কলেজছাত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় পুলিশ সদস্য, মামলা
jugantor
কলেজছাত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় পুলিশ সদস্য, মামলা

  গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  

০১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:১৩:২৯  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহের গৌরীপুরে স্নাতক পড়ুয়া এক কলেজছাত্রীর (২১) সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় জনতার হাতে ধরা পড়ার পর ধর্ষণের অভিযোগে মো. রানা (৩০) নামে এক পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। মঙ্গলবার ভুক্তভোগী কলেজছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে গৌরীপুর থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

অভিযুক্ত পুলিশ সদস্য উপজেলার অচিন্তপুর ইউনিয়নের খালিয়াজুরী গ্রামের মজনু মিয়ার ছেলে। তিনি নরসিংদীর পলাশ থানায় কনস্টেবল পদে কর্মরত।

ভুক্তভোগী পরিবার ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, পুলিশ সদস্য মো. রানা ওই কলেজছাত্রীর বড় ভাইয়ের বন্ধু। বন্ধুত্বের সুবাদে বাড়িতে আসা-যাওয়া করতে গিয়ে ওই কলেজছাত্রীর সঙ্গে রানার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। গত শুক্রবার রাতে বাড়িতে একা পেয়ে কলেজছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করে রানা। এ ঘটনার পর কলেজছাত্রীর মা বাড়িতে এসে রানাকে দেখতে পেয়ে রাতের বেলায় তাকে বাড়িতে আসতে নিষেধ করেন।

পর দিন শনিবার রাতে রানা মোবাইলে যোগাযোগ করে ওই কলেজছাত্রীকে বাড়ির পাশে একটি নার্সারিতে নিয়ে ধর্ষণ করে। এ সময় স্থানীয়রা তাদের আপত্তিকর অবস্থায় আটক করলে রানা কৌশলে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় কলেজছাত্রী খালিয়াজুরী গ্রামে রানার বাড়িতে এসে অবস্থান নিয়ে বিয়ের দাবিতে অনশন শুরু করেন। কিন্তু রানার পরিবার ওই বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে। পরে কলেজছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে গৌরীপুর থানায় মামলা দায়ের করেন।

ভুক্তভোগী কলেজছাত্রী সাংবাদিকদের বলেন, তিন বছর ধরে রানার সঙ্গে আমার প্রেমের সম্পর্ক। বিয়ের প্রলোভনে সে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেছে। আমি এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পুলিশ সদস্য রানা বলেন, শুনেছি আমার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। আইনের মাধ্যমে প্রমাণ হবে কে নির্দোষ ও কে দোষী। এ মুহূর্তে এই বিষয়ে আর কোনো মন্তব্য করতে চাচ্ছি না।

গৌরীপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ভিকটিমকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। পুলিশ মামলাটি তদন্ত করছে। অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যের বিষয়ে থানায় বার্তা পাঠানো হয়েছে।

কলেজছাত্রীর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় পুলিশ সদস্য, মামলা

 গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি 
০১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:১৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহের গৌরীপুরে স্নাতক পড়ুয়া এক কলেজছাত্রীর (২১) সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় জনতার হাতে ধরা পড়ার পর ধর্ষণের অভিযোগে মো. রানা (৩০) নামে এক পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। মঙ্গলবার ভুক্তভোগী কলেজছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে গৌরীপুর থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

অভিযুক্ত পুলিশ সদস্য উপজেলার অচিন্তপুর ইউনিয়নের খালিয়াজুরী গ্রামের মজনু মিয়ার ছেলে। তিনি নরসিংদীর পলাশ থানায় কনস্টেবল পদে কর্মরত।

ভুক্তভোগী পরিবার ও মামলা সূত্রে জানা গেছে, পুলিশ সদস্য মো. রানা ওই কলেজছাত্রীর বড় ভাইয়ের বন্ধু। বন্ধুত্বের সুবাদে বাড়িতে আসা-যাওয়া করতে গিয়ে ওই কলেজছাত্রীর সঙ্গে রানার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। গত শুক্রবার রাতে বাড়িতে একা পেয়ে কলেজছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করে রানা। এ ঘটনার পর কলেজছাত্রীর মা বাড়িতে এসে রানাকে দেখতে পেয়ে রাতের বেলায় তাকে বাড়িতে আসতে নিষেধ করেন।

পর দিন শনিবার রাতে রানা মোবাইলে যোগাযোগ করে ওই কলেজছাত্রীকে বাড়ির পাশে একটি নার্সারিতে নিয়ে ধর্ষণ করে। এ সময় স্থানীয়রা তাদের আপত্তিকর অবস্থায় আটক করলে রানা কৌশলে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় কলেজছাত্রী খালিয়াজুরী গ্রামে রানার বাড়িতে এসে অবস্থান নিয়ে বিয়ের দাবিতে অনশন শুরু করেন। কিন্তু রানার পরিবার ওই বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে। পরে কলেজছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে গৌরীপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। 

ভুক্তভোগী কলেজছাত্রী সাংবাদিকদের বলেন, তিন বছর ধরে রানার সঙ্গে আমার প্রেমের সম্পর্ক। বিয়ের প্রলোভনে সে একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেছে। আমি এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চাই।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পুলিশ সদস্য রানা বলেন, শুনেছি আমার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। আইনের মাধ্যমে প্রমাণ হবে কে নির্দোষ ও কে দোষী। এ মুহূর্তে এই বিষয়ে আর কোনো মন্তব্য করতে চাচ্ছি না।

গৌরীপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ভিকটিমকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। পুলিশ মামলাটি তদন্ত করছে। অভিযুক্ত পুলিশ সদস্যের বিষয়ে থানায় বার্তা পাঠানো হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন