ছিনতাইকারীদের কোপে আহত বেরোবির শিক্ষক-শিক্ষার্থী
jugantor
ছিনতাইকারীদের কোপে আহত বেরোবির শিক্ষক-শিক্ষার্থী

  রংপুর ব্যুরো  

১০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:১৬:৪৬  |  অনলাইন সংস্করণ

ছিনতাইকারীদের হামলায় গুরুতর আহত হয়েছেন রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস ও প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মনিরুজ্জামান ও জেন্ডার অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের ১০ম ব্যাচের শিক্ষার্থী পরাগ মাহমুদ।

এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মচারী ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। তারা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় পুলিশি টহল জোরদারের দাবি জানিয়েছেন।

সূত্র জানায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস ও প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মনিরুজ্জামান সকালে হাঁটতে বের হলে কতিপয় অপরিচিত যুবক দেশীয় অস্ত্র দিয়ে তাকে এলোপাতাড়ি কোপায়। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

অন্যদিকে পরাগ মাহমুদ নিজের ছাত্রাবাস থেকে সরদারপাড়ায় বন্ধুর ছাত্রাবাসে যাচ্ছিলেন। পথে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১নং গেটের সামনে বিপরীত দিক থেকে আসা তিন ছিনতাইকারীতার পথরোধ করে। ছিনতাইকারীরা তার কাছে থাকা সবকিছু দিয়ে দিতে বলে। পরাগ অস্বীকৃতি জানালে এক যুবক তার পকেট থেকে চাপাতি বের করে পরাগের হাতে কোপ দেয়। তার কাছে থাকা মোবাইল নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে সুব্রত ঘোষ নামে এক শিক্ষার্থীর সহযোগিতায় তাকেরংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর গোলাম রব্বানী বলেন, শিক্ষার্থী ও শিক্ষক আহত হওয়ার খবর শুনে অ্যাম্বুলেন্স পাঠিয়েছি।তাদের খোঁজ নিয়েছি। ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য রংপুর পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে কথা হয়েছে।

তাজহাটথানারওসি আখতারুজ্জামান প্রধান বলেন, বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখা হচ্ছে।

ছিনতাইকারীদের কোপে আহত বেরোবির শিক্ষক-শিক্ষার্থী

 রংপুর ব্যুরো 
১০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:১৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ছিনতাইকারীদের হামলায় গুরুতর আহত হয়েছেন রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস ও প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মনিরুজ্জামান ও জেন্ডার অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের ১০ম ব্যাচের শিক্ষার্থী পরাগ মাহমুদ।

এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মচারী ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। তারা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় পুলিশি টহল জোরদারের দাবি জানিয়েছেন। 

সূত্র জানায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস ও প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মনিরুজ্জামান সকালে হাঁটতে বের হলে কতিপয় অপরিচিত যুবক দেশীয় অস্ত্র দিয়ে তাকে এলোপাতাড়ি কোপায়। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

অন্যদিকে পরাগ মাহমুদ নিজের ছাত্রাবাস থেকে সরদারপাড়ায় বন্ধুর ছাত্রাবাসে যাচ্ছিলেন। পথে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১নং গেটের সামনে বিপরীত দিক থেকে আসা তিন ছিনতাইকারী তার পথরোধ করে। ছিনতাইকারীরা তার কাছে থাকা সবকিছু দিয়ে দিতে বলে। পরাগ অস্বীকৃতি জানালে এক যুবক তার পকেট থেকে চাপাতি বের করে পরাগের হাতে কোপ দেয়। তার কাছে থাকা মোবাইল নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে সুব্রত ঘোষ নামে এক শিক্ষার্থীর সহযোগিতায় তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়।  

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর গোলাম রব্বানী বলেন, শিক্ষার্থী ও শিক্ষক আহত হওয়ার খবর শুনে অ্যাম্বুলেন্স পাঠিয়েছি। তাদের খোঁজ নিয়েছি। ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য রংপুর পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে কথা হয়েছে।

তাজহাট থানার ওসি আখতারুজ্জামান প্রধান বলেন, বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখা হচ্ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন