‘মনে হচ্ছে বাবা বেঁচে আছেন’
jugantor
‘মনে হচ্ছে বাবা বেঁচে আছেন’

  দিনাজপুর প্রতিনিধি  

১৭ আগস্ট ২০২১, ২২:১৫:৪৯  |  অনলাইন সংস্করণ

‘বাবা মারা যাওয়ার পর প্রতিটি মুহূর্তে অনুভব করেছি বাবার অনুপস্থিতি, বাবা না থাকার যে কি কষ্ট তা যেন কোনোভাবেই ভুলতে পারছি না। কিন্তু সেই কষ্ট কিছুটা হলেও আজ লাঘব হয়েছে। এখন মনে হচ্ছে আমার বাবা এখনো বেঁচে আছেন।’

করোনায় মৃত্যুবরণকারী পুলিশ কনস্টেবল নাজমুল ইসলামের ১০ বছর বয়সী কন্যা সানজিদা আক্তার সাথী মঙ্গলবার দুপুরে অশ্রুসিক্ত নয়নে এমনই কথা জানাচ্ছিল বাবার নামে পাঠাগার দেখে।

দিনাজপুরের খানসামা উপজেলার খামার বিষ্ণুগঞ্জ গ্রামের মো. শরিফউদ্দীন মিয়ার বড়ছেলে নাজমুল ইসলাম। নাজমুল ইসলাম ২০০৭ সালে বাংলাদেশ পুলিশে যোগ দেন কনস্টেবল পদে। গত ২০২০ সালের ১৬ অক্টোবর গাইবান্ধা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে কর্মরত থাকা অবস্থায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যান তিনি।

করোনাযোদ্ধা সেই পুলিশ কনস্টেবল নাজমুল ইসলামের স্মৃতি রক্ষার্থে দিনাজপুরের খানসামা থানায় স্থাপন করা হয়েছে ‘পুলিশ কনস্টেবল নাজমুল ইসলাম পাঠাগার’।

খানসামা থানার ওসি শেখ কামাল হোসেনের উদ্যোগে স্থাপন করা হয় এ পাঠাগার। থানার মূল ফটকের পাশেই স্থাপিত এ পাঠাগারের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয় মঙ্গলবার দুপুরে।

এ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- নাজমুল ইসলামের বাবা মো. শরিফউদ্দীন মিয়া, মা নুরনেহার বেগম, স্ত্রী শারমীন আক্তার লাভলী, ১০ বছরের কন্যা সানজিদা আক্তার সাথী ও ৪ বছর বয়সী পুত্র শোয়েব জামাল। এ সময় নাজমুল ইসলামের নামে পাঠাগার দেখে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন পরিবারের সদস্যরা। ক্ষণিকের জন্য হলেও ভুলে যান নাজমুল ইসলামের অনুপস্থিতি।

এ পাঠাগারের ভার্চুয়ালি উদ্বোধন করেন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী এমপি। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহমেদ মাহবুব-উল-ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বীরগঞ্জ সার্কেল) ওয়ারেস হোসেন, ওসি শেখ কামাল হোসেন, ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মো. মমিনুজ্জামান, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোস্তফা আহমেদ শাহ ও সাধারণ সম্পাদক সফিউল আযম চৌধুরী লায়ন প্রমুখ।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্থানীয় সাংসদ ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী বলেন, করোনাযোদ্ধা একজন পুলিশ সদস্যকে সম্মান জানিয়ে তার স্মৃতি রক্ষার্থে এ ধরনের একটি উদ্যোগ সত্যিই প্রশংসনীয়। এটিকে একটি ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ হিসেবে আখ্যায়িত করে পাঠাগারে পুস্তক সংখ্যা বাড়ানের সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেন তিনি।

ওসি শেখ কামাল হোসেন বলেন, করোনাযোদ্ধা নাজমুল ইসলাম স্মরণে উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় পাঠাগার নির্মাণ করা হয়েছে। এ পাঠাগার যেন জ্ঞানভিত্তিক মানবিক সমাজ গঠন ও অপরাধ দমনে কার্যকরী ভূমিকা রাখতে পারে- এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

স্বামীর নামে লাইব্রেরি নির্মাণ করায় মরহুম নাজমুল ইসলামের স্ত্রী শারমিন আক্তার লাভলী থানা পুলিশ সদস্যদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

‘মনে হচ্ছে বাবা বেঁচে আছেন’

 দিনাজপুর প্রতিনিধি 
১৭ আগস্ট ২০২১, ১০:১৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

‘বাবা মারা যাওয়ার পর প্রতিটি মুহূর্তে অনুভব করেছি বাবার অনুপস্থিতি, বাবা না থাকার যে কি কষ্ট তা যেন কোনোভাবেই ভুলতে পারছি না। কিন্তু সেই কষ্ট কিছুটা হলেও আজ লাঘব হয়েছে। এখন মনে হচ্ছে আমার বাবা এখনো বেঁচে আছেন।’

করোনায় মৃত্যুবরণকারী পুলিশ কনস্টেবল নাজমুল ইসলামের ১০ বছর বয়সী কন্যা সানজিদা আক্তার সাথী মঙ্গলবার দুপুরে অশ্রুসিক্ত নয়নে এমনই কথা জানাচ্ছিল বাবার নামে পাঠাগার দেখে।

দিনাজপুরের খানসামা উপজেলার খামার বিষ্ণুগঞ্জ গ্রামের মো. শরিফউদ্দীন মিয়ার বড়ছেলে নাজমুল ইসলাম। নাজমুল ইসলাম ২০০৭ সালে বাংলাদেশ পুলিশে যোগ দেন কনস্টেবল পদে। গত ২০২০ সালের ১৬ অক্টোবর গাইবান্ধা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে কর্মরত থাকা অবস্থায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যান তিনি।

করোনাযোদ্ধা সেই পুলিশ কনস্টেবল নাজমুল ইসলামের স্মৃতি রক্ষার্থে দিনাজপুরের খানসামা থানায় স্থাপন করা হয়েছে ‘পুলিশ কনস্টেবল নাজমুল ইসলাম পাঠাগার’।

খানসামা থানার ওসি শেখ কামাল হোসেনের উদ্যোগে স্থাপন করা হয় এ পাঠাগার। থানার মূল ফটকের পাশেই স্থাপিত এ পাঠাগারের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয় মঙ্গলবার দুপুরে।

এ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- নাজমুল ইসলামের বাবা মো. শরিফউদ্দীন মিয়া, মা নুরনেহার বেগম, স্ত্রী শারমীন আক্তার লাভলী, ১০ বছরের কন্যা সানজিদা আক্তার সাথী ও ৪ বছর বয়সী পুত্র শোয়েব জামাল। এ সময় নাজমুল ইসলামের নামে পাঠাগার দেখে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন পরিবারের সদস্যরা। ক্ষণিকের জন্য হলেও ভুলে যান নাজমুল ইসলামের অনুপস্থিতি।
 
এ পাঠাগারের ভার্চুয়ালি উদ্বোধন করেন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী এমপি। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহমেদ মাহবুব-উল-ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বীরগঞ্জ সার্কেল) ওয়ারেস হোসেন, ওসি শেখ কামাল হোসেন, ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মো. মমিনুজ্জামান, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোস্তফা আহমেদ শাহ ও সাধারণ সম্পাদক সফিউল আযম চৌধুরী লায়ন প্রমুখ।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্থানীয় সাংসদ ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী বলেন, করোনাযোদ্ধা একজন পুলিশ সদস্যকে সম্মান জানিয়ে তার স্মৃতি রক্ষার্থে এ ধরনের একটি উদ্যোগ সত্যিই প্রশংসনীয়। এটিকে একটি ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ হিসেবে আখ্যায়িত করে পাঠাগারে পুস্তক সংখ্যা বাড়ানের সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস দেন তিনি।
 
ওসি শেখ কামাল হোসেন বলেন, করোনাযোদ্ধা নাজমুল ইসলাম স্মরণে উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় পাঠাগার নির্মাণ করা হয়েছে। এ পাঠাগার যেন জ্ঞানভিত্তিক মানবিক সমাজ গঠন ও অপরাধ দমনে কার্যকরী ভূমিকা রাখতে পারে- এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

স্বামীর নামে লাইব্রেরি নির্মাণ করায় মরহুম নাজমুল ইসলামের স্ত্রী শারমিন আক্তার লাভলী থানা পুলিশ সদস্যদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন