শুদ্ধাচার সভা শেষে চেয়ারম্যানের এ কেমন আচরণ!
jugantor
শুদ্ধাচার সভা শেষে চেয়ারম্যানের এ কেমন আচরণ!

  হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি  

২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:৫৪:০০  |  অনলাইন সংস্করণ

চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল সভা শেষে উপজেলার ছিপাতলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে কিল-ঘুসি মারার অভিযোগ উঠেছে গুমানমর্দ্দন ইউপি চেয়ারম্যানের মুজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে।

মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে বাইরে ওই সভা শেষে এই ঘটনাটি ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ করেন ছিপাতলী ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আহসান লাভু।

চেয়ারম্যান নুরুল আহসান লাভু জানান, মঙ্গলবার উপজেলায় শুদ্ধাচার সভা শেষে সেখান থেকে বেরিয়ে আসার সময় ৩য় তলায় সিঁড়ির পাশে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলী ও দুনীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব অধ্যক্ষ ফরিদ আহমদের সঙ্গে আলাচারিত অবস্থায় অতর্কিতভাবে আমার বাম গালে গুমামমর্দ্দন ইউপি চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান কিল-ঘুষি মারে। বিষয়টি স্থানীয় এমপি, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিষয়টি অবহিত আছেন।

এ বিষয়ে গুমানমর্দ্দন ইউপি চেয়ারম্যান মো. মুজিবুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি যুগান্তরকে জানান, ছিপাতলী ইউনিয়নের ঈদগাহ উচ্চ এন্ড কলেজে মাঠ ভরাটে স্থানীয় এমপির ১ লাখ টাকার সরকারি অনুদান নিয়ে কাজ না করে আত্মসাৎ করেছেন। বিষয়টি নিয়ে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে ধস্তাধস্তি হয়েছে মাত্র। আমাদের মধ্যে একটা বিষয় নিয়ে ভুল বুঝাবুঝি হয়েছিল।

সরকারি অনুদান আত্মসাতের বিষয়টি সত্যতা জানতে চাইলে ঈদগাহ উচ্চ এন্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক মো. মতিয়ার রহমান জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. শাহিদুল আলম জানান, আমি শুদ্ধাচার সভার পরে আমার কার্যালয়ে চলে আসি। এরমধ্যে শুনেছি ছিপাতলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান চেয়ারম্যান নুরুল আহসান লাভুর শরীরে হাত তুলেছে গুমানমর্দ্দন ইউপি চেয়ারম্যানের মুজিবুর রহমান। বিষয়টি দুঃখজনক, তাই মুজিব চেয়ারম্যান উনার ভুল বুঝতে পেরে এ ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেছেন। পরে উপজেলা চেয়ারম্যান বিষয়টি সুরাহা করে দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এসএম রাশেদুল আলম জানান, স্কুলের একটা প্রজেক্ট নিয়ে বাড়াবাড়ির এক পর্যায়ে মুজিব চেয়ারম্যান লাভু চেয়ারম্যানের গায়ে হাত তোলেন। আমি ঘটনাটি শুনে দুজনকে আমার অফিসে এনে মিটমাট করে দিয়েছি। আশা করি তাদের মধ্যে আর কোনো ধরনের ভুল বুঝাবুঝি হবে না।

শুদ্ধাচার সভা শেষে চেয়ারম্যানের এ কেমন আচরণ!

 হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি 
২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:৫৪ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল সভা শেষে উপজেলার ছিপাতলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে কিল-ঘুসি মারার অভিযোগ উঠেছে গুমানমর্দ্দন ইউপি চেয়ারম্যানের মুজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে।

মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে বাইরে ওই সভা শেষে এই ঘটনাটি ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ করেন ছিপাতলী ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল আহসান লাভু।

চেয়ারম্যান নুরুল আহসান লাভু জানান, মঙ্গলবার উপজেলায় শুদ্ধাচার সভা শেষে সেখান থেকে বেরিয়ে আসার সময় ৩য় তলায় সিঁড়ির পাশে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলী ও দুনীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব অধ্যক্ষ ফরিদ আহমদের সঙ্গে আলাচারিত অবস্থায় অতর্কিতভাবে আমার বাম গালে গুমামমর্দ্দন ইউপি চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান কিল-ঘুষি মারে। বিষয়টি স্থানীয় এমপি, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিষয়টি অবহিত আছেন।

এ বিষয়ে গুমানমর্দ্দন ইউপি চেয়ারম্যান মো. মুজিবুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি যুগান্তরকে জানান, ছিপাতলী ইউনিয়নের ঈদগাহ উচ্চ এন্ড কলেজে মাঠ ভরাটে স্থানীয় এমপির ১ লাখ টাকার সরকারি অনুদান নিয়ে কাজ না করে আত্মসাৎ করেছেন। বিষয়টি নিয়ে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে ধস্তাধস্তি হয়েছে মাত্র। আমাদের মধ্যে একটা বিষয় নিয়ে ভুল বুঝাবুঝি হয়েছিল।

সরকারি অনুদান আত্মসাতের বিষয়টি সত্যতা জানতে চাইলে ঈদগাহ উচ্চ এন্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক মো. মতিয়ার রহমান জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. শাহিদুল আলম জানান, আমি শুদ্ধাচার সভার পরে আমার কার্যালয়ে চলে আসি। এরমধ্যে শুনেছি ছিপাতলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান চেয়ারম্যান নুরুল আহসান লাভুর শরীরে হাত তুলেছে গুমানমর্দ্দন ইউপি চেয়ারম্যানের মুজিবুর রহমান। বিষয়টি দুঃখজনক, তাই মুজিব চেয়ারম্যান উনার ভুল বুঝতে পেরে এ ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেছেন। পরে উপজেলা চেয়ারম্যান বিষয়টি সুরাহা করে দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এসএম রাশেদুল আলম জানান, স্কুলের একটা প্রজেক্ট নিয়ে বাড়াবাড়ির এক পর্যায়ে মুজিব চেয়ারম্যান লাভু চেয়ারম্যানের গায়ে হাত তোলেন। আমি ঘটনাটি শুনে দুজনকে আমার অফিসে এনে মিটমাট করে দিয়েছি। আশা করি তাদের মধ্যে আর কোনো ধরনের ভুল বুঝাবুঝি হবে না।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন