গৃহবধূ নির্যাতনের ভিডিও ভাইরাল, আটক ২
jugantor
গৃহবধূ নির্যাতনের ভিডিও ভাইরাল, আটক ২

  নোয়াখালী ও সেনবাগ প্রতিনিধি  

১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:৫১:৪৬  |  অনলাইন সংস্করণ

গৃহবধূকে নির্যাতন

নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলায় এক গৃহবধূকে স্বামী ও দেবর কর্তৃক নির্যাতনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। ঘটনার পর পুলিশ দুই অভিযুক্তকে আটক করে।

আটককৃতরা হলো স্বামী আমির হোসেন (৪০) ও তার বোন হাসিনা বেগম। তারা উপজেলার ৭নং মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ রাজারামপুর মোহাম্মাদীয় মিয়া বাড়ির মৃত মছিজ উদ্দিনের ছেলে-মেয়ে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পারিবারিক কলহের জেরে গৃহবধূ আমেনা বেগমকে (৩০) শনিবার বিকাল ৪টার দিকে তার স্বামী আমির হোসেন ও দেবর এরশাদ নির্দয়ভাবে চুলের মুঠি ধরে, লাঠি পেটা এবং চড়থাপ্পড়, কিলঘুষিসহ ব্যাপক মারধর করে আহত করে। ঘটনার পর নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ আমেনা তার বাবার বাড়ি পার্শ্ববর্তী কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাটে গিয়ে চিকিৎসা নেন।

গৃহবধূ আমেনাকে নির্যাতনের ১ মিনিট ১৭ সেকেন্ডের একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আমির ও এরশাদ মাদক ব্যবসা ও ডাকাতির সঙ্গে জড়িত। তাদের ভয়ে কেউ এসব ঘটনার প্রতিবাদ করার সাহস পায় না।

সেনবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল বাতেন মৃধা বলেন, শনিবার বিকালে গৃহবধূকে নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দুইজনকে আটক করা হয়েছে। তবে ঘটনায় আরেক হোতা গৃহবধূর দেবর পলাতক রয়েছে। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

এ ঘটনায় একটি মামলা দায়েরের বিষয় প্রক্রিয়াধীন ছিল বলেও জানান ওসি।

গৃহবধূ নির্যাতনের ভিডিও ভাইরাল, আটক ২

 নোয়াখালী ও সেনবাগ প্রতিনিধি 
১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:৫১ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
গৃহবধূকে নির্যাতন
গৃহবধূকে নির্যাতনের ঘটনায় আটক প্রধান অভিযুক্ত আমির হোসেন। ছবি: সংগৃহীত

নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলায় এক গৃহবধূকে স্বামী ও দেবর কর্তৃক নির্যাতনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। ঘটনার পর পুলিশ দুই অভিযুক্তকে আটক করে। 
 
আটককৃতরা হলো স্বামী আমির হোসেন (৪০) ও তার বোন হাসিনা বেগম। তারা উপজেলার ৭নং মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ রাজারামপুর মোহাম্মাদীয় মিয়া বাড়ির মৃত মছিজ উদ্দিনের ছেলে-মেয়ে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পারিবারিক কলহের জেরে গৃহবধূ আমেনা বেগমকে (৩০) শনিবার বিকাল ৪টার দিকে তার স্বামী আমির হোসেন ও দেবর এরশাদ নির্দয়ভাবে চুলের মুঠি ধরে, লাঠি পেটা  এবং চড়থাপ্পড়, কিলঘুষিসহ ব্যাপক মারধর করে আহত করে। ঘটনার পর নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ আমেনা তার বাবার বাড়ি পার্শ্ববর্তী কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাটে গিয়ে চিকিৎসা নেন।
 
 গৃহবধূ আমেনাকে নির্যাতনের ১ মিনিট ১৭ সেকেন্ডের একটি ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়।
 
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আমির ও এরশাদ মাদক ব্যবসা ও ডাকাতির সঙ্গে জড়িত। তাদের ভয়ে কেউ এসব ঘটনার প্রতিবাদ করার সাহস পায় না। 

সেনবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল বাতেন মৃধা বলেন, শনিবার বিকালে গৃহবধূকে নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দুইজনকে আটক করা হয়েছে। তবে ঘটনায় আরেক হোতা গৃহবধূর দেবর পলাতক রয়েছে। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

এ ঘটনায় একটি মামলা দায়েরের বিষয় প্রক্রিয়াধীন ছিল বলেও জানান ওসি। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন