দুর্গাপুরে হতদরিদ্রদের মানববন্ধন
jugantor
দুর্গাপুরে হতদরিদ্রদের মানববন্ধন

  দুর্গাপুর (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি  

২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:৫৬:১৯  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনার দুর্গাপুর পৌরসভার তেরিবাজার এলাকায় ৫০ বছর ধরে সরকারি ভূমিতে বসবাসরত ১৫০টি নিম্নআয়ের পরিবার সরকারি ভূমির কর দিয়েও মাথা গোঁজার ঠাঁই থেকে বঞ্চিত হতে চলেছেন।

এসব পরিবারের সদস্যরা রোববার সকালে উপজেলা পরিষদ চত্বরে মানববন্ধন করেছেন।

মানববন্ধন কর্মসূচির সমন্বয়কারী মো. শাজাহান সরকার বলেন, আমরা ১৯৬৫ সাল থেকে তেরিবাজার এলাকায় সরকারের কাছ থেকে প্রাথমিক বন্দোবস্ত গ্রহণের মাধ্যমে প্রতি শতক ভূমি ২০ টাকা হারে কর পরিশোধ করে বসবাস করে আসছি।

কিন্তু ভূমি মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপন মোতাবেক এখন থেকে প্রতি শতকের কর ৬ হাজার ৫২৫ টাকা হারে পরিশোধ করতে বলা হলে আমাদের মতো খেটে খাওয়া মানুষরা চরম বিপাকে পড়ে গেছি।

করোনা প্রেক্ষাপটে সারাদেশে নিম্নআয়ের মানুষরা কাজ হারিয়ে এমনিতেই বিপাকে পড়েছেন, তার ওপর এ বাড়তি করের বোঝা আমাদের কাছে মড়ার উপর খাঁড়ার ঘার মতো।

করোনাকালে সরকার বাসা ভাড়া, বিদ্যুৎ বিল ও ব্যাংকঋণের কিস্তি সাময়িক মওকুপসহ নানাভাবে প্রণোদনা দিলেও আমাদের ভাগ্যে জোটেনি এসবের কোনো কিছুই। কোনো রকম দিনাতিপাত করে খেয়ে না খেয়ে সুদের ওপর টাকা এনে প্রতিশতক ৬ হাজার ৫২৫ টাকা হারে কর পরিশোধ করতে হয়েছে।

অর্পিত সম্পত্তির খাত থেকে জমিগুলোকে সরকারের খাস খতিয়ান খাতে এনে আমাদের মাথা গোঁজার ঠাঁইগুলোর স্থায়ী ব্যবস্থা করে দিতে প্রধানমন্ত্রী ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়সহ সরকারের ঊর্ধ্বতন মহলের কাছে আকুল আবেদন জানাই।

মানববন্ধনে খেটে খাওয়া নিম্ন আয়ের মানুষের পক্ষে বক্তব্য রাখেন মো. রুস্তম আলী, মো. বাবুল ভাণ্ডারি, খুদিরাম সাহা, জোবেদা খাতুন, মো. মুকুল ভাণ্ডারি, মো. নাজিম উদ্দিন, আয়েশা খাতুন, মোশারফ সরকার, সঞ্জিবন সরকার, শাজাহান মিয়া, জব্বার আলী, রহিমা খাতুন প্রমুখ।

পরে স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর এক স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

দুর্গাপুরে হতদরিদ্রদের মানববন্ধন

 দুর্গাপুর (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি 
২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৫৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নেত্রকোনার দুর্গাপুর পৌরসভার তেরিবাজার এলাকায় ৫০ বছর ধরে সরকারি ভূমিতে বসবাসরত ১৫০টি নিম্নআয়ের পরিবার সরকারি ভূমির কর দিয়েও মাথা গোঁজার ঠাঁই থেকে বঞ্চিত হতে চলেছেন।

এসব পরিবারের সদস্যরা রোববার সকালে উপজেলা পরিষদ চত্বরে মানববন্ধন করেছেন।  

মানববন্ধন কর্মসূচির সমন্বয়কারী মো. শাজাহান সরকার বলেন, আমরা ১৯৬৫ সাল থেকে তেরিবাজার এলাকায় সরকারের কাছ থেকে প্রাথমিক বন্দোবস্ত গ্রহণের মাধ্যমে প্রতি শতক ভূমি ২০ টাকা হারে কর পরিশোধ করে বসবাস করে আসছি।

কিন্তু ভূমি মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপন মোতাবেক এখন থেকে প্রতি শতকের কর ৬ হাজার ৫২৫ টাকা হারে পরিশোধ করতে বলা হলে আমাদের মতো খেটে খাওয়া মানুষরা চরম বিপাকে পড়ে গেছি।

করোনা প্রেক্ষাপটে সারাদেশে নিম্নআয়ের মানুষরা কাজ হারিয়ে এমনিতেই বিপাকে পড়েছেন, তার ওপর এ বাড়তি করের বোঝা আমাদের কাছে মড়ার উপর খাঁড়ার ঘার মতো।

করোনাকালে সরকার বাসা ভাড়া, বিদ্যুৎ বিল ও ব্যাংকঋণের কিস্তি সাময়িক মওকুপসহ নানাভাবে প্রণোদনা দিলেও আমাদের ভাগ্যে জোটেনি এসবের কোনো কিছুই। কোনো রকম দিনাতিপাত করে খেয়ে না খেয়ে সুদের ওপর টাকা এনে প্রতিশতক ৬ হাজার ৫২৫ টাকা হারে কর পরিশোধ করতে হয়েছে।

অর্পিত সম্পত্তির খাত থেকে জমিগুলোকে সরকারের খাস খতিয়ান খাতে এনে আমাদের মাথা গোঁজার ঠাঁইগুলোর স্থায়ী ব্যবস্থা করে দিতে প্রধানমন্ত্রী ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়সহ সরকারের ঊর্ধ্বতন মহলের কাছে আকুল আবেদন জানাই।

মানববন্ধনে খেটে খাওয়া নিম্ন আয়ের মানুষের পক্ষে বক্তব্য রাখেন মো. রুস্তম আলী, মো. বাবুল ভাণ্ডারি, খুদিরাম সাহা, জোবেদা খাতুন, মো. মুকুল ভাণ্ডারি, মো. নাজিম উদ্দিন, আয়েশা খাতুন, মোশারফ সরকার, সঞ্জিবন সরকার, শাজাহান মিয়া, জব্বার আলী, রহিমা খাতুন প্রমুখ।

পরে স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর এক স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন