১০ টাকার জন্য চাচাতো বোনকে হত্যা
jugantor
১০ টাকার জন্য চাচাতো বোনকে হত্যা

  নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা) প্রতিনিধি  

১৩ আগস্ট ২০২১, ২২:৪৫:১২  |  অনলাইন সংস্করণ

হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় গ্রেফতার সুমি আক্তার ও সেলিনা আক্তার

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে কাপড় সেলাইয়ের ১০ টাকা কম দেওয়ার জেরে জহুরা বেগম নামে একজনকে হত্যার ঘটনা ঘটেছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উপজেলার আদ্রা দক্ষিণ পাড়া গ্রামের সৈয়দ আলী ভূঁইয়া বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পুলিশ ২ নারীকে গ্রেফতারকরেছে পুলিশ।

নিহত জহুরা আদ্রা দক্ষিণ পাড়া গ্রামের মফিজুর রহমানের মেয়ে এবং মনোহরগঞ্জ উপজেলার লক্ষনপুর ইউনিয়নের মরিচা গ্রামের সাইফুলের স্ত্রী।

গ্রেফতারকৃতরাহলেন, দক্ষিণ পাড়া গ্রামের সফিকুর রহমানের মেয়ে সুমি আক্তার (২৬) ও সেলিনা আক্তার (২৮)। তাদেরকে শুক্রবার আদালতের মাধ্যমে কারগারে পাঠানো হয়েছে।

স্থানীয় ও মামলা সূত্রে জানা যায়, কয়েকদিন পূর্বে জহুরা বেগমের বোন খোরশেদা বেগম একটি থ্রি-পিস সেলাইয়ের জন্য চাচাতো বোন সুমির নিকট দেয়।

ওইদিন সন্ধ্যায় জহুরা এবং খোরশেদা সুমির কাছ থেকে থ্রি-পিস আনতে যায়। এ সময় সুমি ১০০ টাকা দাবি করলে খোরশেদা বেগম ৯০ টাকা দেন। ১০ টাকা কম দেওয়া নিয়ে সুমির সঙ্গে খোরশেদা এবং জহুরার তর্কাতর্কি হয়।

ঘটনার একপর্যায়ে সুমির বোন ছকিনা আক্তার, সেলিনা আক্তার ও বোন জামাই জলিল মিলে জহুরা বেগমকে বেধড়ক মারধর করলে জহুরা পালিয়ে তার বাবার ঘরের সামনে আশ্রয় নেয়।

পরে আবার তার চাচাত বোন জামাই জলিল, সেখানে গিয়ে জহুরার তলপেটে লাথি মারলে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন।

স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে নাথেরপেটুয়ার বেসরকারি হাসপাতাল ভূঁইয়া মেডিকেলে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক জহুরাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ বিষয়ে নাঙ্গলকোট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুন নূর বলেন, লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের পিতা মফিজুর রহমান ৪ জনকে আসামি করে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

১০ টাকার জন্য চাচাতো বোনকে হত্যা

 নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা) প্রতিনিধি 
১৩ আগস্ট ২০২১, ১০:৪৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় গ্রেফতার সুমি আক্তার ও সেলিনা আক্তার
হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় গ্রেফতার সুমি আক্তার ও সেলিনা আক্তার। ছবি: যুগান্তর

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে কাপড় সেলাইয়ের ১০ টাকা কম দেওয়ার জেরে জহুরা বেগম নামে একজনকে হত্যার ঘটনা ঘটেছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উপজেলার আদ্রা দক্ষিণ পাড়া গ্রামের সৈয়দ আলী ভূঁইয়া বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পুলিশ ২ নারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

নিহত জহুরা আদ্রা দক্ষিণ পাড়া গ্রামের মফিজুর রহমানের মেয়ে এবং মনোহরগঞ্জ উপজেলার লক্ষনপুর ইউনিয়নের মরিচা গ্রামের সাইফুলের স্ত্রী।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, দক্ষিণ পাড়া গ্রামের সফিকুর রহমানের মেয়ে সুমি আক্তার (২৬) ও সেলিনা আক্তার (২৮)। তাদেরকে শুক্রবার আদালতের মাধ্যমে কারগারে পাঠানো হয়েছে।

স্থানীয় ও মামলা সূত্রে জানা যায়, কয়েকদিন পূর্বে জহুরা বেগমের বোন খোরশেদা বেগম একটি থ্রি-পিস সেলাইয়ের জন্য চাচাতো বোন সুমির নিকট দেয়।

ওইদিন সন্ধ্যায় জহুরা এবং খোরশেদা সুমির কাছ থেকে থ্রি-পিস আনতে যায়। এ সময় সুমি ১০০ টাকা দাবি করলে খোরশেদা বেগম ৯০ টাকা দেন। ১০ টাকা কম দেওয়া নিয়ে সুমির সঙ্গে খোরশেদা এবং জহুরার তর্কাতর্কি হয়।

ঘটনার একপর্যায়ে সুমির বোন ছকিনা আক্তার, সেলিনা আক্তার ও বোন জামাই জলিল মিলে জহুরা বেগমকে বেধড়ক মারধর করলে জহুরা পালিয়ে তার বাবার ঘরের সামনে আশ্রয় নেয়।

পরে আবার তার চাচাত বোন জামাই জলিল, সেখানে গিয়ে জহুরার তলপেটে লাথি মারলে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন।

স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে নাথেরপেটুয়ার বেসরকারি হাসপাতাল ভূঁইয়া মেডিকেলে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক জহুরাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ বিষয়ে নাঙ্গলকোট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুন নূর বলেন, লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের পিতা মফিজুর রহমান ৪ জনকে আসামি করে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন