যৌনপল্লীতে সংশ্লিষ্টতা, যুবলীগ নেতা বহিষ্কার
jugantor
যৌনপল্লীতে সংশ্লিষ্টতা, যুবলীগ নেতা বহিষ্কার

  গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি  

১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:৪৫:৪৯  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জুলহাস মোল্লাকে (৪০) তার দলীয় পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। যৌনপল্লীতে সংশ্লিষ্টতা, চাঁদাবাজি, অসামাজিক কার্যকলাপের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

শুক্রবার দুপুরে গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি ইউনুস হোসেন মোল্লা ও সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সালু যৌথ স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দৌলতদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগ ইতিপূর্বে জুলহাস মোল্লার প্রতি অনাস্থা এনেছে। এছাড়া তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি, অসামাজিক কার্যকলাপে লিপ্ত থাকা ও দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগ রয়েছে। এজন্য গোয়ালন্দ উপজেলা যুবলীগ এক জরুরি সিদ্ধান্তে তাকে তার দলীয় পদ থেকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে।

এ প্রসঙ্গে বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক জুলহাস মোল্লা দাবি করেন, বহিষ্কারের বিষয়ে তিনি কোনো পত্র পাননি। তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলোর বিষয়ে তাকে কোনো শোকজও করা হয়নি। বহিষ্কার অগঠনতান্ত্রিকভাবে করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলো সম্পূর্ণ মিথ্যা দাবি করেন তিনি।

এ বিষয়ে গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি ও রাজবাড়ী জেলা পরিষদ সদস্য মো. ইউনুছ মোল্লা বলেন, কেন্দ্রীয় যুবলীগের ভিশন বাস্তবায়নে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের অনাস্থা, চাঁদাবাজি, অসামাজিক কার্যকলাপে লিপ্ত থাকা ও দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে মো. জুলহাস মোল্লাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

তিনি বলেন, তার বিরুদ্ধে দৌলতদিয়া ঘাটে পণ্যবাহী বিভিন্ন যানবাহনে চাঁদাবাজি, দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে তার নিজস্ব বাড়ি থাকা, নিয়মিত মাদক গ্রহণসহ বিভিন্ন অসামাজিক কার্যকলাপের অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া দৌলতদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগ তার বিরুদ্ধে অনাস্থা জানিয়েছে। তার বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজের যথাযথ প্রমাণও আমাদের কাছে রয়েছে। এসব বিষয়ে আমি তাকে ইতোপূর্বে অনেকবার সতর্ক করেছি। কিন্তু তাতে সে কোনো কর্ণপাত করেনি।

যৌনপল্লীতে সংশ্লিষ্টতা, যুবলীগ নেতা বহিষ্কার

 গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি 
১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৪৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জুলহাস মোল্লাকে (৪০) তার দলীয় পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। যৌনপল্লীতে সংশ্লিষ্টতা, চাঁদাবাজি, অসামাজিক কার্যকলাপের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

শুক্রবার দুপুরে  গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি ইউনুস হোসেন মোল্লা ও সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সালু যৌথ স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেন। 

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দৌলতদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগ ইতিপূর্বে জুলহাস মোল্লার প্রতি অনাস্থা এনেছে। এছাড়া তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি, অসামাজিক কার্যকলাপে লিপ্ত থাকা ও দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগ রয়েছে। এজন্য গোয়ালন্দ উপজেলা যুবলীগ এক জরুরি সিদ্ধান্তে তাকে তার দলীয় পদ থেকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে।

এ প্রসঙ্গে বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক জুলহাস মোল্লা দাবি করেন, বহিষ্কারের বিষয়ে তিনি কোনো পত্র পাননি। তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলোর বিষয়ে তাকে কোনো শোকজও করা হয়নি। বহিষ্কার অগঠনতান্ত্রিকভাবে করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলো সম্পূর্ণ মিথ্যা দাবি করেন তিনি। 

এ বিষয়ে গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি ও রাজবাড়ী জেলা পরিষদ সদস্য মো. ইউনুছ মোল্লা বলেন, কেন্দ্রীয় যুবলীগের ভিশন বাস্তবায়নে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের অনাস্থা, চাঁদাবাজি, অসামাজিক কার্যকলাপে লিপ্ত থাকা ও দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে মো. জুলহাস মোল্লাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

তিনি বলেন, তার বিরুদ্ধে দৌলতদিয়া ঘাটে পণ্যবাহী বিভিন্ন যানবাহনে চাঁদাবাজি, দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে তার নিজস্ব বাড়ি থাকা, নিয়মিত মাদক গ্রহণসহ বিভিন্ন অসামাজিক কার্যকলাপের অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া দৌলতদিয়া ইউনিয়ন যুবলীগ তার বিরুদ্ধে অনাস্থা জানিয়েছে। তার বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজের যথাযথ প্রমাণও আমাদের কাছে রয়েছে। এসব বিষয়ে আমি তাকে ইতোপূর্বে অনেকবার সতর্ক করেছি। কিন্তু তাতে সে কোনো কর্ণপাত করেনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন