পুকুরে মাছ ধরতে গিয়ে সাপের কামড়ে নারীর মৃত্যু
jugantor
পুকুরে মাছ ধরতে গিয়ে সাপের কামড়ে নারীর মৃত্যু

  আশুগঞ্জ (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি  

১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩:১৭:৪৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জের তারুয়ায় পুকুরে বড়শি দিয়ে মাছ ধরতে গিয়ে সাপের কামড়ে শরীফা (৫৫) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

ওই নারীরছেলে এনামুল জানান, বুধবার সন্ধ্যায় তার মা বাড়ির পাশে পুকুরে বড়শি দিয়ে মাছ ধরার সময় সাপে কামড় দেয়। বিষয়টি তিনি তার বাড়ির সদস্যদের জানালে স্বজনরা দ্রুত তাকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে নেওয়ার পর ডাক্তাররা চিকিৎসা দিতে তালবাহানা শুরু করে এবং রাত সাড়ে ১০টায় ডাক্তাররা প্রাথমিক চিকিৎসা দেয় এবং রক্ত পরীক্ষা করে। রক্ত পরীক্ষা করে সাপের কামড়ের অস্তিত্ব পায়। পরবর্তীতে ইনজেকশন পুশ করে। ইনজেকশন পুশ করার কিছুক্ষণের মধ্যেই শরীফা বমি করতে করতে মারা যান।

তবে এ বিষয়ে শরীফার ছেলে এনামুল বলেন, ডাক্তার চিকিৎসা করতে দেরি এবং অবহেলা করায় আমার মা মারা গেছে। দ্রুত এবং সঠিক চিকিৎসা পেলে আমার মা মারা যেত না। আমি এর সুষ্ঠু তদন্ত করে ডাক্তারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা চাই প্রশাসনের নিকট।

এ বিষয়ে আশুগঞ্জ থানার ওসি মো. আজাদ রহমান বলেন, আমার কাছে কেউ কোনো অভিযোগ দেয় নাই। অভিযোগ দিলে আমরা তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেব।

পুকুরে মাছ ধরতে গিয়ে সাপের কামড়ে নারীর মৃত্যু

 আশুগঞ্জ (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি 
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:১৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জের তারুয়ায় পুকুরে বড়শি দিয়ে মাছ ধরতে গিয়ে সাপের কামড়ে শরীফা (৫৫) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে তার মৃত্যু হয়। 

ওই নারীর ছেলে এনামুল জানান, বুধবার সন্ধ্যায় তার মা বাড়ির পাশে পুকুরে বড়শি দিয়ে মাছ ধরার সময় সাপে কামড় দেয়। বিষয়টি তিনি তার বাড়ির সদস্যদের জানালে স্বজনরা দ্রুত তাকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে নেওয়ার পর ডাক্তাররা চিকিৎসা দিতে তালবাহানা শুরু করে এবং রাত সাড়ে ১০টায় ডাক্তাররা প্রাথমিক চিকিৎসা দেয় এবং রক্ত পরীক্ষা করে। রক্ত পরীক্ষা করে সাপের কামড়ের অস্তিত্ব পায়। পরবর্তীতে ইনজেকশন পুশ করে। ইনজেকশন পুশ করার কিছুক্ষণের মধ্যেই শরীফা বমি করতে করতে মারা যান। 

তবে এ বিষয়ে শরীফার ছেলে এনামুল বলেন, ডাক্তার চিকিৎসা করতে দেরি এবং অবহেলা করায় আমার মা মারা গেছে। দ্রুত এবং সঠিক চিকিৎসা পেলে আমার মা মারা যেত না। আমি এর সুষ্ঠু তদন্ত করে ডাক্তারের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা চাই প্রশাসনের নিকট।

এ বিষয়ে আশুগঞ্জ থানার ওসি মো. আজাদ রহমান বলেন, আমার কাছে কেউ কোনো অভিযোগ দেয় নাই। অভিযোগ দিলে আমরা তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেব।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন