ঢলের পানিতে প্রাণ গেল শিশুর
jugantor
ঢলের পানিতে প্রাণ গেল শিশুর

  ধোবাউড়া (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  

২৬ আগস্ট ২০২১, ১৯:৫৬:০৪  |  অনলাইন সংস্করণ

টানা বর্ষণে ময়মনসিংহের ধোবাউড়ায় উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে আকস্মিক বন্যা দেখা দিয়েছে। উপজেলার ঘোষগাঁও ইউনিয়নের চন্দ্রঘোনা গ্রামে ঢলের পানিতে পড়ে আলমের ছেলে মোজাম্মেল হোসেন নামে তিন বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

ঘোষগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শামসুল হক জানান, বৃহস্পতিবার সকালে বাড়ির পাশে ঢলের পানিতে পড়ে ওই শিশুটির মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে আকস্মিক বন্যায় চলতি আমন ফসলের ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে। বিভিন্ন স্থানে নেতাই নদীর বাঁধ ভেঙে প্রবল স্রোতে পানি প্রবেশ করছে। ঢলের পানিতে প্লাবিত হচ্ছে রোপা আমন। নিম্নাঞ্চলগুলো প্লাবিত হয়ে অনেকে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

বুধবার সন্ধ্যা থেকে মুষলধারে বৃষ্টি শুরু হয়। এতে গামারীতলা ইউনিয়নের কলসিন্দুর এলাকার মুক্তিযোদ্ধা বিল্লাল হোসেনের বাড়ির পাশ দিয়ে নেতাই নদীর বেড়িবাঁধ, দক্ষিণ মাইজপাড়া ইউনিয়নে রহমতের বাজারের পাশের নেতাই নদীর বাঁধ, ঘোষগাঁও ইউনিয়নের রায়পুর এবং ভালুকাপাড়া এলাকায় ভাঙন দিয়ে প্রবল স্রোতে পানি প্রবেশ করছে। ঢলের পানিতে ভেসে যাচ্ছে কৃষকের স্বপ্ন আমন ফসল।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকেও হু-হু করে বাড়ছে পানি। এতে আমন ফসলের ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কায় রয়েছেন কৃষকরা।

গামারীতলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন খান জানান, কলসিন্দুর এবং গৌরীপুরে নেতাই নদীর ভাঙন দিয়ে পানি প্রবেশ করছে। গত জুলাই মাসের শুরুতে পাহাড়ি ঢলে নেতাই নদীর বিভিন্ন স্থানে ভাঙন দেখা দেয়। পরে ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করে বাঁধ নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান ডেভিড রানা চিসিম। কিন্তু পুনরায় পানি প্রবেশ করায় তা সম্ভব হয়নি।

কৃষকদের অভিযোগ, ভাঙন প্রতিরোধে যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণ করা হয় না, তাই বারবার তাদের ফসল তলিয়ে যায় পানির নিচে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সারোয়ার আলম তুষার জানান, চলতি বছর আমন ফসল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ১৩ হাজার ৮২০ হেক্টর। ঢলের পানিতে ক্ষতির আশঙ্কায় রয়েছে ১২০ হেক্টর আমন ফসল।

এ ব্যাপারে ময়মনিসংহ-১ (হালুয়াঘাট-ধোবাউড়া) আসনের সংসদ সদস্য জুয়েল আরেং বলেন, ইতোমধ্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা চেয়ারম্যানকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বলেছি এবং ভাঙন প্রতিরোধে যথাযথ উদ্যোগ নিতে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

ঢলের পানিতে প্রাণ গেল শিশুর

 ধোবাউড়া (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি 
২৬ আগস্ট ২০২১, ০৭:৫৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

টানা বর্ষণে ময়মনসিংহের ধোবাউড়ায় উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে আকস্মিক বন্যা দেখা দিয়েছে। উপজেলার ঘোষগাঁও ইউনিয়নের চন্দ্রঘোনা গ্রামে ঢলের পানিতে পড়ে আলমের ছেলে মোজাম্মেল হোসেন নামে তিন বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

ঘোষগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শামসুল হক জানান, বৃহস্পতিবার সকালে বাড়ির পাশে ঢলের পানিতে পড়ে ওই শিশুটির মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে আকস্মিক বন্যায় চলতি আমন  ফসলের ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে। বিভিন্ন স্থানে নেতাই নদীর বাঁধ ভেঙে প্রবল স্রোতে পানি প্রবেশ করছে। ঢলের পানিতে প্লাবিত হচ্ছে রোপা আমন। নিম্নাঞ্চলগুলো প্লাবিত হয়ে অনেকে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

বুধবার সন্ধ্যা থেকে মুষলধারে বৃষ্টি শুরু হয়। এতে গামারীতলা ইউনিয়নের কলসিন্দুর এলাকার মুক্তিযোদ্ধা বিল্লাল হোসেনের বাড়ির পাশ দিয়ে নেতাই নদীর বেড়িবাঁধ, দক্ষিণ মাইজপাড়া ইউনিয়নে রহমতের বাজারের পাশের নেতাই নদীর বাঁধ, ঘোষগাঁও ইউনিয়নের রায়পুর এবং ভালুকাপাড়া এলাকায় ভাঙন দিয়ে প্রবল স্রোতে পানি প্রবেশ করছে। ঢলের পানিতে ভেসে যাচ্ছে কৃষকের স্বপ্ন আমন ফসল।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকেও হু-হু করে বাড়ছে পানি। এতে আমন ফসলের ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কায় রয়েছেন কৃষকরা।

গামারীতলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন খান জানান, কলসিন্দুর এবং গৌরীপুরে নেতাই নদীর ভাঙন দিয়ে পানি প্রবেশ করছে। গত জুলাই মাসের শুরুতে পাহাড়ি ঢলে নেতাই নদীর বিভিন্ন স্থানে ভাঙন দেখা দেয়। পরে ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করে বাঁধ নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান ডেভিড রানা চিসিম। কিন্তু পুনরায় পানি প্রবেশ করায় তা সম্ভব হয়নি।

কৃষকদের অভিযোগ, ভাঙন প্রতিরোধে যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণ করা হয় না, তাই বারবার তাদের ফসল তলিয়ে যায় পানির নিচে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সারোয়ার আলম তুষার জানান, চলতি বছর আমন ফসল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ১৩ হাজার ৮২০ হেক্টর। ঢলের পানিতে ক্ষতির আশঙ্কায় রয়েছে ১২০ হেক্টর আমন ফসল।

এ ব্যাপারে ময়মনিসংহ-১ (হালুয়াঘাট-ধোবাউড়া) আসনের সংসদ সদস্য জুয়েল আরেং বলেন, ইতোমধ্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা চেয়ারম্যানকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বলেছি এবং ভাঙন প্রতিরোধে যথাযথ উদ্যোগ নিতে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন