এ কেমন শত্রুতা!
jugantor
এ কেমন শত্রুতা!

  ব্রাহ্মণপাড়া (কুমিল্লা) প্রতিনিধি  

০৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২৩:৫৫:১৬  |  অনলাইন সংস্করণ

কোনো পোকা দমনে নয়, সদ্য রোপণ করা ধানের ফসলি জমি নষ্ট করা হয়েছে বিষ প্রয়োগ করে। নেওয়া হয়েছে প্রতিশোধ। মঙ্গলবার রাতের কোনো এক সময় এ ঘটনা ঘটেছে কুমিল্লা জেলার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার মালাপাড়া ইউনিয়নের পশ্চিম চন্ডীপুর এলাকায়।

এ ঘটনায় জমির মালিক আবুল কাশেম ভূঁইয়া বাদী হয়ে ব্রাহ্মণপাড়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

জমির মালিক মালাপাড়া ইউনিয়নের পশ্চিম চন্ডীপুর এলাকার মৃত আব্দুল জলিলের পুত্র মো. আবুল কাশেম ভূঁইয়া জানান, তিনি একজন কৃষক। কৃষিকাজের মাধ্যমেই জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন। চলতি মৌসুমেও তিনি তার জমিতে রোপা আমন ধানের আবাদ করেছেন। তার এ আবাদকৃত জমির ১ একর ৩৩ শতাংশ সদ্য রোপণ করা ধানের জমি ও ৬ শতাংশ ধানের চাড়া ৭ সেপ্টেম্বর রাতের কোনো এক সময় কে বা কারা কীটনাশক প্রয়োগ করে নষ্ট করে ফেলেছে।

সরেজমিন দেখা গেছে, আবাদকৃত জমিতে বিষ প্রয়োগ করায় সদ্য রোপণ করা সমস্ত ধানের চারা পুড়ে গেছে।

এ সময় জমির মালিক মো. আবুল কাশেম কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, তারা আমার পরিবারের রিজিক নষ্ট করে আমাকে পথে বসিয়েছে। আমি এর বিচার চাই।

এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য জসিম উদ্দিন সরকার বলেন, জমির মালিক একজন হতদরিদ্র কৃষক। ধারদেনা করে জমিগুলো আবাদ করেছিলেন। এ রকম ঘটনার আমি তীব্র নিন্দা জানাই।

এদিকে ঘটনা শুনে মালাপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান একেএম আজাদ ভূঁইয়া ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তিনি এরকম ন্যক্কারজনক ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান এবং এই ঘটনায় জড়িতদের বিচারের দাবি জানান।

খবর পেয়ে ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা সাইফুল আলম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ ব্যাপারে তিনি বলেন, রাতের আঁধারে কেউ ফসলি জমি নষ্ট করার জন্য কীটনাশক প্রয়োগ করেছে।

এ কেমন শত্রুতা!

 ব্রাহ্মণপাড়া (কুমিল্লা) প্রতিনিধি 
০৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৫৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কোনো পোকা দমনে নয়, সদ্য রোপণ করা ধানের ফসলি জমি নষ্ট করা হয়েছে বিষ প্রয়োগ করে। নেওয়া হয়েছে প্রতিশোধ। মঙ্গলবার রাতের কোনো এক সময় এ ঘটনা ঘটেছে কুমিল্লা জেলার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার মালাপাড়া ইউনিয়নের পশ্চিম চন্ডীপুর এলাকায়।

এ ঘটনায় জমির মালিক আবুল কাশেম ভূঁইয়া বাদী হয়ে ব্রাহ্মণপাড়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

জমির মালিক মালাপাড়া ইউনিয়নের পশ্চিম চন্ডীপুর এলাকার মৃত আব্দুল জলিলের পুত্র মো. আবুল কাশেম ভূঁইয়া জানান, তিনি একজন কৃষক। কৃষিকাজের মাধ্যমেই জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন। চলতি মৌসুমেও তিনি তার জমিতে রোপা আমন ধানের আবাদ করেছেন। তার এ আবাদকৃত জমির ১ একর ৩৩ শতাংশ সদ্য রোপণ করা ধানের জমি ও ৬ শতাংশ ধানের চাড়া ৭ সেপ্টেম্বর রাতের কোনো এক সময় কে বা কারা কীটনাশক প্রয়োগ করে নষ্ট করে ফেলেছে।

সরেজমিন দেখা গেছে, আবাদকৃত জমিতে বিষ প্রয়োগ করায় সদ্য রোপণ করা সমস্ত ধানের চারা পুড়ে গেছে।

এ সময় জমির মালিক মো. আবুল কাশেম কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন,  তারা আমার পরিবারের রিজিক নষ্ট করে আমাকে পথে বসিয়েছে। আমি এর বিচার চাই।

এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য জসিম উদ্দিন সরকার বলেন, জমির মালিক একজন হতদরিদ্র কৃষক। ধারদেনা করে জমিগুলো আবাদ করেছিলেন। এ রকম ঘটনার আমি তীব্র নিন্দা জানাই।

এদিকে ঘটনা শুনে মালাপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান একেএম আজাদ ভূঁইয়া ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তিনি এরকম ন্যক্কারজনক ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান এবং এই ঘটনায় জড়িতদের বিচারের দাবি জানান।

খবর পেয়ে ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা সাইফুল আলম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ ব্যাপারে তিনি বলেন, রাতের আঁধারে কেউ ফসলি জমি নষ্ট করার জন্য কীটনাশক প্রয়োগ করেছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন