পরীক্ষায় ফেল করে রংপুরে ১৩ শিক্ষার্থীর কাণ্ড, ২ জনের মৃত্যু

  রংপুর ব্যুরো ০৭ মে ২০১৮, ১৭:৫০ | অনলাইন সংস্করণ

রংপুর

মাধ্যমিক পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়ায় রংপুরে এ পর্যন্ত ১৩ জন শিক্ষার্থী বিষপানে ও গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে। এদের মধ্যে ২ জনের মৃত্যু হয়ছে। বাকি ১১ জন রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

সর্বশেষ সোমবার নগরীর মাহিগঞ্জ এলাকার চেতনা রানী বিশ্বাস (১৬) বিষপানে মৃত্যুবরণ করে। এছাড়াও আরও ১১ ছাত্রী বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করলে তাদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রমেক) ভর্তি করা হয়েছে।

চিকিৎসকরা বলছেন, এদের মধ্যে ৪ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এর আগে রোববার সদর উপজেলার হরিদেবপুর ইউনিয়নের রোকেয়া বেগম নামে এসএসসি পরীক্ষার্থী বিষপানে আত্মহত্যা করে।

রোববার ফল ঘোষণার পর রোকায়া বেগম তার বাড়িতে বিষপান করলে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে বিকালে সে মারা যায়।

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসক তাবাসুম তমি জানান, এসএসসি পরীক্ষার ফল ঘোষণার পর রংপুরের বিভিন্ন এলাকার এসব শিক্ষার্থী তাদের নিজ বাড়িতে বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। তাদের আমরা আমাদের সাধ্যমতো চিকিৎসাসেবা দিয়ে যাচ্ছি। যারা আত্মহত্যার চেষ্টা চালিয়েছেন তাদের মধ্যে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিকালে রোকেয়া বেগম নামে এক শিক্ষার্থীর মৃত্যুবরণ করে। সে রংপুর সদর উপজেলার হরিদেবপুর ইউনিয়নের আজাহারুল ইসলামের একমাত্র মেয়ে।

এছাড়া সোমবার চেতনা রানী বিশ্বাস (১৬) বিষপান করলে তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করলে সেখানে তার মৃত্যু হয়। চেতনা নগরীর মাহিগঞ্জ এলাকার বাবু বিশ্বসাসের মেয়ে। এদিকে বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টাকালে আরও তিনজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

চেতনার বাবা বাবু বিশ্বাস জানান, মাধ্যমিক পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়ায় সোমবার সকালে কোনো একসময় পরিবারের সদস্যদের অগোচরে চেতনা বিষপান করে। তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

এছাড়া সোমবার সকালে আরও তিনজনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এরা হলেন, নগরীর ষড়েয়ারতল এলাকার নির্মল চন্দ্রের মেয়ে সাধনা রানী, গংগাচড়া বেতগাড়ি এলাকার সহিদুলের ছেলে শাহাবুল (১৬) ও লালমনিরহাট জেলার হাতিবান্ধা উপজেলার বড়খাতা গ্রামের আব্দুল আজিজের ছেলে জিম আজিজ (১৬)।

হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসক আলী হাসান জানন, সবার অবস্থা আশঙ্কাজনক। এ নিয়ে গত দুই দিনে দুই পরীক্ষার্থীর আত্মহত্যার ঘটনা ঘটল। বর্তমানে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১১ জন ভর্তি আছেন। তারা সবাই পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়ার পর বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন।

এর আগে রোববার বিষপান করায় যাদের আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তারা হলেন, নগরীর উত্তম বখতিয়ার পুর হাজিরহাট এলাকার শহিদুল ইসলাম মিন্টুর মেয়ে খাদিজা, দেওডোবা ডাঙ্গীরপার এলাকার রইচ উদ্দিনের মেয়ে শারমিন, গঙ্গাচড়া উপজেলার বেতগাড়ি এলাকার তাইজিরুল ইসলামের মেয়ে তানজিনা, নগরীর তাজহাট মোল্লাপাড়া এলাকার গণেশ রায়ের মেয়ে শিবা রানী, পীরগাছা চৌধুরানী এলাকার আব্দুস সালামের মেয়ে সমাপ্তি শহরের সেনপাড়া এলাকার অলক রায়ের মেয়ে প্রীতি রায়, নগরীর খেড়বাড়ি এলাকার বকুলের মেয়ে তাহেরা এবং পাকারমাথা এলাকার মঞ্জু মিয়ার মেয়ে লিলি আক্তার রমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এদের মধ্যে সমাপ্তি ফাঁস দিয়ে এবং অন্যরা বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। চিকিৎসক তাবাসুম জানান, তিনি তার চাকরিজীবনে একসঙ্গে এতগুলো আত্মহত্যার রোগী দেখেন নাই।

ঘটনাপ্রবাহ : এসএসসি-১৮

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter