পত্র লেখায় সিলেটের নুবায়শা ইসলামের বিশ্বজয়
jugantor
পত্র লেখায় সিলেটের নুবায়শা ইসলামের বিশ্বজয়

  সিলেট ব্যুরো  

১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:৩৬:০২  |  অনলাইন সংস্করণ

পত্র লেখায় বিশ্ব জয় করেছে সিলেট নগরীর আনন্দ নিকেতনের ছাত্রী নুবায়শা ইসলাম। বিশ্ব ডাক সংস্থা ইউনিভার্সাল পোস্টাল ইউনিয়ন (ইউপিইউ) আয়োজিত ৫০তম পত্র লিখন প্রতিযোগিতায় নুবায়শা স্বর্ণপদক লাভ করেছে।

গত ২৭ আগস্ট আইভরি কোস্টের আবিদজানে অনুষ্ঠিত কংগ্রেসে তার নাম ঘোষণা করেন ইউপিইউর মহাপরিচালক বিশার এ হোসেইন। প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় হয়েছে নর্থ মেসিডোনিয়ার ব্রুনো ইভানোভস্কি ও তৃতীয় হয়েছে ভিয়েতনামের দাও আনহথু।

পত্র লেখার বিষয় ছিল কোভিড-১৯। নুবায়শা তার অনাগত বোনকে উদ্দেশ করে লেখা চিঠিতে করোনাকালে মৃত্যুভয়, স্বজন হারানোর ভয়ের কথা উল্লেখ করেও প্রচণ্ড আশাবাদ ব্যক্ত করে একটি ভালো সময়ের জন্যে প্রত্যাশা করেছে।

সিলেটের আনন্দ নিকেতন স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী ১৪ বছর বয়সী নুবায়শা ইসলাম সুইজারল্যান্ডে গিয়ে পুরস্কার গ্রহণ করবে।

তার সাফল্যে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার নিজের ফেসবুক আইডিতে সবাইকে চিঠিটি পড়ার আমন্ত্রণ জানিয়ে লিখেছেন- ‘নুবায়শাকে অভিনন্দন। পাশাপাশি আমরা তার পিতা-মাতা ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকেও অভিনন্দন জানাই। জয় বাংলা। ভালো থাকো আমাদের স্বর্ণকিশোরী।’

নুবায়শা বাংলাদেশ ব্যাংক সিলেটের যুগ্ম পরিচালক মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম এবং সিলেট গ্রামার স্কুলের সিনিয়র শিক্ষিকা জেসমিন আক্তার দম্পতির একমাত্র কন্যা। নুবায়শার শখ বই পড়া এবং তার পছন্দের রং কালো।

এদিকে মাধবপুর অ্যাসোসিয়েশন সিলেটের পক্ষ থেকে নুবায়শাকে অভিনন্দন জানানো হয়েছে। নুবায়শার বাবা মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম মাধবপুর অ্যাসোসিয়েশন, সিলেটের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক।

পত্র লেখায় সিলেটের নুবায়শা ইসলামের বিশ্বজয়

 সিলেট ব্যুরো 
১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:৩৬ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পত্র লেখায় বিশ্ব জয় করেছে সিলেট নগরীর আনন্দ নিকেতনের ছাত্রী নুবায়শা ইসলাম। বিশ্ব ডাক সংস্থা ইউনিভার্সাল পোস্টাল ইউনিয়ন (ইউপিইউ) আয়োজিত ৫০তম পত্র লিখন প্রতিযোগিতায় নুবায়শা স্বর্ণপদক লাভ করেছে।

গত ২৭ আগস্ট আইভরি কোস্টের আবিদজানে অনুষ্ঠিত কংগ্রেসে তার নাম ঘোষণা করেন ইউপিইউর মহাপরিচালক বিশার এ হোসেইন। প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় হয়েছে নর্থ মেসিডোনিয়ার ব্রুনো ইভানোভস্কি ও তৃতীয় হয়েছে ভিয়েতনামের দাও আনহথু।

পত্র লেখার বিষয় ছিল কোভিড-১৯। নুবায়শা তার অনাগত বোনকে উদ্দেশ করে লেখা চিঠিতে করোনাকালে মৃত্যুভয়, স্বজন হারানোর ভয়ের কথা উল্লেখ করেও প্রচণ্ড আশাবাদ ব্যক্ত করে একটি ভালো সময়ের জন্যে প্রত্যাশা করেছে।

সিলেটের আনন্দ নিকেতন স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী ১৪ বছর বয়সী নুবায়শা ইসলাম সুইজারল্যান্ডে গিয়ে পুরস্কার গ্রহণ করবে।

তার সাফল্যে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার নিজের ফেসবুক আইডিতে সবাইকে চিঠিটি পড়ার আমন্ত্রণ জানিয়ে লিখেছেন- ‘নুবায়শাকে অভিনন্দন। পাশাপাশি আমরা তার পিতা-মাতা ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকেও অভিনন্দন জানাই। জয় বাংলা। ভালো থাকো আমাদের স্বর্ণকিশোরী।’

নুবায়শা বাংলাদেশ ব্যাংক সিলেটের যুগ্ম পরিচালক মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম এবং সিলেট গ্রামার স্কুলের সিনিয়র শিক্ষিকা জেসমিন আক্তার দম্পতির একমাত্র কন্যা। নুবায়শার শখ বই পড়া এবং তার পছন্দের রং কালো।

এদিকে মাধবপুর অ্যাসোসিয়েশন সিলেটের পক্ষ থেকে নুবায়শাকে অভিনন্দন জানানো হয়েছে। নুবায়শার বাবা মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম মাধবপুর অ্যাসোসিয়েশন, সিলেটের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন