পরীক্ষা দিতে এসে ভোগান্তিতে ইবি শিক্ষার্থীরা
jugantor
পরীক্ষা দিতে এসে ভোগান্তিতে ইবি শিক্ষার্থীরা

  ইবি প্রতিনিধি  

১০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:০৭:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

দেড় বছর পর ১২ সেপ্টেম্বর থেকে পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ পাচ্ছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) শিক্ষার্থীরা। করোনায় বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় সেশনজটের কবলে পড়তে হয়েছে তাদের। বেশি বিপাকে পড়তে হয় অনার্স ও মাস্টার্স এর পরীক্ষার্থীদের। পরীক্ষা সম্পন্ন করতে না পারায় এ সময়ে বিভিন্ন চাকরিতে আবেদনের সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয়েছেন তারা।

তবে সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয় সশরীরে পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কর্তৃপক্ষের এমন সিদ্ধান্তে উচ্ছ্বসিত ভুক্তভোগীরা বাহবা দিয়েছে প্রশাসনকে।

এদিকে দীর্ঘদিন পর পরীক্ষা দিতে ক্যাম্পাসে ফিরতে শুরু করেছেন হাজারো শিক্ষার্থী। তবে শিক্ষার্থীদের এ আনন্দে বাধ সাধলো ক্যাম্পাস পার্শ্ববর্তী এলাকার আবাসন সংকট। ছাত্র-ছাত্রীদের থাকার মেস, বাসা বাড়ি খুঁজে পেতেই পরীক্ষা দেওয়ার আনন্দ ম্লান হতে বসেছে বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।

মাস্টার্স শিক্ষার্থী আফরোজা ইতি বলেন, পরীক্ষার রুটিন পেয়ে আনন্দিত হয়েছিলাম। এখন বাসা খুঁজতে, খুঁজতে সে আনন্দ মাটি হয়ে যাচ্ছে। হলে থেকে শেষ পরীক্ষাগুলো তো দিতে পারছিই না বরং দুদিন হলো ভাড়া বাসায় থাকার মত সিটও খুঁজে পাচ্ছিনা। পরীক্ষার প্রস্তুতি তো দূরের কথা।

জানা যায়, আবাসন সুবিধা ছাড়া ৪ সেপ্টেম্বর সশরীরে পরীক্ষা গ্রহণের অনুমতি দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এতে চরম বিপাকে পড়েছেন শিক্ষার্থীরা। দায়ে পড়ে প্রশাসনের এ সিদ্ধান্ত মেনে নিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। ইতোমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের ২২টি বিভাগ একযোগে পরীক্ষা গ্রহণের প্রস্তুতি নিয়েছে। এর মধ্যে ১৮টি বিভাগ পরীক্ষার চূড়ান্ত সূচিও প্রকাশ করেছে। এছাড়া বিভিন্ন বিভাগের ফরম ফিলআপ ও নতুন বিভাগগুলোর বিভিন্ন বর্ষের পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে। ফলে শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে ফিরতে বাধ্য হচ্ছেন। মেস ও বাসা বাড়ির তুলনায় শিক্ষার্থী বেশি হওয়ায় কোথাও তিল ধারণের ঠাঁই নেই।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম গণমাধ্যমকে বলেন, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে উপাচার্যদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সভায় পজিটিভ সিদ্ধান্ত এলে একাডেমিক কাউন্সিলের মাধ্যমে আমরা হলগুলো খুলে দেব।

পরীক্ষা দিতে এসে ভোগান্তিতে ইবি শিক্ষার্থীরা

 ইবি প্রতিনিধি 
১০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:০৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দেড় বছর পর ১২ সেপ্টেম্বর থেকে পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ পাচ্ছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) শিক্ষার্থীরা। করোনায় বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় সেশনজটের কবলে পড়তে হয়েছে তাদের। বেশি বিপাকে পড়তে হয় অনার্স ও মাস্টার্স এর পরীক্ষার্থীদের। পরীক্ষা সম্পন্ন করতে না পারায় এ সময়ে বিভিন্ন চাকরিতে আবেদনের সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয়েছেন তারা।

তবে সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয় সশরীরে পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কর্তৃপক্ষের এমন সিদ্ধান্তে উচ্ছ্বসিত ভুক্তভোগীরা বাহবা দিয়েছে প্রশাসনকে।

এদিকে দীর্ঘদিন পর পরীক্ষা দিতে ক্যাম্পাসে ফিরতে শুরু করেছেন হাজারো শিক্ষার্থী। তবে শিক্ষার্থীদের এ আনন্দে বাধ সাধলো ক্যাম্পাস পার্শ্ববর্তী এলাকার আবাসন সংকট। ছাত্র-ছাত্রীদের থাকার মেস, বাসা বাড়ি খুঁজে পেতেই পরীক্ষা দেওয়ার আনন্দ ম্লান হতে বসেছে বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীদের।

মাস্টার্স শিক্ষার্থী আফরোজা ইতি বলেন, পরীক্ষার রুটিন পেয়ে আনন্দিত হয়েছিলাম। এখন বাসা খুঁজতে, খুঁজতে সে আনন্দ মাটি হয়ে যাচ্ছে। হলে থেকে শেষ পরীক্ষাগুলো তো দিতে পারছিই না বরং দুদিন হলো ভাড়া বাসায় থাকার মত সিটও খুঁজে পাচ্ছিনা। পরীক্ষার প্রস্তুতি তো দূরের কথা।

জানা যায়, আবাসন সুবিধা ছাড়া ৪ সেপ্টেম্বর সশরীরে পরীক্ষা গ্রহণের অনুমতি দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এতে চরম বিপাকে পড়েছেন শিক্ষার্থীরা। দায়ে পড়ে প্রশাসনের এ সিদ্ধান্ত মেনে নিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। ইতোমধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের ২২টি বিভাগ একযোগে পরীক্ষা গ্রহণের প্রস্তুতি নিয়েছে। এর মধ্যে ১৮টি বিভাগ পরীক্ষার চূড়ান্ত সূচিও প্রকাশ করেছে। এছাড়া বিভিন্ন বিভাগের ফরম ফিলআপ ও নতুন বিভাগগুলোর বিভিন্ন বর্ষের পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করা হয়েছে। ফলে শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে ফিরতে বাধ্য হচ্ছেন। মেস ও বাসা বাড়ির তুলনায় শিক্ষার্থী বেশি হওয়ায় কোথাও তিল ধারণের ঠাঁই নেই।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম গণমাধ্যমকে বলেন, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে উপাচার্যদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সভায় পজিটিভ সিদ্ধান্ত এলে একাডেমিক কাউন্সিলের মাধ্যমে আমরা হলগুলো খুলে দেব।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন