৫ স্পিডবোট চালককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা
jugantor
৫ স্পিডবোট চালককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা

  বরিশাল ব্যুরো  

১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৩৪:২৬  |  অনলাইন সংস্করণ

বরিশালের কীর্তনখোলা নদীতে অবৈধ নৌযানের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছে নৌ-পরিবহন অধিদপ্তর। মঙ্গলবার সকাল থেকে কীর্তনখোলা নদীর ডিসি ঘাট, চরকাউয়া খেয়াঘাটসহ বিভিন্ন পয়েন্টে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

অভিযান পরিচালনাকালে ৫ অবৈধ স্পিডবোট চালককে আটক করা হয়। এছাড়া সার্ভে এবং রেজিস্ট্রেশনবিহীন অবৈধ ড্রেজার, বালুবাহী বালহেন্ড, যাত্রীবাহী নৌযানে অভিযান পরিচালনা করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে লাইসেন্স, সনদ ও জীবনরক্ষা সামগ্রী না থাকার দায়ে তাদের ১০ হাজার করে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

আটককৃতরা হলো, রুবেল, জুয়েল, ইয়ামিন, মিরাজ ও রুবেল।

অভিযানে নেতৃত্ব দেন নৌপরিবহন অধিদপ্তরের উপসচিব ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বদরুল হাসান লিটন। অভিযানে বরিশাল কোস্টগার্ড, র‌্যাব-৮ ও নৌপুলিশ সহায়তা করে।

নৌপরিবহন অধিদপ্তর বরিশালের চিফ ইন্সপেক্টর মো. শফিকুর রহমান জানান, নৌ-নিরাপত্তা ও যাত্রীদের নিরাপত্তার স্বার্থে এই অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। অবৈধ নৌযান চলাচল বন্ধ করার জন্য সঠিক পথে সঠিক নৌযান চলাচলের জন্য এ অভিযান। সকাল থেকে ৫টি অবৈধ স্পিডবোট আটক করা হয়েছে। পরে তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে জরিমানা করা হয়। এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

নৌপরিবহন অধিদপ্তরের উপসচিব ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বদরুল হাসান লিটন বলেন, আমরা এখানে অভিযান পরিচালনা করেছি। এখানে আমরা ৫টি অবৈধ স্পিডবোট আটক করেছি। এছাড়া ড্রেজার, বালুবাহী বাল্কহেড, যাত্রীবাহী নৌযানে অভিযান পরিচালনা করছি। লাইসেন্স, সনদ ও জীবনরক্ষা সামগ্রী না থাকায় ৫টি নৌযানকে জরিমানা করা হয়েছে এবং ওই ৫ স্পিডবোটের চালককে আটক করা হয়েছে।

৫ স্পিডবোট চালককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা

 বরিশাল ব্যুরো 
১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:৩৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বরিশালের কীর্তনখোলা নদীতে অবৈধ নৌযানের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছে নৌ-পরিবহন অধিদপ্তর। মঙ্গলবার সকাল থেকে কীর্তনখোলা নদীর ডিসি ঘাট, চরকাউয়া খেয়াঘাটসহ বিভিন্ন পয়েন্টে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

অভিযান পরিচালনাকালে ৫ অবৈধ স্পিডবোট চালককে আটক করা হয়। এছাড়া সার্ভে এবং রেজিস্ট্রেশনবিহীন অবৈধ ড্রেজার, বালুবাহী বালহেন্ড, যাত্রীবাহী নৌযানে অভিযান পরিচালনা করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে লাইসেন্স, সনদ ও জীবনরক্ষা সামগ্রী না থাকার দায়ে তাদের ১০ হাজার করে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

আটককৃতরা হলো, রুবেল, জুয়েল, ইয়ামিন, মিরাজ ও রুবেল।

অভিযানে নেতৃত্ব দেন নৌপরিবহন অধিদপ্তরের উপসচিব ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বদরুল হাসান লিটন। অভিযানে বরিশাল কোস্টগার্ড, র‌্যাব-৮ ও নৌপুলিশ সহায়তা করে।

নৌপরিবহন অধিদপ্তর বরিশালের চিফ ইন্সপেক্টর মো. শফিকুর রহমান জানান, নৌ-নিরাপত্তা ও যাত্রীদের নিরাপত্তার স্বার্থে এই অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। অবৈধ নৌযান চলাচল বন্ধ করার জন্য সঠিক পথে সঠিক নৌযান চলাচলের জন্য এ অভিযান। সকাল থেকে ৫টি অবৈধ স্পিডবোট আটক করা হয়েছে। পরে তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে জরিমানা করা হয়। এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

নৌপরিবহন অধিদপ্তরের উপসচিব ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বদরুল হাসান লিটন বলেন, আমরা এখানে অভিযান পরিচালনা করেছি। এখানে আমরা ৫টি অবৈধ স্পিডবোট আটক করেছি। এছাড়া ড্রেজার, বালুবাহী বাল্কহেড, যাত্রীবাহী নৌযানে অভিযান পরিচালনা করছি। লাইসেন্স, সনদ ও জীবনরক্ষা সামগ্রী না থাকায় ৫টি নৌযানকে জরিমানা করা হয়েছে এবং ওই ৫ স্পিডবোটের চালককে আটক করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন