে ইউপিডিএফ (প্রসীত) এর দুইজন সক্রিয় সদস্যকে অস্ত্রসহ আটক করে।

আটকরা সন্ত্রাসীরা হলো- ওমর চাকমা (৩৪) এবং রকেট চাকমা (২২)।

আটকদের কাছ থেকে ১টি এলজি পিস্তল, ২ রাউন্ড গুলি, চাঁদা সংগ্রহের রশিদ বই, মোবাইল সেট ও ব্যক্তিগত ব্যাগ উদ্ধার করা হয়।

আটকদের বিরুদ্ধে খাগড়াছড়ির করেংগাতলী এলাকায় চাঁদাবাজি, হত্যা ও ধর্ষণের জড়িত থাকার অভিযোগে অভিযুক্ত। তারা এ ধরনের কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে ওই এলাকায় অস্থিরতা সৃষ্টি করে আসছিল। তারা ইউপিডিএফ (প্রসীত) দলের সশস্ত্র শাখার সক্রিয় সদস্য বলে জানা যায়।

অপরদিকে, একই রাতে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে পৃথক অভিযানে সেনাবাহিনীর অপর একটি টহল দল রাঙ্গামাটির নানিয়ারচর উপজেলার হাজাছড়া এলাকা থেকে ইউপিডিএফ (প্রসীত) এর সশস্ত্র সন্ত্রাসী রুপায়ন চাকমা ওরফে গঙ্গামনিকে (৩৮) অস্ত্রসহ আটক করে।

আটক সন্ত্রাসীর কাছ থেকে ১টি বিদেশি ০.৩০৩ রাইফেল (থ্রি নট থ্রি), ৫ রাউন্ড গুলি, ৩টি মোবাইল সেট, ২টি ভোটার আইডি কার্ড, ২টি চাঁদা আদায়ের রশিদ বই উদ্ধার করা হয়।

আটক সন্ত্রাসী ইউপিডিএফ (প্রসীত) এর সক্রিয় সদস্য এবং স্থানীয় চাঁদা সংগ্রহকারী বলে জানা যায়।

আটকদের বিরুদ্ধে আইনানুগ কার্যক্রম গ্রহণ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

পার্বত্য চট্টগ্রামের নিরাপত্তা পরিস্থিতি স্থিতিশীল রাখার লক্ষ্যে সেনাবাহিনীর এরূপ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানানো হয়।

খাগড়াছড়িতে অস্ত্রসহ ৩ ইউপিডিএফ সদস্য আটক

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৩ আগস্ট ২০২১, ১০:৩২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ইউপিডিএফ সদস্য
ছবি: সংগৃহীত

খাগড়াছড়ির বঙ্গলতলী ও রাঙ্গামাটির নানিয়ারচরে সেনাবাহিনীর পৃথক অভিযানে অস্ত্রসহ ৩ জন ইউপিডিএফ (প্রসীত) সদস্যকে আটক করা হয়েছে।  

বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে সেনাবাহিনীর একটি টহল দল খাগড়াছড়ির বঙ্গলতলী নামক এলাকায় অভিযান চালিয়ে ইউপিডিএফ (প্রসীত) এর দুইজন সক্রিয় সদস্যকে অস্ত্রসহ আটক করে। 

আটকরা সন্ত্রাসীরা হলো- ওমর চাকমা (৩৪) এবং রকেট চাকমা (২২)। 

আটকদের কাছ থেকে ১টি এলজি পিস্তল, ২ রাউন্ড গুলি, চাঁদা সংগ্রহের রশিদ বই, মোবাইল সেট ও ব্যক্তিগত ব্যাগ উদ্ধার করা হয়। 

আটকদের বিরুদ্ধে খাগড়াছড়ির করেংগাতলী এলাকায় চাঁদাবাজি, হত্যা ও ধর্ষণের জড়িত থাকার অভিযোগে অভিযুক্ত।  তারা এ ধরনের কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে ওই এলাকায় অস্থিরতা সৃষ্টি করে আসছিল। তারা ইউপিডিএফ (প্রসীত) দলের সশস্ত্র শাখার সক্রিয় সদস্য বলে জানা যায়। 

অপরদিকে, একই রাতে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে পৃথক অভিযানে সেনাবাহিনীর অপর একটি টহল দল রাঙ্গামাটির নানিয়ারচর উপজেলার হাজাছড়া এলাকা থেকে ইউপিডিএফ (প্রসীত) এর সশস্ত্র সন্ত্রাসী রুপায়ন চাকমা ওরফে গঙ্গামনিকে (৩৮) অস্ত্রসহ আটক করে। 

আটক সন্ত্রাসীর কাছ থেকে ১টি বিদেশি ০.৩০৩ রাইফেল (থ্রি নট থ্রি), ৫ রাউন্ড গুলি, ৩টি মোবাইল সেট, ২টি ভোটার আইডি কার্ড, ২টি চাঁদা আদায়ের রশিদ বই উদ্ধার করা হয়। 

আটক সন্ত্রাসী ইউপিডিএফ (প্রসীত) এর সক্রিয় সদস্য এবং স্থানীয় চাঁদা সংগ্রহকারী বলে জানা যায়। 

আটকদের বিরুদ্ধে আইনানুগ কার্যক্রম গ্রহণ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

পার্বত্য চট্টগ্রামের নিরাপত্তা পরিস্থিতি স্থিতিশীল রাখার লক্ষ্যে সেনাবাহিনীর এরূপ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানানো হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন