বিয়ের দাবিতে ২৫ দিন ধরে প্রেমিকের বাড়িতে অবস্থান!
jugantor
বিয়ের দাবিতে ২৫ দিন ধরে প্রেমিকের বাড়িতে অবস্থান!

  সুজানগর (পাবনা) প্রতিনিধি   

১৮ আগস্ট ২০২১, ১৮:৫৮:৩৪  |  অনলাইন সংস্করণ

পাবনার সুজানগর উপজেলার দুলাই ইউনিয়নের আন্ধারকোঠা গ্রামে বিয়ের দাবিতে ২৫ দিন যাবত প্রেমিক মো. শাহীন হোসেনের বাড়িতে অবস্থান করছেন এক কলেজছাত্রী। প্রেমিক শাহীন হোসেন ওই গ্রামের মৃত আব্দুস শুকুরের ছেলে এবং গাজীপুরের একটি কোম্পানিতে চাকরি করেন।

প্রেমিকা রাশিদা খাতুন ভবানীপুর গ্রামের আব্দুস সামাদ শেখের মেয়ে এবং স্থানীয় দুলাই সরকারি জহুরুল কামাল কলেজের ডিগ্রি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী। এদিকে বিয়ে না করলে আত্মহত্যার হুমকি দিয়েছেন মেয়েটি।

প্রেমিকা রাশিদা খাতুন বলেন, আড়াই বছর আগে আমাকে বিয়ে করার জন্য দেখতে গিয়ে পছন্দ করেন শাহীন। এ সময় শাহীনের দুলাভাই কাজেম হোসেন তার সঙ্গে ছিলেন। বিয়েতে তারা মোটরসাইকেল দাবি করেন। আমার পরিবার তাতে রাজি হলে ওই মোটরসাইকেলটি দুলাভাই নেবে জানালে বিয়ে ভেঙে যায়। এরপর থেকে শাহীন আমার সঙ্গে ফোনে কথা বলতে থাকে এবং একপর্যায়ে আমাদের দুইজনের মধ্যে গভীর প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হয়।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, শাহীন আমাকে বিয়ে করার কথা বলে বিভিন্ন স্থানে বেড়াতে নিয়ে গিয়ে অন্তরঙ্গ ছবি তোলে। একপর্যায়ে শাহীন আমার সঙ্গে দৈহিক সম্পর্ক করে তা ফোনে ধারণ করে। পরবর্তীতে তার সঙ্গে আমি যেতে রাজি না হলে সে ছবি ও ভিডিও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দেয়। পরে বিয়ের জন্য চাপ দিলে গত ২৩ জুলাই আমাকে বিয়ে করবে বলে শাহীন ও তার দুলাভাই (সুজানগরের বাড়ইপাড়া গ্রামের) কাজেম আমাকে শাহীনের বাড়িতে নিয়ে আসে।

কিন্তু বিয়ে না করে শাহীন বাড়ি থেকে কৌশলে পালিয়ে যায়। আমি তার বাড়িতে খেয়ে না খেয়ে ২৫ দিন অতিবাহিত করছি। আমাকে বিয়ে না করলে আত্মহত্যা করা ছাড়া আমার কোনো উপায় থাকবে না বলে জানান কলেজছাত্রী রাশিদা খাতুন।

প্রেমিক শাহীনের মা শাহিদা খাতুন জানান, ঘটনার পর থেকে আমার ছেলে ফোনে যোগাযোগ করছে না। আমি মেয়েটাকে নিয়ে বিপদে আছি।

এ বিষয়ে সুজানগর থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, বিষয়টি তিনি মৌখিকভাবে জানতে পেরেছেন। তবে এখন পর্যন্ত কোনো পক্ষই লিখিতভাবে থানায় কোনো অভিযোগ দেয়নি।

বিয়ের দাবিতে ২৫ দিন ধরে প্রেমিকের বাড়িতে অবস্থান!

 সুজানগর (পাবনা) প্রতিনিধি  
১৮ আগস্ট ২০২১, ০৬:৫৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পাবনার সুজানগর উপজেলার দুলাই ইউনিয়নের আন্ধারকোঠা গ্রামে বিয়ের দাবিতে ২৫ দিন যাবত প্রেমিক মো. শাহীন হোসেনের বাড়িতে অবস্থান করছেন  এক কলেজছাত্রী। প্রেমিক শাহীন হোসেন ওই গ্রামের মৃত আব্দুস শুকুরের ছেলে এবং গাজীপুরের একটি কোম্পানিতে চাকরি করেন।

প্রেমিকা রাশিদা খাতুন ভবানীপুর গ্রামের আব্দুস সামাদ শেখের মেয়ে এবং স্থানীয় দুলাই সরকারি জহুরুল কামাল কলেজের ডিগ্রি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী। এদিকে বিয়ে না করলে আত্মহত্যার হুমকি দিয়েছেন মেয়েটি। 

প্রেমিকা রাশিদা খাতুন বলেন, আড়াই বছর আগে আমাকে বিয়ে করার জন্য দেখতে গিয়ে পছন্দ করেন শাহীন। এ সময় শাহীনের দুলাভাই কাজেম হোসেন তার সঙ্গে ছিলেন। বিয়েতে তারা মোটরসাইকেল দাবি করেন। আমার পরিবার তাতে রাজি হলে ওই মোটরসাইকেলটি দুলাভাই নেবে জানালে বিয়ে ভেঙে যায়। এরপর থেকে শাহীন আমার সঙ্গে ফোনে কথা বলতে থাকে এবং একপর্যায়ে আমাদের দুইজনের মধ্যে গভীর প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হয়। 

তিনি অভিযোগ করে বলেন, শাহীন আমাকে বিয়ে করার কথা বলে বিভিন্ন স্থানে বেড়াতে নিয়ে গিয়ে অন্তরঙ্গ ছবি তোলে। একপর্যায়ে শাহীন আমার সঙ্গে দৈহিক সম্পর্ক করে তা ফোনে ধারণ করে। পরবর্তীতে তার সঙ্গে আমি যেতে রাজি না হলে সে ছবি ও ভিডিও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দেয়। পরে বিয়ের জন্য চাপ দিলে গত ২৩ জুলাই আমাকে বিয়ে করবে বলে শাহীন ও তার দুলাভাই (সুজানগরের বাড়ইপাড়া গ্রামের) কাজেম আমাকে শাহীনের বাড়িতে  নিয়ে আসে।

কিন্তু বিয়ে না করে শাহীন বাড়ি থেকে কৌশলে পালিয়ে যায়। আমি তার বাড়িতে খেয়ে না খেয়ে ২৫ দিন অতিবাহিত করছি। আমাকে বিয়ে না করলে আত্মহত্যা করা ছাড়া আমার কোনো উপায় থাকবে না বলে জানান কলেজছাত্রী রাশিদা খাতুন।

প্রেমিক শাহীনের মা শাহিদা খাতুন জানান, ঘটনার পর থেকে আমার ছেলে ফোনে যোগাযোগ করছে না। আমি মেয়েটাকে নিয়ে বিপদে আছি। 

এ বিষয়ে সুজানগর থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, বিষয়টি তিনি মৌখিকভাবে জানতে পেরেছেন। তবে এখন পর্যন্ত কোনো পক্ষই লিখিতভাবে থানায় কোনো অভিযোগ দেয়নি। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন