নাশকতা পরিকল্পনার অভিযোগে ৬ শিবির কর্মী আটক
jugantor
নাশকতা পরিকল্পনার অভিযোগে ৬ শিবির কর্মী আটক

  লাকসাম (কুমিল্লা) প্রতিনিধি  

১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:৩৬:৪৫  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার লাকসাম উপজেলায় নাশকতা পরিকল্পনার অভিযোগে ৬ জামায়াত-শিবির কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। বুধবার সন্ধ্যায় পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের উত্তর পশ্চিমগাঁও প্রফেসর কলোনি এলাকায় আবদুল জলিলের টিনশেড ঘর থেকে তাদের আটক করা হয়েছে।

আটককৃতরা হলেন- মনোহরগঞ্জ উপজেলার বাইশগাঁও গ্রামের মো. সামছুল হকের ছেলে সাফায়েত উল্লাহ (২১), লাকসাম উপজেলার মনপাল গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে জাহেদুল ইসলাম (২০), তপইয়া গ্রামের সুরুজ মিয়ার ছেলে রাকিব হোসেন (২১),পশ্চিমগাঁও কলেজপাড়ার মৃত মো. ইয়াকুব আলীর ছেলে আব্দুল জলিল (৪৮), গাজীমুড়া মধ্যপাড়ার মাওলানা আব্দুর রহমানের ছেলে মহিউদ্দিন সোহাগ (৪২) ও নারায়ণপুর গ্রামের হাফেজ আব্দুল মান্নানের ছেলে আজিজুল হক মামুন (২৫)।

আটকদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে পলাতক এক নম্বর আসামি সরোয়ার আলম সিদ্দিকীসহ ৩৩ জনের বিরুদ্ধে লাকসাম থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে মামলা দিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে কুমিল্লা আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, ১৫ সেপ্টেম্বর বুধবার সন্ধ্যায় লাকসাম পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের উত্তর পশ্চিমগাঁও প্রফেসর কলোনি এলাকায়। জলিলের টিনশেড মেস ঘরে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের উদ্দেশ্যে গোপন সভায় মিলিত হয়। খবর পেয়ে টহল পুলিশ ঘটনাস্থলে অভিযান পরিচালনা করে ৬ জন শিবির কর্মীকে আটক করে। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে বাকিরা পালিয়ে যায়।

এ সময় তাদের কাছ থেকে ইসলামী ছাত্রশিবির লাকসাম শহর-২০১৯ নামক ১টি রেজিস্টার খাতা, গোলাকার সিল, সমর্থক ফরম ২২টি, কর্মী মানোন্নয়ন বায়োডাটা, ছাত্রশিবির লাকসাম শহর নামক ৯টি খালি ফরম, কর্মী বৃদ্ধি তালিকা, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির, লাকসাম আলিয়া নামক ১টি খালি ফরম, এক পৃষ্ঠা ‘মাসিক পরিকল্পনা’, অপর পৃষ্ঠে ‘ব্যক্তিগত রিপোর্ট’ নামক খালি ফরম ২০টি, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রচারপত্র ৯ কপি, ব্যবহৃত সিম সংযুক্ত এন্ড্রয়েড মোবাইল সেট ও বেশ কয়েকটি জিহাদি বই জব্দ করা হয়।

পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিল আবু সায়েদ বাচ্চু বলেন, সরকারবিরোধী অপপ্রচার ও নাশকতার উদ্দেশ্যে একদল জামায়াত-শিবির কর্মী ওই এলাকায় গোপন বৈঠক করছিল। এমনকি লাকসাম বাজারে বিভিন্ন স্থানে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের পরিচালনা করবে বলে এ গোপন বৈঠক করে।

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার লাকসাম সার্কেল মহিতুল ইসলাম বৃহস্পতিবার দুপুরে যুগান্তরকে বলেন, নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড পরিচালনার জন্য পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের উত্তর পশ্চিমগাঁও প্রফেসর কলোনি এলাকায় একদল জামায়াত-শিবির কর্মী গোপন বৈঠক করছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিষয়টি জানতে পেরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৬ জনকে আটক করে। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে বাকিরা পালিয়ে যায়।

লাকসাম থানার ওসি মেজবাহ উদ্দিন ভুঁইয়া বলেন, সন্ত্রাসবিরোধী আইনে তাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত ৬ জনকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত অপরাপর পলাতক আসামি ও অপরাধকর্মে সহায়তাকারী আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলমান আছে।

নাশকতা পরিকল্পনার অভিযোগে ৬ শিবির কর্মী আটক

 লাকসাম (কুমিল্লা) প্রতিনিধি 
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৩৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার লাকসাম উপজেলায় নাশকতা পরিকল্পনার অভিযোগে ৬ জামায়াত-শিবির কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। বুধবার সন্ধ্যায় পৌরসভার  ৬নং ওয়ার্ডের উত্তর পশ্চিমগাঁও প্রফেসর কলোনি এলাকায় আবদুল জলিলের টিনশেড ঘর থেকে তাদের আটক করা হয়েছে।

আটককৃতরা হলেন- মনোহরগঞ্জ উপজেলার বাইশগাঁও গ্রামের মো. সামছুল হকের ছেলে সাফায়েত উল্লাহ (২১), লাকসাম উপজেলার মনপাল গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে জাহেদুল ইসলাম (২০), তপইয়া গ্রামের সুরুজ মিয়ার ছেলে রাকিব হোসেন (২১),পশ্চিমগাঁও কলেজপাড়ার মৃত মো. ইয়াকুব আলীর ছেলে আব্দুল জলিল (৪৮), গাজীমুড়া মধ্যপাড়ার মাওলানা আব্দুর রহমানের ছেলে মহিউদ্দিন সোহাগ (৪২) ও নারায়ণপুর গ্রামের হাফেজ আব্দুল মান্নানের ছেলে আজিজুল হক মামুন (২৫)।

আটকদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে পলাতক এক নম্বর আসামি  সরোয়ার আলম সিদ্দিকীসহ ৩৩ জনের বিরুদ্ধে লাকসাম থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে মামলা দিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে কুমিল্লা আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, ১৫ সেপ্টেম্বর বুধবার সন্ধ্যায় লাকসাম পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের উত্তর পশ্চিমগাঁও প্রফেসর কলোনি এলাকায়। জলিলের টিনশেড মেস ঘরে জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের উদ্দেশ্যে গোপন সভায় মিলিত হয়। খবর পেয়ে টহল পুলিশ ঘটনাস্থলে অভিযান পরিচালনা করে ৬ জন শিবির কর্মীকে আটক করে। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে বাকিরা পালিয়ে যায়।

এ সময় তাদের কাছ থেকে ইসলামী ছাত্রশিবির লাকসাম শহর-২০১৯ নামক ১টি রেজিস্টার খাতা, গোলাকার সিল, সমর্থক ফরম ২২টি, কর্মী মানোন্নয়ন বায়োডাটা, ছাত্রশিবির লাকসাম শহর নামক ৯টি খালি ফরম, কর্মী বৃদ্ধি তালিকা, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির, লাকসাম আলিয়া নামক ১টি খালি ফরম, এক পৃষ্ঠা ‘মাসিক পরিকল্পনা’, অপর পৃষ্ঠে ‘ব্যক্তিগত রিপোর্ট’ নামক খালি ফরম ২০টি,  বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রচারপত্র ৯ কপি, ব্যবহৃত সিম সংযুক্ত এন্ড্রয়েড মোবাইল সেট ও বেশ কয়েকটি জিহাদি বই জব্দ করা হয়।

পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিল আবু সায়েদ বাচ্চু বলেন, সরকারবিরোধী অপপ্রচার ও নাশকতার উদ্দেশ্যে একদল জামায়াত-শিবির কর্মী ওই এলাকায় গোপন বৈঠক করছিল। এমনকি লাকসাম বাজারে বিভিন্ন স্থানে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের পরিচালনা করবে বলে এ গোপন বৈঠক করে।

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার লাকসাম সার্কেল মহিতুল ইসলাম বৃহস্পতিবার দুপুরে যুগান্তরকে বলেন, নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড পরিচালনার জন্য পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের উত্তর পশ্চিমগাঁও প্রফেসর কলোনি এলাকায় একদল জামায়াত-শিবির কর্মী গোপন বৈঠক করছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিষয়টি জানতে পেরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৬ জনকে আটক করে। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে বাকিরা পালিয়ে যায়।

লাকসাম থানার ওসি মেজবাহ উদ্দিন ভুঁইয়া বলেন, সন্ত্রাসবিরোধী আইনে তাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত ৬ জনকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত অপরাপর পলাতক আসামি ও অপরাধকর্মে সহায়তাকারী আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলমান আছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন