মায়ের লাশ দেখার অনুমতির জন্য থানায় সন্তানরা
jugantor
মায়ের লাশ দেখার অনুমতির জন্য থানায় সন্তানরা

  চুনারুঘাট ( হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:১০:১৬  |  অনলাইন সংস্করণ

দীর্ঘদিন রোগাক্রান্ত থাকার পর বুধবার বিকেলে মারা যান শাহনাজ কবীর (৩৮) নামে হবিগঞ্জের চুনারুঘাটের টেকেরঘাটের এক গৃহবধূ।

এ খবরেকিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব উপজেলার চন্ডিবের গ্রাম থেকে চুনারুঘাটের টেকেরঘাটে ছুটে যান শাহনাজ কবীরের স্বামী হুমায়ূন কবীর, মেয়ে শোভা আক্তার (২০), রোবা আক্তার (১৮) ছেলে সিয়াম মিয়া (১২) ওশশুর হাজী ওমর আলী।

কিন্তু তাদেরকে লাশ দেখতে দেওয়া হয়নি। স্বামী-সন্তানদেরকে লাশ দেখতে বাধা দেন শাহনাজ কবীরের বাবার বাড়ির স্বজনরা। এই ঘটনায় চুনারুঘাট থানায় মৌখিক অভিযোগ করেন সন্তানরা। একই সঙ্গে বিষয়টি চুনারুঘাটের ইউএনওকে জানিয়েছেন তারা।

বুধবার রাত ১১ টায় মৃত শাহনাজ কবীরের মেয়ে শোভা আক্তার বলেন, আমার মায়ের চিকিৎসা চলছিল। আমরা সেবাযত্ন করে আসছিলাম। কয়েকদিন হলো মাকে নানা বাড়ি নিয়ে আসা হলে তিনি মারা যান। আমরা লাশ দেখতে চাই এবং লাশটি বাবার বাড়ি নিয়ে মাটি দিতে চাই। কিন্তু নানা বাড়ির স্বজনরা এতে বাধা প্রদান করছেন। তাই থানা ও ইউএনও মহোদয়ের শরণাপন্ন হয়েছি।

চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সিদ্ধার্থ ভৌমিক বলেন, লাশ দেখতে কেউ যেন বাধা না দিতে পারে, এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে বলা হয়েছে। তিনি দ্রুত ব্যবস্থা নিবেন।

উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হুমায়ূন কবীর বলেন, ইউএনও মহোদয় আমাকে দায়িত্ব দিয়েছেন। আমিতাদেরকে লাশ দেখার ব্যবস্থা করে দিচ্ছি। রাত সোয়া ১২ টায় এ রিপোর্ট লেখাকালে সমঝোতা বৈঠক চলছিল।

মায়ের লাশ দেখার অনুমতির জন্য থানায় সন্তানরা

 চুনারুঘাট ( হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি  
২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:১০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দীর্ঘদিন রোগাক্রান্ত থাকার পর বুধবার বিকেলে মারা যান শাহনাজ কবীর (৩৮) নামে হবিগঞ্জের চুনারুঘাটের টেকেরঘাটের এক গৃহবধূ। 

এ খবরে কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব উপজেলার চন্ডিবের গ্রাম থেকে চুনারুঘাটের টেকেরঘাটে ছুটে যান শাহনাজ কবীরের স্বামী হুমায়ূন কবীর, মেয়ে শোভা আক্তার (২০), রোবা আক্তার (১৮) ছেলে সিয়াম মিয়া (১২) ও শশুর হাজী ওমর আলী। 

কিন্তু তাদেরকে লাশ দেখতে দেওয়া হয়নি। স্বামী-সন্তানদেরকে লাশ দেখতে বাধা দেন শাহনাজ কবীরের বাবার বাড়ির স্বজনরা। এই ঘটনায় চুনারুঘাট থানায় মৌখিক অভিযোগ করেন সন্তানরা। একই সঙ্গে বিষয়টি চুনারুঘাটের ইউএনওকে জানিয়েছেন তারা। 

বুধবার রাত ১১ টায় মৃত শাহনাজ কবীরের মেয়ে শোভা আক্তার বলেন, আমার মায়ের চিকিৎসা চলছিল। আমরা সেবাযত্ন করে আসছিলাম। কয়েকদিন হলো মাকে নানা বাড়ি নিয়ে আসা হলে তিনি মারা যান। আমরা লাশ দেখতে চাই এবং লাশটি বাবার বাড়ি নিয়ে মাটি দিতে চাই। কিন্তু নানা বাড়ির স্বজনরা এতে বাধা প্রদান করছেন। তাই থানা ও ইউএনও মহোদয়ের শরণাপন্ন হয়েছি।

চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সিদ্ধার্থ ভৌমিক বলেন, লাশ দেখতে কেউ যেন বাধা না দিতে পারে, এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে বলা হয়েছে। তিনি দ্রুত ব্যবস্থা নিবেন। 

উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হুমায়ূন কবীর বলেন, ইউএনও মহোদয় আমাকে দায়িত্ব দিয়েছেন। আমি তাদেরকে লাশ দেখার ব্যবস্থা করে দিচ্ছি।  রাত সোয়া ১২ টায় এ রিপোর্ট লেখাকালে সমঝোতা বৈঠক চলছিল।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন