কিস্তির টাকা চাওয়ায় ব্যাংক কর্মকর্তাকে পেটালেন চেয়ারম্যানের ভাই
jugantor
কিস্তির টাকা চাওয়ায় ব্যাংক কর্মকর্তাকে পেটালেন চেয়ারম্যানের ভাই

  নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি  

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:০৪:০৪  |  অনলাইন সংস্করণ

আড়াইহাজার উপজেলায় ব্যাংক ঋণের কিস্তির টাকা চাওয়ায় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের ভাই ও সন্ত্রাসীদের হাতে বেদম মারধরের শিকার হয়েছেন একটি ব্যাংকের ডেপুটি ম্যানেজার মনিরুল ইসলাম। এ সময় স্বামীকে রক্ষা করতে আসা মনিরুলের স্ত্রীকেও বেদম প্রহার করে সন্ত্রাসীরা।

বুধবার রাত সাড়ে ৮টায় উপজেলার লাসারদী দিঘীরপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। দুর্বৃত্তদের আঘাতে মনিরুল ইসলামের এক চোখ নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

আহত মনিরুল ইসলাম জানান, আড়াইহাজার বাজারের দুবাই প্লাজা মার্কেটের জাকির খান কম্পিউটার অ্যান্ড ট্রেনিং সেন্টারের মালিক জাকির খান এক বছর আগে এনআরবিসি ব্যাংক আড়াইহাজার উপজেলা শাখা থেকে তিন লাখ টাকা ঋণ নেন। তার ঋণের জামিনদার হন খাগকান্দা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরিফুলের মা তাছলিমা আক্তার ও ভাই সজিবুল ইসলাম।

তিনি জানান, কয়েক মাস ধরে তারা কিস্তি দেওয়া বন্ধ করে দেন। ৪-৫ মাসের অপরিশোধিত কিস্তির টাকার জন্য গত বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে দুবাই প্লাজায় জাকির খানের কাছে যান এনআরবিসি ব্যাংকের ম্যানেজার কচি শিকদার, ক্রেডিট অফিসার আজহারুল হক ও মনিরুল ইসলাম। জাকির খানের কাছে কয়েক মাসের বকেয়া ও চলতি কিস্তি চাইলে ব্যাংকের তিন কর্মকর্তার ওপর উত্তেজিত হয়ে উঠেন জাকির খান।

এ সময় জাকির খানের পক্ষ নিয়ে খাগকান্দা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরিফুলের মা তাছলিমা আক্তার তাদের অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করেন এবং তাদের মারতে উদ্যত হন। পরে ব্যাংকে ফিরে যান কর্মকর্তারা। বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ব্যাংক কর্মকতা মনিরুল ইসলামকে বাসা থেকে ডেকে পাশের রাস্তায় নিয়ে আসেন চেয়ারম্যান আরিফুলের ভাই সজিবুল ইসলাম।

আহত মনিরুল জানান, এ সময় সজিবের সঙ্গে আসা ৭-৮ জন দুর্বৃত্ত হকিস্টিক, লোহার রড ও ধারালো ছোরা নিয়ে তার ওপর হামলা করে। এ সময় সন্ত্রাসীরা লোনের টাকা আর যেন চাইতে না যাই সে কথা বলতে থাকে।

মনিরুল ইসলামকে মারধরের সময় তার স্ত্রী আয়েশা বানু (৩০) এগিয়ে এলে তাকেও লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে আহত করা হয়। একপর্যায়ে স্বামী-স্ত্রীর ডাকচিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে দুর্বৃত্তরা হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যায়।

পরে মনিরুল ইসলামকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে তার চোখের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে দ্রুত সেখান থেকে জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এ ব্যাপারে ডেপুটি ম্যানেজার মনিরুল ইসলাম বাদী হয়ে সজিবুল ইসলাম ওরফে সজিব ও তার মা তাছলিমা আক্তার, জাকির খান, মুজাহিদসহ ৭-৮ জনের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে ব্যাংক ম্যানজার কচি সিকদার জানান, আমরা সবাই নিরাত্তহীনতায় ভুগছি। যে কোনো সময় আমার ওপর হামলা হতে পারে।

এ ব্যাপারে আড়াইহাজার থানার ওসি আনিচুর রহমান মোল্লা জানান, এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। আসামি গ্রেফতারের জন্য চেষ্টা চলছে।

এদিকে মামলার পর চেয়ারম্যানসহ তার পরিবারের সবাই পলাতক থাকায় সজিবুল ইসলামের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

কিস্তির টাকা চাওয়ায় ব্যাংক কর্মকর্তাকে পেটালেন চেয়ারম্যানের ভাই

 নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি 
১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:০৪ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

আড়াইহাজার উপজেলায় ব্যাংক ঋণের কিস্তির টাকা চাওয়ায় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের ভাই ও সন্ত্রাসীদের হাতে বেদম মারধরের শিকার হয়েছেন একটি ব্যাংকের ডেপুটি ম্যানেজার মনিরুল ইসলাম। এ সময় স্বামীকে রক্ষা করতে আসা মনিরুলের স্ত্রীকেও বেদম প্রহার করে সন্ত্রাসীরা।

বুধবার রাত সাড়ে ৮টায় উপজেলার লাসারদী দিঘীরপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। দুর্বৃত্তদের আঘাতে মনিরুল ইসলামের এক চোখ নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

আহত মনিরুল ইসলাম জানান, আড়াইহাজার বাজারের দুবাই প্লাজা মার্কেটের জাকির খান কম্পিউটার অ্যান্ড ট্রেনিং সেন্টারের মালিক জাকির খান এক বছর আগে এনআরবিসি ব্যাংক আড়াইহাজার উপজেলা শাখা থেকে তিন লাখ টাকা ঋণ নেন। তার ঋণের জামিনদার হন খাগকান্দা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরিফুলের মা তাছলিমা আক্তার ও ভাই সজিবুল ইসলাম।

তিনি জানান, কয়েক মাস ধরে তারা কিস্তি দেওয়া বন্ধ করে দেন। ৪-৫ মাসের অপরিশোধিত কিস্তির টাকার জন্য গত বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে দুবাই প্লাজায় জাকির খানের কাছে যান এনআরবিসি ব্যাংকের ম্যানেজার কচি শিকদার, ক্রেডিট অফিসার আজহারুল হক ও মনিরুল ইসলাম। জাকির খানের কাছে কয়েক মাসের বকেয়া ও চলতি কিস্তি চাইলে ব্যাংকের তিন কর্মকর্তার ওপর উত্তেজিত হয়ে উঠেন জাকির খান।

এ সময় জাকির খানের পক্ষ নিয়ে খাগকান্দা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরিফুলের মা তাছলিমা আক্তার তাদের অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করেন এবং তাদের মারতে উদ্যত হন। পরে ব্যাংকে ফিরে যান কর্মকর্তারা। বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ব্যাংক কর্মকতা মনিরুল ইসলামকে বাসা থেকে ডেকে পাশের রাস্তায় নিয়ে আসেন চেয়ারম্যান আরিফুলের ভাই সজিবুল ইসলাম।

আহত মনিরুল জানান, এ সময় সজিবের সঙ্গে আসা ৭-৮ জন দুর্বৃত্ত হকিস্টিক, লোহার রড ও ধারালো ছোরা নিয়ে তার ওপর হামলা করে। এ সময় সন্ত্রাসীরা লোনের টাকা আর যেন চাইতে না যাই সে কথা বলতে থাকে।

মনিরুল ইসলামকে মারধরের সময় তার স্ত্রী আয়েশা বানু (৩০) এগিয়ে এলে তাকেও লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে আহত করা হয়। একপর্যায়ে স্বামী-স্ত্রীর ডাকচিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে দুর্বৃত্তরা হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যায়।

পরে মনিরুল ইসলামকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে তার চোখের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে দ্রুত সেখান থেকে জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এ ব্যাপারে ডেপুটি ম্যানেজার মনিরুল ইসলাম বাদী হয়ে সজিবুল ইসলাম ওরফে সজিব ও তার মা তাছলিমা আক্তার, জাকির খান, মুজাহিদসহ ৭-৮ জনের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে ব্যাংক ম্যানজার কচি সিকদার জানান, আমরা সবাই নিরাত্তহীনতায় ভুগছি। যে কোনো সময় আমার ওপর হামলা হতে পারে।

এ ব্যাপারে আড়াইহাজার থানার ওসি আনিচুর রহমান মোল্লা জানান, এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। আসামি গ্রেফতারের জন্য চেষ্টা চলছে।

এদিকে মামলার পর চেয়ারম্যানসহ তার পরিবারের সবাই পলাতক থাকায় সজিবুল ইসলামের কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন