ছেলের ঘুষিতে হাসপাতালে বাবা
jugantor
ছেলের ঘুষিতে হাসপাতালে বাবা

  কুমিল্লা প্রতিনিধি   

২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:৫৬:৩৫  |  অনলাইন সংস্করণ

পারিবারিক কলহের জেরে ছেলের ঘুষিতে নাক-মুখ ফেটে গুরুতর আহতাবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন বাবা।

ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার রাতে কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলার খিলা ইউনিয়নের তাহেরপুর গ্রামে। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, তাহেরপুর গ্রামের মোশাররফ হোসেন সম্পত্তি বিক্রি করে একমাত্র ছেলে দুলাল মিয়াকে ওমানে পাঠান। পাঁচ বছর প্রবাসে থাকার পর গত তিন মাস আগে দেশে ফিরে বিয়ে করেন দুলাল।

কয়েক দিন আগে দুলাল আবার ওমানে যাওয়ার জন্য বাবার কাছে টাকা চান। টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় বাবা ও ছেলের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়।

এ নিয়ে গ্রামে সালিশবৈঠকও হয়। বুধবার রাতে ফের দুজনের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে দুলাল তার বাবাকে লাঞ্ছিত করেন এবং এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি মারেন। এতে মোশাররফের নাক-মুখ দিয়ে রক্ত বের হয়।

পরে বাড়ির লোকজন তাকে হাসপাতালে ভর্তি করেন।

অভিযুক্ত দুলাল মিয়া বলেন, প্রবাসে পাঠানোর জন্য টাকা নিয়ে বাবার সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়েছে। বাবাকে আমি মারধর করিনি।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী মোশাররফ হোসেনের বোন কোহিনুর আক্তার বাদী হয়ে দুলাল মিয়ার বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার থানায় অভিযোগ করেছেন।

মনোহরগঞ্জ থানার ওসি মাহবুবুল কবির যুগান্তরকে বলেন, আহত মোশাররফ হোসেনের বোন কোহিনুর আক্তার বাদী হয়ে দুলালের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

ছেলের ঘুষিতে হাসপাতালে বাবা

 কুমিল্লা প্রতিনিধি  
২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:৫৬ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পারিবারিক কলহের জেরে ছেলের ঘুষিতে নাক-মুখ ফেটে গুরুতর আহতাবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন বাবা।

ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার রাতে কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলার খিলা ইউনিয়নের তাহেরপুর গ্রামে। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, তাহেরপুর গ্রামের মোশাররফ হোসেন সম্পত্তি বিক্রি করে একমাত্র ছেলে দুলাল মিয়াকে ওমানে পাঠান। পাঁচ বছর প্রবাসে থাকার পর গত তিন মাস আগে দেশে ফিরে বিয়ে করেন দুলাল। 

কয়েক দিন আগে দুলাল আবার ওমানে যাওয়ার জন্য বাবার কাছে টাকা চান। টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় বাবা ও ছেলের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। 

এ নিয়ে গ্রামে সালিশবৈঠকও হয়। বুধবার রাতে ফের দুজনের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে দুলাল তার বাবাকে লাঞ্ছিত করেন এবং এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি মারেন। এতে মোশাররফের নাক-মুখ দিয়ে রক্ত বের হয়। 

পরে বাড়ির লোকজন তাকে হাসপাতালে ভর্তি করেন। 

অভিযুক্ত দুলাল মিয়া বলেন, প্রবাসে পাঠানোর জন্য টাকা নিয়ে বাবার সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়েছে। বাবাকে আমি মারধর করিনি। 

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী মোশাররফ হোসেনের বোন কোহিনুর আক্তার বাদী হয়ে দুলাল মিয়ার বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার থানায় অভিযোগ করেছেন। 

মনোহরগঞ্জ থানার ওসি মাহবুবুল কবির যুগান্তরকে বলেন, আহত মোশাররফ হোসেনের বোন কোহিনুর আক্তার বাদী হয়ে দুলালের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন