পরিত্যক্ত ভিটায় মিলল পুঁতে রাখা বস্তাবন্দি শিশুর লাশ
jugantor
পরিত্যক্ত ভিটায় মিলল পুঁতে রাখা বস্তাবন্দি শিশুর লাশ

  সিংগাইর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি  

৩১ আগস্ট ২০২১, ১৫:০৭:৫৬  |  অনলাইন সংস্করণ

আল-আমিন

মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলায় পরিত্যক্ত ভিটা থেকে মাটিতে পুঁতে রাখা বস্তাবন্দি নিখোঁজ এক শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতের নাম আল-আমিন (৭)।

মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার বলধারা ইউনিয়নের বেরুন্ডি চকের টেমা মিয়ার পরিত্যক্ত ভিটার বাঁশঝাড়ের গর্তের মধ্য থেকে ওই শিশুর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত আল-আমিন ওই এলাকার বড়বাকা গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, টেমামিয়ার ভিটায় সাপের একাধিক বসবাস; তাই লোকজন ভয়ে কেউ ওখানে যায় না।

থানা পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, আল-আমিন গত শনিবার সকাল ৯টার দিকে বাইসাইকেল নিয়ে খেলতে বের হয়। এর পর থেকে নিখোঁজ হয়। সারা দিন বাড়িতে না ফিরলে বিভিন্ন স্থানে ও আত্মীয়স্বজনদের বাড়িতে খোঁজ করেন পরিবারের লোকজন।

পর দিন রোববার সকালে সিংগাইর থানা একটি জিডি করা হয়। পরে পুলিশ জিডির সূত্র ধরে বিভিন্ন জায়গা খোঁজাখুঁজির সন্ধানে নামে। একপর্যায় মঙ্গলবার সকাল ১০টা দিকে পরিবারের লোকজন বেরুন্ডি এলাকার টেমা মিয়ার পরিত্যক্ত ভিটার বাঁশঝাড়ে নিহতের গেঞ্জি ও প্যান্ট দেখতে পায়।
পরে আশপাশে মাটিতে পুঁতে রাখা তার বস্তাবন্দি লাশ দেখতে পায়। পরে থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মানিকগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সিংগাইর থানায় হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে।

এ ব্যাপারে সহকারী পুলিশ সুপার (সিংগাইর সার্কেল) মোহা. রেজাউল হক যুগান্তরকে জানান, দুষ্কৃতকারীরা পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে লাশ গুম করার উদ্দেশ্য এখানে পুঁতে রেখেছিল। এ ঘটনায় যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

পরিত্যক্ত ভিটায় মিলল পুঁতে রাখা বস্তাবন্দি শিশুর লাশ

 সিংগাইর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি 
৩১ আগস্ট ২০২১, ০৩:০৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
আল-আমিন
আল-আমিন। ছবি: যুগান্তর

মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলায় পরিত্যক্ত ভিটা থেকে মাটিতে পুঁতে রাখা বস্তাবন্দি নিখোঁজ এক শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতের নাম আল-আমিন (৭)।

মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার বলধারা ইউনিয়নের বেরুন্ডি চকের টেমা মিয়ার পরিত্যক্ত ভিটার বাঁশঝাড়ের গর্তের মধ্য থেকে ওই শিশুর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত আল-আমিন ওই এলাকার বড়বাকা গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, টেমামিয়ার ভিটায় সাপের একাধিক বসবাস; তাই লোকজন ভয়ে কেউ ওখানে যায় না।

থানা পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, আল-আমিন গত শনিবার সকাল ৯টার দিকে বাইসাইকেল নিয়ে খেলতে বের হয়। এর পর থেকে নিখোঁজ হয়। সারা দিন বাড়িতে না ফিরলে বিভিন্ন স্থানে ও আত্মীয়স্বজনদের বাড়িতে খোঁজ করেন পরিবারের লোকজন।

পর দিন রোববার সকালে সিংগাইর থানা একটি জিডি করা হয়। পরে পুলিশ জিডির সূত্র ধরে বিভিন্ন জায়গা খোঁজাখুঁজির সন্ধানে নামে। একপর্যায় মঙ্গলবার সকাল ১০টা দিকে পরিবারের লোকজন বেরুন্ডি এলাকার টেমা মিয়ার পরিত্যক্ত ভিটার বাঁশঝাড়ে নিহতের গেঞ্জি ও প্যান্ট দেখতে পায়।
পরে আশপাশে মাটিতে পুঁতে রাখা তার বস্তাবন্দি লাশ দেখতে পায়। পরে থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মানিকগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত  সিংগাইর থানায় হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে।

এ ব্যাপারে সহকারী পুলিশ সুপার (সিংগাইর সার্কেল) মোহা. রেজাউল হক যুগান্তরকে জানান, দুষ্কৃতকারীরা পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে লাশ গুম করার উদ্দেশ্য এখানে পুঁতে রেখেছিল। এ ঘটনায় যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন