গলায় লুঙ্গি পেঁচিয়ে ভিক্ষুককে খুন
jugantor
গলায় লুঙ্গি পেঁচিয়ে ভিক্ষুককে খুন

  বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি  

২৯ আগস্ট ২০২১, ১৭:৪৪:৪৩  |  অনলাইন সংস্করণ

দিনাজপুরের বিরামপুরে নিজের পরনের লুঙ্গি গলায় পেঁচিয়ে বাবলু রায় (৪২) নামের এক ভিক্ষুককে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। রোববার দুপুরে বিরামপুর উপজেলায় কেটরা ইউনিয়নের পাথহার এলাকা থেকে ওই ভিক্ষুকের লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহত বাবলু রায় ওই এলাকার দেউল গ্রামের অমূল্য রায়ের ছেলে। বিরামপুর থানার ওসি সুমন কুমার মহন্ত বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয় জোতবানী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক জানান, বাবলু দীর্ঘ দিন থেকে ভিক্ষা বৃত্তি করে চলে। প্রতিদিনই বাজারের সবজি কুড়িয়ে বাড়ি চলে যান। বাবলুর বাড়িতে মা, বাবা ও স্বামী পরিত্যক্তা এক বোন আছে। তার স্ত্রী ১০ বছর আগে বাড়ি ছেড়ে চলে যায়। তখন থেকে সে ভিক্ষা করে চলে।

নিহতের স্বজনদের বরাত দিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আরও জানান, শনিবার সন্ধ্যায় নিজ বাড়ি থেকে বাজারের উদ্দেশ্যে রওনা হন। এরপর রাতে তিনি বাড়িতে ফিরে আসেনি। রোববার দুপুরে পাথহার এলাকায় রাস্তার পাশে একটি ঘাসের জমির পাশে লাশ দেখে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। পরে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে।

বিরামপুর থানার ওসি সুমন কুমার মহন্ত বলেন, স্থানীয়দের খবরে নিহত বাবলু চন্দ্রের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে এটি একটি হত্যাকাণ্ড। ওই ব্যক্তির পরনের লুঙ্গি গলায় পেঁচিয়ে তাকে হত্যা করা হয়েছে। লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

গলায় লুঙ্গি পেঁচিয়ে ভিক্ষুককে খুন

 বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি 
২৯ আগস্ট ২০২১, ০৫:৪৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দিনাজপুরের বিরামপুরে নিজের পরনের লুঙ্গি গলায় পেঁচিয়ে বাবলু রায় (৪২) নামের এক ভিক্ষুককে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। রোববার দুপুরে বিরামপুর উপজেলায় কেটরা ইউনিয়নের পাথহার এলাকা থেকে ওই ভিক্ষুকের লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহত বাবলু রায় ওই এলাকার দেউল গ্রামের অমূল্য রায়ের ছেলে। বিরামপুর থানার ওসি সুমন কুমার মহন্ত বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয় জোতবানী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক জানান, বাবলু দীর্ঘ দিন থেকে ভিক্ষা বৃত্তি করে চলে। প্রতিদিনই বাজারের সবজি কুড়িয়ে বাড়ি চলে যান। বাবলুর বাড়িতে মা, বাবা ও স্বামী পরিত্যক্তা এক বোন আছে। তার স্ত্রী ১০ বছর আগে বাড়ি ছেড়ে চলে যায়। তখন থেকে সে ভিক্ষা করে চলে।

নিহতের স্বজনদের বরাত দিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আরও জানান, শনিবার সন্ধ্যায় নিজ বাড়ি থেকে বাজারের উদ্দেশ্যে রওনা হন। এরপর রাতে তিনি বাড়িতে ফিরে আসেনি। রোববার দুপুরে পাথহার এলাকায় রাস্তার পাশে একটি ঘাসের জমির পাশে লাশ দেখে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। পরে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে।

বিরামপুর থানার ওসি সুমন কুমার মহন্ত বলেন, স্থানীয়দের খবরে নিহত বাবলু চন্দ্রের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে এটি একটি হত্যাকাণ্ড। ওই ব্যক্তির পরনের লুঙ্গি গলায় পেঁচিয়ে তাকে হত্যা করা হয়েছে। লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন