শিশু সন্তান কেড়ে নেওয়ায় গৃহবধূর আত্মহত্যা
jugantor
শিশু সন্তান কেড়ে নেওয়ায় গৃহবধূর আত্মহত্যা

  মদন (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি  

২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৫৭:৪৩  |  অনলাইন সংস্করণ

আত্মহত্যা,

শিশু সন্তান জোরপূর্বক কেড়ে নেওয়ায় স্বামীর সঙ্গেঅভিমান করে হালিমা আক্তার (২৩) নামে এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার উপজেলার কাইটাইল ইউনিয়নে জঙ্গলটেঙ্গা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ২নং চানগাঁও ইউনিয়নে শাহাপুর গ্রামের রিকুলের ছেলে সঙ্গে ৫ বছর আগে কাইটাইল ইউনিয়নের জঙ্গলটেঙ্গা গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের মেয়ে হালিমা আক্তারের বিয়ে হয়। তামীম নামে তাদের দু’বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে।

স্বামী টিপু মিয়া গোপনে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। প্রথম স্ত্রী হালিমা বিষয়টি জেনে যান। এ নিয়ে তাদের মধ্যে দীর্ঘ দিন যাবত পারিবারিক কলহ লেগেই ছিল।

বুধবার টিপু মিয়ারদ্বিতীয় স্ত্রীর একটি বাচ্চাহয়। এ নিয়েপ্রথম স্ত্রী হালিমা স্বামীর সঙ্গে ঝগড়া করে গ্রামের বাড়ি জঙ্গলটেঙ্গায় চলে যান।

বৃহস্পতিবার স্বামী টিপু মিয়া প্রথম স্ত্রী হালিমার নিকট থেকে জোরপূর্বক তার পুত্রসন্তান তামিমকে কেড়ে নিয়ে আসে। হালিমা অনেক পথ পিছু নিলেও পুত্রসন্তানকে তার নিকট রাখতে পারেননি। পরে অভিমান করে বাবার বাড়ি গিয়ে নিজ ঘরের আড়ার সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি। বিষয়টি এলাকাবাসী জানতে পেরে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করেময়না তদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

ঘটনার বিষয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সাফায়েত উল্লাহ রয়েল বলেন, বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণেরসুপারিশ করছি।

মদন থানার ওসি ফেরদৌস আলম জানান, লাশ ময়না তদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগপেলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শিশু সন্তান কেড়ে নেওয়ায় গৃহবধূর আত্মহত্যা

 মদন (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি 
২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:৫৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
আত্মহত্যা,
প্রতীকী ছবি

শিশু সন্তান জোরপূর্বক কেড়ে নেওয়ায় স্বামীর সঙ্গে অভিমান করে হালিমা আক্তার (২৩) নামে এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার উপজেলার কাইটাইল ইউনিয়নে জঙ্গলটেঙ্গা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
 
পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ২নং চানগাঁও ইউনিয়নে শাহাপুর গ্রামের রিকুলের ছেলে সঙ্গে ৫ বছর আগে কাইটাইল ইউনিয়নের জঙ্গলটেঙ্গা গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের মেয়ে হালিমা আক্তারের বিয়ে হয়। তামীম নামে তাদের দু’বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে। 

স্বামী টিপু মিয়া গোপনে দ্বিতীয় বিয়ে করেন। প্রথম স্ত্রী হালিমা বিষয়টি জেনে যান। এ নিয়ে তাদের মধ্যে দীর্ঘ দিন যাবত পারিবারিক কলহ লেগেই ছিল।

বুধবার টিপু মিয়ার দ্বিতীয় স্ত্রীর একটি বাচ্চা হয়। এ নিয়ে প্রথম স্ত্রী হালিমা স্বামীর সঙ্গে ঝগড়া করে গ্রামের বাড়ি জঙ্গলটেঙ্গায় চলে  যান।  

বৃহস্পতিবার স্বামী টিপু মিয়া প্রথম স্ত্রী হালিমার নিকট থেকে জোরপূর্বক তার পুত্রসন্তান তামিমকে কেড়ে নিয়ে আসে। হালিমা অনেক পথ পিছু নিলেও পুত্রসন্তানকে তার নিকট রাখতে পারেননি। পরে অভিমান করে বাবার বাড়ি গিয়ে নিজ ঘরের আড়ার সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি। বিষয়টি এলাকাবাসী জানতে পেরে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

ঘটনার বিষয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সাফায়েত উল্লাহ রয়েল বলেন, বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করছি। 

মদন থানার ওসি ফেরদৌস আলম জানান, লাশ ময়না তদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন