খেলার সময় সাড়ে ৩ বছরের শিশুকে ধর্ষণ
jugantor
খেলার সময় সাড়ে ৩ বছরের শিশুকে ধর্ষণ

  মদন (নেত্রকোণা) প্রতিনিধি  

০৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:০০:৫৯  |  অনলাইন সংস্করণ

ধর্ষণ

নেত্রকোনার মদন উপজেলায় খেলার কথা বলে ডেকে নিয়ে তিন বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনা আসাদুল (১৩) নামে এক শিশুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় অভিযুক্ত আসাদুলসহ চারজনের বিরুদ্ধে ওই শিশুটির মা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। গেফতার আসাদুলকে রাতেই নেত্রকোনার জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

এর আগে দুপুরে পৌরসভার জাহাঙ্গীরপুর ৭নং ওয়ার্ডে আদর্শ কারিগরি ও বাণিজ্য কলেজের পেছনে এ ঘটনা ঘটে। শিশুটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ভিকটিমের বাবা অভিযুক্ত পরিবারের কাছে বিচার প্রার্থী হলে তাকেও তারা মারপিট করে এমন অভিযোগও রয়েছে।

অভিযুক্ত কিশোর আসাদুল জাহাঙ্গীরপুর ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণির ছাত্র ও একই ওয়ার্ডের দিনমজুর রফিকুল ইসলামের ছেলে। তবে অভিযুক্ত কিশোর এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

ভিকটিমের বাবা বলেন, আমার মেয়েটিকে আসাদুল কলেজের পেছনে খেলার কথা বলে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে শিশুটি অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকলে অন্য শিশুদের চিৎকারে তাকে উদ্ধার করে মদন হাসপাতালে নিয়ে আসি। শিশুটিকে নেত্রকোনায় ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য বলেছেন।

আমি এ কথা আসাদুলের বাবা রফিকুলকে জানাতে গেলে সে ও তার ছেলে আমাকে মারপিট করে। এ ব্যাপারে থানায় আমার স্ত্রী চারজনকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই।

তবে গ্রেফতারের আগে অভিযুক্ত কিশোর আসাদুল বলে, আমি এ বিষয়ে কিছুই জানি না। আমাকে তারা ফাঁসাচ্ছে।

কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. সুর্বনা ইয়াসমিন বলেন, শিশুটির মায়ের কাছে হিস্টরি শুনেছি। আলামত যেন নষ্ট না হয় তাই শিশুটিকে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করেছি।

মদন থানার ওসি ফেরদৌস আলম জানান, এ ব্যাপারে শিশুটির মা কিশোর আসাদুলসহ চারজনকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় কিশোরকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। তাকে রাতেই নেত্রকোনার জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। শিশুটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নেত্রকোনার আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মামলাটির তদন্ত চলছে।

খেলার সময় সাড়ে ৩ বছরের শিশুকে ধর্ষণ

 মদন (নেত্রকোণা) প্রতিনিধি 
০৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:০০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ধর্ষণ
ফাইল ছবি

নেত্রকোনার মদন উপজেলায় খেলার কথা বলে ডেকে নিয়ে তিন বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনা আসাদুল (১৩) নামে এক শিশুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় অভিযুক্ত আসাদুলসহ চারজনের বিরুদ্ধে ওই শিশুটির মা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। গেফতার আসাদুলকে রাতেই নেত্রকোনার জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

এর আগে দুপুরে পৌরসভার জাহাঙ্গীরপুর ৭নং ওয়ার্ডে আদর্শ কারিগরি ও বাণিজ্য কলেজের পেছনে এ ঘটনা ঘটে। শিশুটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ভিকটিমের বাবা অভিযুক্ত পরিবারের কাছে বিচার প্রার্থী হলে তাকেও তারা মারপিট করে এমন অভিযোগও রয়েছে।  

অভিযুক্ত কিশোর আসাদুল জাহাঙ্গীরপুর ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণির ছাত্র ও একই ওয়ার্ডের দিনমজুর রফিকুল ইসলামের ছেলে। তবে অভিযুক্ত কিশোর এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে।  

ভিকটিমের বাবা বলেন, আমার মেয়েটিকে আসাদুল কলেজের পেছনে খেলার কথা বলে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে শিশুটি অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকলে অন্য শিশুদের চিৎকারে তাকে উদ্ধার করে মদন হাসপাতালে নিয়ে আসি।  শিশুটিকে নেত্রকোনায় ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য বলেছেন।  

আমি এ কথা আসাদুলের বাবা রফিকুলকে জানাতে গেলে সে ও তার ছেলে আমাকে মারপিট করে। এ ব্যাপারে থানায় আমার স্ত্রী চারজনকে আসামি করে  নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি  মামলা দায়ের করেছেন। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই।

তবে গ্রেফতারের আগে অভিযুক্ত কিশোর আসাদুল বলে, আমি এ বিষয়ে কিছুই জানি না। আমাকে তারা ফাঁসাচ্ছে।

কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. সুর্বনা ইয়াসমিন বলেন, শিশুটির মায়ের কাছে হিস্টরি শুনেছি। আলামত যেন নষ্ট না হয় তাই শিশুটিকে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করেছি।

মদন থানার ওসি ফেরদৌস আলম জানান, এ ব্যাপারে শিশুটির মা কিশোর আসাদুলসহ চারজনকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় কিশোরকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। তাকে রাতেই নেত্রকোনার জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। শিশুটিকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নেত্রকোনার আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মামলাটির তদন্ত চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন