চিকিৎসক সংকটের চিত্র দেখে অবাক স্বাস্থ্য সচিব
jugantor
চিকিৎসক সংকটের চিত্র দেখে অবাক স্বাস্থ্য সচিব

  বরিশাল ব্যুরো  

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:২৭:৪৫  |  অনলাইন সংস্করণ

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় স্বাস্থ্য বিভাগের সিনিয়র সচিব লোকমান হোসেন মিয়া বলেছেন, বরিশালে চিকিৎসকের প্যাটার্ন দেখে আমরা খুবই হতাশ। পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজে ৫৮ জনের স্থলে আছেন ১২ জন, বরিশালে ২২৪ জনের স্থলে ১৫০ জন। খুবই নাজুক অবস্থা; এটা দেখে নিজের কাছে কষ্ট লেগেছে।

তিনি বলেন, আমরা চেষ্টা করব স্বল্পসময়ের মধ্যে এর সমাধান করার। চিকিৎসক-নার্সদের সংকট নিরসনে নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে এবং হয়েছে। নতুন চিকিৎসকরা আগামী অল্পদিনের মধ্যে যোগদান করলে অনেক সমস্যার সমাধান হবে।

শনিবার দুপুরে বরিশাল শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে বিভাগীয় প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের আয়োজনে বিভাগীয় কমিশনার সাইফুল হাসান বাদলের সভাপতিত্বে সমন্বিত কোভিড ব্যবস্থাপনা বরিশাল মডেল বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, দেশে আমরা দ্রুত অক্সিজেনারেটর আমদানি করছি। এই মেশিন বাতাস থেকে প্রতি মিনিটে ৫০০ লিটার অক্সিজেন সরবরাহ করতে পারে। এই একটি মেশিন ১০০ জনকে অক্সিজেন দিতে সক্ষম। ইতোমধ্যে আমরা ৩টি অক্সিজেনারেটর আমদানি করছি। যেগুলো চট্টগ্রাম, রাজশাহী ও গোপালগঞ্জে ব্যবহৃত হচ্ছে। আরও ৮০টি মেশিন আমদানি করা হচ্ছে। দ্রুতই বরিশালবাসী অক্সিজেনারেটর পাবেন।

লোকমান হোসেন মিয়া আরও বলেন, করোনা কাউকেই করুণা করে না। ঢাকা শহরে এখন যত রোগী ভর্তি আছে সব গ্রামের। আমি রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে ভিজিট করে এ তথ্য জেনেছি।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম, প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল বশির আহমেদ, বরিশাল রেঞ্জের উপ-মহাপুলিশ পরিদর্শক এসএম আক্তারুজ্জামান, বরিশাল বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. বাসুদেব কুমার দাস, বরিশাল পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের পরিচালক এমডি আব্দুস সালাম এবং ইউনিসেফ বাংলাদেশ হেলথ সেকশন চিফ সানজানা ভার্দওয়াজ।

চিকিৎসক সংকটের চিত্র দেখে অবাক স্বাস্থ্য সচিব

 বরিশাল ব্যুরো 
২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:২৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় স্বাস্থ্য বিভাগের সিনিয়র সচিব লোকমান হোসেন মিয়া বলেছেন, বরিশালে চিকিৎসকের প্যাটার্ন দেখে আমরা খুবই হতাশ। পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজে ৫৮ জনের স্থলে আছেন ১২ জন, বরিশালে ২২৪ জনের স্থলে ১৫০ জন। খুবই নাজুক অবস্থা; এটা দেখে নিজের কাছে কষ্ট লেগেছে। 

তিনি বলেন, আমরা চেষ্টা করব স্বল্পসময়ের মধ্যে এর সমাধান করার। চিকিৎসক-নার্সদের সংকট নিরসনে নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে এবং হয়েছে। নতুন চিকিৎসকরা আগামী অল্পদিনের মধ্যে যোগদান করলে অনেক সমস্যার সমাধান হবে।

শনিবার দুপুরে বরিশাল শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে বিভাগীয় প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগের আয়োজনে বিভাগীয় কমিশনার সাইফুল হাসান বাদলের সভাপতিত্বে সমন্বিত কোভিড ব্যবস্থাপনা বরিশাল মডেল বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, দেশে আমরা দ্রুত অক্সিজেনারেটর আমদানি করছি। এই মেশিন বাতাস থেকে প্রতি মিনিটে ৫০০ লিটার অক্সিজেন সরবরাহ করতে পারে। এই একটি মেশিন ১০০ জনকে অক্সিজেন দিতে সক্ষম। ইতোমধ্যে আমরা ৩টি অক্সিজেনারেটর আমদানি করছি। যেগুলো চট্টগ্রাম, রাজশাহী ও গোপালগঞ্জে ব্যবহৃত হচ্ছে। আরও ৮০টি মেশিন আমদানি করা হচ্ছে। দ্রুতই বরিশালবাসী অক্সিজেনারেটর পাবেন।

লোকমান হোসেন মিয়া আরও বলেন, করোনা কাউকেই করুণা করে না। ঢাকা শহরে এখন যত রোগী ভর্তি আছে সব গ্রামের। আমি রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে ভিজিট করে এ তথ্য জেনেছি।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম, প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল বশির আহমেদ, বরিশাল রেঞ্জের উপ-মহাপুলিশ পরিদর্শক এসএম আক্তারুজ্জামান, বরিশাল বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. বাসুদেব কুমার দাস, বরিশাল পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের পরিচালক এমডি আব্দুস সালাম এবং ইউনিসেফ বাংলাদেশ হেলথ সেকশন চিফ সানজানা ভার্দওয়াজ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন