এভাবে আর চলতে দেওয়া যায় না: কাদের মির্জা
jugantor
এভাবে আর চলতে দেওয়া যায় না: কাদের মির্জা

  কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি  

১১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৫১:৫১  |  অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা বলেছেন, সম্মেলনের পর দু’বছর পার হতে চলেছে, কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পথে, এখনো জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা হলো না। হবে আর কবে? নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের কমিটি নিয়ে পাতানো খেলায় মেতেছেন কেন্দ্রীয় নেতারা। গত দু’বছরেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি না দিয়ে অপরাজনীতির হোতাদের প্রতিষ্ঠিত করে রেখেছে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ। এভাবে আর চলতে দেওয়া যায় না।

শনিবার সকাল ১০টায় বসুরহাট পৌরসভা কার্যালয় থেকে নিজ ফেসবুক পেইজে লাইভে এসে এসব কথা বলেন তিনি।

কাদের মির্জা বলেন, শুনেছি অধ্যক্ষ খায়রুল আনম সেলিমকে আহবায়ক, নোয়াখালী পৌরসভার মেয়র শহীদ উল্যাহ খান সোহেল ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহীনকে যুগ্ম আহবায়ক করা হচ্ছে। কিন্তু এরা সবাই এমপি একরামুল করিম চৌধুরীর তল্পিবাহক। এরাই এমপি একরামকে অপরাজনীতি শিখিয়েছে।

তিনি বলেন, এতদিন বলল দলের কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকে জেলা আওয়ামী লীগের সিদ্ধান্ত আসবে। এখন শুনছি কে নাকি বিদেশে, আগামী ২০ তারিখ হবে। সেদিনও হয়তো বলবে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে নেই, পরে হবে। কারণ প্রধানমন্ত্রী আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর ইউএসএ সফরে এক মাসের জন্য বিদেশ অবস্থানের কথা রয়েছে।

কাদের মির্জা বলেন, আমাকে হত্যার চেষ্টা হলো, আমার ছেলেটাকে মারল, আমার স্ত্রী-মেয়ের চরিত্র হনন করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিল। আমি এসব বিষয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জানিয়েছি। কিন্তু আজও বিচার পাইনি।

এভাবে আর চলতে দেওয়া যায় না: কাদের মির্জা

 কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি 
১১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:৫১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা বলেছেন, সম্মেলনের পর দু’বছর পার হতে চলেছে, কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার পথে, এখনো জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা হলো না। হবে আর কবে? নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের কমিটি নিয়ে পাতানো খেলায় মেতেছেন কেন্দ্রীয় নেতারা। গত দু’বছরেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি না দিয়ে অপরাজনীতির হোতাদের প্রতিষ্ঠিত করে রেখেছে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ। এভাবে আর চলতে দেওয়া যায় না।

শনিবার সকাল ১০টায় বসুরহাট পৌরসভা কার্যালয় থেকে নিজ ফেসবুক পেইজে লাইভে এসে এসব কথা বলেন তিনি।

কাদের মির্জা বলেন, শুনেছি অধ্যক্ষ খায়রুল আনম সেলিমকে আহবায়ক, নোয়াখালী পৌরসভার মেয়র শহীদ উল্যাহ খান সোহেল ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহীনকে যুগ্ম আহবায়ক করা হচ্ছে। কিন্তু এরা সবাই এমপি একরামুল করিম চৌধুরীর তল্পিবাহক। এরাই এমপি একরামকে অপরাজনীতি শিখিয়েছে। 

তিনি বলেন, এতদিন বলল দলের কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকে জেলা আওয়ামী লীগের সিদ্ধান্ত আসবে। এখন শুনছি কে নাকি বিদেশে, আগামী ২০ তারিখ হবে। সেদিনও হয়তো বলবে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে নেই, পরে হবে। কারণ প্রধানমন্ত্রী আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর ইউএসএ সফরে এক মাসের জন্য বিদেশ অবস্থানের কথা রয়েছে।

কাদের মির্জা বলেন, আমাকে হত্যার চেষ্টা হলো, আমার ছেলেটাকে মারল, আমার স্ত্রী-মেয়ের চরিত্র হনন করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিল। আমি এসব বিষয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জানিয়েছি। কিন্তু আজও বিচার পাইনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : আবদুল কাদের মির্জা

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন