নবীগঞ্জে নবগঠিত-ছাত্রলীগের কমিটিতে পদত্যাগের হিড়িক
jugantor
নবীগঞ্জে নবগঠিত-ছাত্রলীগের কমিটিতে পদত্যাগের হিড়িক

  নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২১:৩৭:৩১  |  অনলাইন সংস্করণ

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের দীঘলবাক, করগাঁও, দেবপাড়া, গজনাইপুর ও পানিউমদা ইউনিয়ন কমিটি গঠিত হয়েছে। নবগঠিত কমিটি থেকে পদত্যাগের হিড়িক পড়েছে। এ পর্যন্ত সহভাপতি, সংগঠনিক সম্পাদকসহ ৯ জন পদত্যাগ করেছেন। কমিটিতে রয়েছেন বিবাহিত ও যুবলীগ নেতারাও।

গত ১৬ সেপ্টেম্বর নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহ ফয়ছল তালুকদার ও সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান রাজুস্বাক্ষরিত ছাত্রলীগের অফিশিয়াল প্যাডে ছাত্রলীগের দীঘলবাক ইউনিয়ন, করগাঁও ইউনিয়ন, দেবপাড়া ইউনিয়ন, গজনাইপুর ইউনিয়ন ও পানিউমদা ইউনিয়ন কমিটির অনুমোদন দেওয়া হয়।

কিন্তু নবগঠিত দেবপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি থেকে সহসভাপতি নুরুল আমিন রিয়ান, সাংগঠনিক সম্পাদক মিশন চন্দ্র, গ্রন্থনাও প্রকাশনা সম্পাদক সুবেল তালুকদার; পানিউমদা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি থেকে সহসভাপতি কামাল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক আতাউর রহমান, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক মো. কুদ্দুছ মিয়া, সহ সম্পাদক শাহ নাঈম আহমেদ; গজনাইপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি থেকে সাংগঠিক সম্পাদক নাফিউর রহমান নাফি, সাংগঠনিক সম্পাদক অপি চৌধুরী পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন।


এ বিষয়ে নবগঠিত দেবপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটির সহসভাপতি পদ থেকে পদত্যাগকারী নুরুল আমিন রিয়ান বলেন, দীর্ঘদিন ধরে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। আমি দেবপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি প্রার্থী ছিলাম, কিন্তু উপজেলা ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ অর্থের বিনিময় বিএনপি-জামাত-শিবিরের কর্মী-সমর্থক ও বিবাহিতদের দিয়ে কমিটি গঠন করেছে। সেই কমিটিতে আমাকে অবমূল্যায়ন করে সহ-সভাপতি রাখা হয়েছে।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সঙ্গে বেঈমানি করে জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অমান্য করে বিএনপি-জামাত-শিবিরের কর্মী ও বিবাহিতদের দিয়ে অর্থের বিনিময় কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাই আমি সহ-সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করেছি। ফেসবুকে ঘোষণা দিয়ে পদত্যাগ করেছেন জানিয়ে তিনি বলেন, শিগগিরই জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি-সম্পাদকের নিকট লিখিত পদত্যাগপত্র জমা দেব।

পানিউমদা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটির সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক মো. কুদ্দুছ মিয়া বলেন, আমি বাল্যকাল থেকে ছাত্র রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। পূর্বে আমি পানিউমদা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি, বতর্মান যুবলীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। কে বা কারা নতুন কমিটিতে আমাকে সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক হিসেবে রেখেছে। এটা অপমানজনক, তাই আমি স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেছি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ইউনিয়ন ছাত্রলীগ নেতা জানান, ৯-১০ জন পদত্যাগ করেছেন। আরও অনেকেই পদত্যাগ করবেন, লিখিত আকারে জেলা ছাত্রলীগের কাছে জমা দিবেন।

এ প্রসঙ্গে নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহ ফয়ছল তালুকদার বলেন, ছাত্রলীগ একটি বিশাল সংগঠন। যদি ছাত্রলীগের কমিটিতে বিবাহিত কিংবা অন্য দলের কেউ দায়িত্ব পেয়ে থাকে অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তিনি বলেন, স্বচ্ছতা নিশ্চিত করে কমিটিগুলো অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। অর্থের মাধ্যমে কমিটি দেওয়ার বিষয়টি সম্পূর্ণ মিথ্যা-বানোয়াট।

শাহ ফয়ছল তালুকদার বলেন, ভুলবশত পানিউমদা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটির সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক পদে মো. কমর মিয়ার স্থলে মো. কুদ্দুছ মিয়া লেখাহয়েছে। পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের সময় নাম সংশোধন করা হবে। তিনি আরও বলেন, একটি কমিটিতে পদ প্রত্যাশী থাকেন অনেকে। সবাইকে এক পদে বসানো যায়না, সবাই যোগ্য। হয়তো মনের কষ্টে ভুল বুঝে কিংবা পদ না পেয়ে তারা পদত্যাগ করেছেন। তবে শিগগিরই এসব ভুল বোঝাবুঝির অবসান হবে এবং তারা ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করবেন বলে প্রত্যাশা করেন তিনি।

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাইদুর রহমান বলেন, নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ বিভিন্ন ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি গঠন করেছেন। সেই কমিটিগুলো থেকে নেতাকর্মীরা পদত্যাগ করেছেন বিষয়টি আমার জানা নেই। আমার কাছে এখনো কেউ লিখিত পদত্যাগপত্র জমা দেয়নি।

নবীগঞ্জে নবগঠিত-ছাত্রলীগের কমিটিতে পদত্যাগের হিড়িক

 নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:৩৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের দীঘলবাক, করগাঁও, দেবপাড়া, গজনাইপুর ও পানিউমদা ইউনিয়ন কমিটি গঠিত হয়েছে। নবগঠিত কমিটি থেকে পদত্যাগের হিড়িক পড়েছে। এ পর্যন্ত সহভাপতি, সংগঠনিক সম্পাদকসহ ৯ জন পদত্যাগ করেছেন। কমিটিতে রয়েছেন বিবাহিত ও যুবলীগ নেতারাও। 

গত ১৬ সেপ্টেম্বর নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহ ফয়ছল তালুকদার ও সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান রাজু স্বাক্ষরিত ছাত্রলীগের অফিশিয়াল প্যাডে ছাত্রলীগের দীঘলবাক ইউনিয়ন, করগাঁও ইউনিয়ন, দেবপাড়া ইউনিয়ন, গজনাইপুর ইউনিয়ন ও পানিউমদা ইউনিয়ন কমিটির অনুমোদন দেওয়া হয়। 

কিন্তু নবগঠিত দেবপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি থেকে সহসভাপতি নুরুল আমিন রিয়ান, সাংগঠনিক সম্পাদক মিশন চন্দ্র, গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক সুবেল তালুকদার; পানিউমদা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি থেকে সহসভাপতি কামাল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক আতাউর রহমান, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক মো. কুদ্দুছ মিয়া, সহ সম্পাদক শাহ নাঈম আহমেদ; গজনাইপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি থেকে সাংগঠিক সম্পাদক নাফিউর রহমান নাফি, সাংগঠনিক সম্পাদক অপি চৌধুরী পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন। 


এ বিষয়ে নবগঠিত দেবপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটির সহসভাপতি পদ থেকে পদত্যাগকারী নুরুল আমিন রিয়ান বলেন, দীর্ঘদিন ধরে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। আমি দেবপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি প্রার্থী ছিলাম, কিন্তু উপজেলা ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ অর্থের বিনিময় বিএনপি-জামাত-শিবিরের কর্মী-সমর্থক ও বিবাহিতদের দিয়ে কমিটি গঠন করেছে। সেই কমিটিতে আমাকে অবমূল্যায়ন করে সহ-সভাপতি রাখা হয়েছে।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সঙ্গে বেঈমানি করে জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অমান্য করে বিএনপি-জামাত-শিবিরের কর্মী ও বিবাহিতদের দিয়ে অর্থের বিনিময় কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাই আমি সহ-সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করেছি। ফেসবুকে ঘোষণা দিয়ে পদত্যাগ করেছেন জানিয়ে তিনি বলেন, শিগগিরই জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি-সম্পাদকের নিকট লিখিত পদত্যাগপত্র জমা দেব। 

পানিউমদা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটির সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক মো. কুদ্দুছ মিয়া বলেন, আমি বাল্যকাল থেকে ছাত্র রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। পূর্বে আমি পানিউমদা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি, বতর্মান যুবলীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। কে বা কারা নতুন কমিটিতে আমাকে সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক হিসেবে রেখেছে। এটা অপমানজনক, তাই আমি স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেছি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ইউনিয়ন ছাত্রলীগ নেতা জানান, ৯-১০ জন পদত্যাগ করেছেন। আরও অনেকেই পদত্যাগ করবেন, লিখিত আকারে জেলা ছাত্রলীগের কাছে জমা দিবেন।

এ প্রসঙ্গে নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহ ফয়ছল তালুকদার বলেন, ছাত্রলীগ একটি বিশাল সংগঠন। যদি ছাত্রলীগের কমিটিতে বিবাহিত কিংবা অন্য দলের কেউ দায়িত্ব পেয়ে থাকে অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। তিনি বলেন, স্বচ্ছতা নিশ্চিত করে কমিটিগুলো অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। অর্থের মাধ্যমে কমিটি দেওয়ার বিষয়টি সম্পূর্ণ মিথ্যা-বানোয়াট।

 শাহ ফয়ছল তালুকদার বলেন, ভুলবশত পানিউমদা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটির সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক পদে মো. কমর মিয়ার স্থলে মো. কুদ্দুছ মিয়া লেখা হয়েছে। পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের সময় নাম সংশোধন করা হবে। তিনি আরও বলেন, একটি কমিটিতে পদ প্রত্যাশী থাকেন অনেকে। সবাইকে এক পদে বসানো যায়না, সবাই যোগ্য। হয়তো মনের কষ্টে ভুল বুঝে কিংবা পদ না পেয়ে তারা পদত্যাগ করেছেন। তবে শিগগিরই এসব ভুল বোঝাবুঝির অবসান হবে এবং তারা ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করবেন বলে প্রত্যাশা করেন তিনি।

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাইদুর রহমান বলেন, নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ বিভিন্ন ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি গঠন করেছেন। সেই কমিটিগুলো থেকে নেতাকর্মীরা পদত্যাগ করেছেন বিষয়টি আমার জানা নেই। আমার কাছে এখনো কেউ লিখিত পদত্যাগপত্র জমা দেয়নি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন