জামিনে বেরিয়ে যুগান্তরের সাংবাদিক সুমনকে ফের হত্যার চেষ্টা
jugantor
জামিনে বেরিয়ে যুগান্তরের সাংবাদিক সুমনকে ফের হত্যার চেষ্টা

  বুড়িচং (কুমিল্লা) প্রতিনিধি  

১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:১১:০৮  |  অনলাইন সংস্করণ

হায়দার বাহিনীর প্রধান আদনান হায়দার, জজু ও মহিউদ্দিন।

জামিনে বেরিয়ে যুগান্তরের বুড়িচং প্রতিনিধি ইকবাল হোসেন সুমনকে ফের হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে আদনান বাহিনী। রোববার রাত ৯টার দিকে এই ঘটনা ঘটে।

এর আগে গত ১৭ আগস্ট রাতে মাদক ব্যবসাও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডেরবিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করার জেরেময়নামতি তুঁতবাগানের সামনে মোটরসাইকেল থেকে নামিয়ে সন্ত্রাসী আদনান হায়দারের নেতৃত্বে আরও ৯ সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্রসহ কাঠের লাঠি দিয়ে পিটিয়ে সাংবাদিক ইকবালের দুই পাথেঁতলে দেয়। এই ঘটনায় ১৯ আগস্ট আহত সাংবাদিক ইকবাল হোসেনসুমন বাদী হয়ে বুড়িচং থানায় হায়দার বাহিনী প্রধানসহ ১০ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ ২১ আগস্ট হত্যাচেষ্টা মামলার প্রধান আসামি হায়দার বাহিনী প্রধান সন্ত্রাসী আদনান হায়দাসহ ৩ আসামিকে কক্সবাজার থেকে গ্রেফতার করে।

সর্বশেষ রোববার কাজ শেষ বাড়ি ফেরার পথে সাংবাদিক সুমনকে ৫টি মোটরসাইকেলেহায়দার বাহিনীর সন্ত্রাসীরা বাদুরতলা এলাকা থেকে অনুসরণ করে শাসনগাছা ত্রিশা কাউন্টার সামনে গতিরোধ করে। তাকে টেনেহেচড়ে মোটরসাইকেল থেকে নামিয়ে কিল-ঘুষি মারে। ধারাল ছুরি দিয়ে সুমনের হাত-পায়ের রগ কাটার চেষ্টা করে। এ সময় তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে সুমনপাশের একটি বাড়িতে আশ্রয় নেন।

কোতোয়ালি থানার ওসির কাছে সাংবাদিক সুমন তার জীবন বাঁচানোর আকুতি জানান। ওসি খবর পেয়ে এসআই আরমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ পাঠান। তারা সুমনকে উদ্ধার করে তার বাড়ি পৌঁছে দেন।

প্রাণনাশের আশঙ্কায় সুমন আগেই কোতয়ালি মডেল থানায় জিডি করে রেখেছিলেন। ওই জিডির তদন্ত দিয়েছে আদালত। তদন্ত চলাকালেই হায়দার বাহিনী ফের তাকে হত্যার চেষ্টা চালাল।

সন্ত্রাসী আদনান বাহিনী মামলা তুলে না নিলে তাকে সপরিবারে বাসায় গিয়ে গুলি করে হত্যার হুমকিও দিয়েছে।

এ বিষয়ে কোতয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বলেন, সুমন আগে থেকে জিডি করে রেখেছিল। তদন্ত করে হায়দার বাহিনীর প্রধানআদনান হায়দারসহ তার দলকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

জামিনে বেরিয়ে যুগান্তরের সাংবাদিক সুমনকে ফের হত্যার চেষ্টা

 বুড়িচং (কুমিল্লা) প্রতিনিধি 
১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:১১ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
হায়দার বাহিনীর প্রধান আদনান হায়দার, জজু ও মহিউদ্দিন।
হায়দার বাহিনীর প্রধান আদনান হায়দার, জজু ও মহিউদ্দিন। ছবি: যুগান্তর

জামিনে বেরিয়ে যুগান্তরের বুড়িচং প্রতিনিধি ইকবাল হোসেন সুমনকে ফের হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে আদনান বাহিনী।  রোববার রাত ৯টার দিকে এই ঘটনা ঘটে।

এর আগে গত ১৭ আগস্ট  রাতে  মাদক ব্যবসা ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করার জেরে ময়নামতি তুঁতবাগানের সামনে মোটরসাইকেল থেকে নামিয়ে সন্ত্রাসী আদনান হায়দারের নেতৃত্বে আরও ৯ সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্রসহ কাঠের লাঠি দিয়ে পিটিয়ে সাংবাদিক ইকবালের দুই পা থেঁতলে দেয়। এই ঘটনায় ১৯ আগস্ট আহত সাংবাদিক ইকবাল হোসেন সুমন বাদী হয়ে বুড়িচং থানায় হায়দার বাহিনী প্রধানসহ ১০ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ ২১ আগস্ট হত্যাচেষ্টা মামলার প্রধান আসামি হায়দার বাহিনী প্রধান সন্ত্রাসী আদনান হায়দাসহ ৩ আসামিকে কক্সবাজার থেকে গ্রেফতার করে।

সর্বশেষ রোববার কাজ শেষ বাড়ি ফেরার পথে সাংবাদিক সুমনকে  ৫টি মোটরসাইকেলে হায়দার বাহিনীর সন্ত্রাসীরা বাদুরতলা এলাকা থেকে অনুসরণ করে শাসনগাছা ত্রিশা কাউন্টার সামনে গতিরোধ করে। তাকে টেনেহেচড়ে মোটরসাইকেল থেকে নামিয়ে কিল-ঘুষি মারে। ধারাল ছুরি দিয়ে সুমনের হাত-পায়ের রগ কাটার চেষ্টা করে। এ সময় তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে সুমন পাশের একটি বাড়িতে আশ্রয় নেন। 

কোতোয়ালি থানার ওসির কাছে সাংবাদিক সুমন তার জীবন বাঁচানোর আকুতি জানান। ওসি খবর পেয়ে এসআই আরমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ পাঠান। তারা সুমনকে উদ্ধার করে তার বাড়ি পৌঁছে দেন।

প্রাণনাশের আশঙ্কায় সুমন আগেই কোতয়ালি মডেল থানায় জিডি করে রেখেছিলেন। ওই জিডির তদন্ত দিয়েছে আদালত।  তদন্ত চলাকালেই হায়দার বাহিনী ফের তাকে হত্যার চেষ্টা চালাল। 

সন্ত্রাসী আদনান বাহিনী মামলা তুলে না নিলে তাকে সপরিবারে বাসায় গিয়ে গুলি করে হত্যার হুমকিও দিয়েছে। 

এ বিষয়ে কোতয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বলেন, সুমন আগে থেকে জিডি করে রেখেছিল। তদন্ত করে হায়দার বাহিনীর প্রধান আদনান হায়দারসহ তার দলকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন