বঙ্গবন্ধু হত্যার ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজে বের করার দাবি তোফায়েল আহমেদের
jugantor
বঙ্গবন্ধু হত্যার ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজে বের করার দাবি তোফায়েল আহমেদের

  ভোলা প্রতিনিধি  

১৫ আগস্ট ২০২১, ১৯:২৩:৪৪  |  অনলাইন সংস্করণ

আওয়ামী লীগ উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য সাবেক মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, বঙ্গবন্ধুকে দেশি ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের মধ্য দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এর সঙ্গে জড়িত খুনি ফারুক, মোস্তাক রশিদসহ স্বাধীনতার পরাজিত শক্তিরা। জিয়াউর রহমান ওই ষড়যন্ত্রে ছিলেন বলেই বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী ও স্বাধীনতার বিরোধীদের পুনর্বাসনের দায়িত্ব নেয়। ওরা বাংলাদেশকে ফের পাকিস্তান বানাতে চেয়েছিল। কমিশন গঠন করে, কারা কারা ওই ষড়যন্ত্রে জড়িত ছিল, তাদের খুঁজে বের করতে হবে।

রোববার জেলা পরিষদ হল রুমে ভোলা জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের আলোচনায় ঢাকা থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে বক্তব্য রাখেন তোফায়েল আহমেদ। এ সময় বিদেশ থাকা বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের দেশে এনে ফাঁসির রায় কার্যক্রম করার দাবি জানার তোফায়েল আহমেদ।

এ সময় বঙ্গবন্ধুর প্রতি তার ঋণ শোধ করার মতো নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, অজপাড়া গায়ের ছেলে এই তোফায়েলকে ডেকে মনোনয়ন দেন বঙ্গবন্ধু। ১৯৭০ সালে বন্যার সময় ভোলায় রিলিফ দিতে এসেও মানুষের কাছে আমার জন্য ভোট চান। স্বাধীনতার পর রাজনৈতিক সচিব হিসেবে দায়িত্ব দিয়েছিলেন। পৃথিবীর বহুদেশ সফরকালে দেখেছি সবার কাছে বঙ্গবন্ধু ছিলেন প্রধান আলোচনার বিষয়। তিনিই ছিলেন আলোচনার কেন্দ্র বিন্দু। লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়েই রাজনীতি করেছেন বঙ্গবন্ধু। তার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যই ছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতা। স্বাধীনতা অর্জনের পর অর্থনৈতিক মুক্তি চেয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন পূরণ করতে দেয়নি ওই ষড়যন্ত্রকারীরা। আজও স্বাধীনতাবিরোধীরা ঘাপটি মেরে আছে বলে তোফায়েল আহমেদ সবাইকে সর্তক করে দেন।

জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি দোস্ত মাহমুদের সভাপতিত্বে এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন- জেলা আওয়ামী লীগের সম্পাদক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল মমিন টুলু, উপজেলা চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. মোশারফ হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগ সহসভাপতি হামিদুল হক বাহালুল, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক জহুরুল ইসলাম নকিব, জেলা যুবলীগ সভাপতি পৌর মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান, জেলা আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক মইনুল হোসেন বিপ্লব, পৌর আওয়ামী লীগ সম্পাদক শাহ আলী নেওয়াজ পলাশ প্রমুখ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অ্যাডভোকেট জুলফিকার আহমেদ, অ্যাডভোকেট সৈয়দ আশরাফ হোসেন লাভু, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক এনামুল হক আরজু, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ইউনুছ প্রমুখ।

এর আগে সকালে দলীয় পতাকা উত্তোলন ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান দলীয় নেতারা। পরে দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

বঙ্গবন্ধু হত্যার ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজে বের করার দাবি তোফায়েল আহমেদের

 ভোলা প্রতিনিধি 
১৫ আগস্ট ২০২১, ০৭:২৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

আওয়ামী লীগ উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য সাবেক মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, বঙ্গবন্ধুকে দেশি ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের মধ্য দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এর সঙ্গে জড়িত খুনি ফারুক, মোস্তাক রশিদসহ স্বাধীনতার পরাজিত শক্তিরা। জিয়াউর রহমান ওই ষড়যন্ত্রে ছিলেন বলেই বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী ও স্বাধীনতার বিরোধীদের পুনর্বাসনের দায়িত্ব নেয়। ওরা বাংলাদেশকে ফের পাকিস্তান বানাতে চেয়েছিল। কমিশন গঠন করে, কারা কারা ওই ষড়যন্ত্রে জড়িত ছিল, তাদের খুঁজে বের করতে হবে।

রোববার জেলা পরিষদ হল রুমে ভোলা জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের আলোচনায় ঢাকা থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে বক্তব্য রাখেন তোফায়েল আহমেদ। এ সময় বিদেশ থাকা বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের দেশে এনে ফাঁসির রায় কার্যক্রম করার দাবি জানার তোফায়েল আহমেদ।

এ সময় বঙ্গবন্ধুর প্রতি তার ঋণ শোধ করার মতো নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, অজপাড়া গায়ের ছেলে এই তোফায়েলকে ডেকে মনোনয়ন দেন বঙ্গবন্ধু। ১৯৭০ সালে বন্যার সময় ভোলায় রিলিফ দিতে এসেও মানুষের কাছে আমার জন্য ভোট চান। স্বাধীনতার পর রাজনৈতিক সচিব হিসেবে দায়িত্ব দিয়েছিলেন। পৃথিবীর বহুদেশ সফরকালে দেখেছি সবার কাছে বঙ্গবন্ধু ছিলেন প্রধান আলোচনার বিষয়। তিনিই ছিলেন আলোচনার কেন্দ্র বিন্দু। লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়েই রাজনীতি করেছেন বঙ্গবন্ধু। তার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যই ছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতা। স্বাধীনতা অর্জনের পর অর্থনৈতিক মুক্তি চেয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন পূরণ করতে দেয়নি ওই ষড়যন্ত্রকারীরা। আজও স্বাধীনতাবিরোধীরা ঘাপটি মেরে আছে বলে তোফায়েল আহমেদ সবাইকে সর্তক করে দেন।

জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি দোস্ত মাহমুদের সভাপতিত্বে এ সময় আরও বক্তব্য রাখেন- জেলা আওয়ামী লীগের সম্পাদক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল মমিন টুলু, উপজেলা চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. মোশারফ হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগ সহসভাপতি হামিদুল হক বাহালুল, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক জহুরুল ইসলাম নকিব, জেলা যুবলীগ সভাপতি পৌর মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান, জেলা আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক মইনুল হোসেন বিপ্লব, পৌর আওয়ামী লীগ সম্পাদক শাহ আলী নেওয়াজ পলাশ প্রমুখ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অ্যাডভোকেট জুলফিকার আহমেদ, অ্যাডভোকেট সৈয়দ আশরাফ হোসেন লাভু, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক এনামুল হক আরজু, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ইউনুছ প্রমুখ।

এর আগে সকালে দলীয় পতাকা উত্তোলন ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান দলীয় নেতারা। পরে দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : অশ্রুঝরা আগস্ট

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন