শত কোটি টাকা মেরে ১০ বছর পলাতক, ব্যবসায়ী গ্রেফতার
jugantor
শত কোটি টাকা মেরে ১০ বছর পলাতক, ব্যবসায়ী গ্রেফতার

  চট্টগ্রাম ব্যুরো  

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:৩৯:৪৪  |  অনলাইন সংস্করণ

শত কোটি টাকা মেরে ১০ বছর পলাতক, ব্যবসায়ী গ্রেফতার

দীর্ঘ প্রায় দশ বছর পালিয়ে থাকার পর ব্যাংকের শত কোটি টাকা আত্মসাৎ মামলার আসামি সাজাপ্রাপ্ত আসামি হোসাইন হায়দার আলীকে গ্রেফতার করেছে কোতোয়ালী থানা পুলিশ।

শুক্রবার রাতে ঢাকার ভাটারা থানা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম আদালতে ১০টির মতো সিআর মামলার সাজা ও গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। তার বাড়ি চট্টগ্রামের কোতোয়ালী থানার লাভলেইন এলাকায়।

পুলিশ জানায়, আসামি হোসাইন হায়দার আলী ‘মেসার্স জুবলী ট্রেডার্স’ নামে একটি প্রতিষ্ঠানের মালিক ছিলেন। তিনি ২০১২ সালে বিভিন্ন ব্যাংক থেকে প্রায় ১০০ কোটি টাকা ঋণ নেন। ঋণের নামে নেওয়া টাকা আত্মসাৎ করে তিনি আত্মগোপনে চলে যান। বিভিন্ন ব্যাংক তার বিরুদ্ধে আদালতে সিআর মামলা দায়ের করে। ওই মামলাগুলোর বিচারকার্য শেষে আদালত বিভিন্ন মামলায় হায়দারকে প্রায় ১০০ কোটি টাকার অর্থদণ্ড প্রদান করেন। একইসঙ্গে আসামির সাজা ও গ্রেফতারি পরোয়ানা ইস্যু করেন আদালত।

কোতোয়ালী থানার ওসি নেজাম উদ্দিন যুগান্তরকে বলেন, আসামি ব্যাংকের টাকা আত্মসাৎ করে ১০ বছর আগে ঢাকায় ব্যবসা শুরু করেন। এরপর গ্রেফতার এড়াতে দেশের বিভিন্ন স্থানে আত্মগোপনে থাকতেন। আমাদের টিম আদালতের পরোয়ানা ইস্যুকৃত এই আসামিকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে।

শত কোটি টাকা মেরে ১০ বছর পলাতক, ব্যবসায়ী গ্রেফতার

 চট্টগ্রাম ব্যুরো 
১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:৩৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
শত কোটি টাকা মেরে ১০ বছর পলাতক, ব্যবসায়ী গ্রেফতার
প্রতীকী ছবি

দীর্ঘ প্রায় দশ বছর পালিয়ে থাকার পর ব্যাংকের শত কোটি টাকা আত্মসাৎ মামলার আসামি সাজাপ্রাপ্ত আসামি হোসাইন হায়দার আলীকে গ্রেফতার করেছে কোতোয়ালী থানা পুলিশ। 

শুক্রবার রাতে ঢাকার ভাটারা থানা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।  তার বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম আদালতে ১০টির মতো সিআর মামলার সাজা ও গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। তার বাড়ি চট্টগ্রামের কোতোয়ালী থানার লাভলেইন এলাকায়। 

পুলিশ জানায়, আসামি হোসাইন হায়দার আলী ‘মেসার্স জুবলী ট্রেডার্স’ নামে একটি প্রতিষ্ঠানের মালিক ছিলেন। তিনি ২০১২ সালে বিভিন্ন ব্যাংক থেকে প্রায় ১০০ কোটি টাকা ঋণ নেন। ঋণের নামে নেওয়া টাকা আত্মসাৎ করে তিনি আত্মগোপনে চলে যান। বিভিন্ন ব্যাংক তার বিরুদ্ধে আদালতে সিআর মামলা দায়ের করে।  ওই মামলাগুলোর বিচারকার্য শেষে আদালত বিভিন্ন মামলায় হায়দারকে প্রায় ১০০ কোটি টাকার অর্থদণ্ড প্রদান করেন। একইসঙ্গে আসামির সাজা ও গ্রেফতারি পরোয়ানা ইস্যু করেন আদালত।

কোতোয়ালী থানার ওসি নেজাম উদ্দিন যুগান্তরকে বলেন, আসামি ব্যাংকের টাকা আত্মসাৎ করে ১০ বছর আগে ঢাকায় ব্যবসা শুরু করেন। এরপর গ্রেফতার এড়াতে দেশের বিভিন্ন স্থানে আত্মগোপনে থাকতেন। আমাদের টিম আদালতের পরোয়ানা ইস্যুকৃত এই আসামিকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন