ছাত্রীকে উঠিয়ে নিয়ে বাড়িতে রেখে ধর্ষণ
jugantor
ছাত্রীকে উঠিয়ে নিয়ে বাড়িতে রেখে ধর্ষণ

  চাঁদপুর প্রতিনিধি  

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:২৬:৪৭  |  অনলাইন সংস্করণ

চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ উপজেলায় এক ছাত্রীকে (১৪) উঠিয়ে নিয়ে বাড়িতে রেখে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ অভিযোগে মো. মিজান (রাসেল) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গত ৯ সেপ্টেম্বর মাদ্রাসার সামনে থেকে ওই ছাত্রীকে অপহরণ করা হয়। এ ঘটনায় ছাত্রীর মা থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ শনিবার দুপুরে নারায়ণপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারকৃত মিজান জামালপুরের বকশীগঞ্জ উপজেলার নিলক্ষীয়া গ্রামের ফরহাদ হোসেনের ছেলে। সে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার পালাখাল এলাকায় একটি গ্যারেজে শ্রমিকের কাজ করে।

অভিযোগে জানা যায়, ওই ছাত্রীর ভাবির মোবাইলের মাধ্যমে ছাত্রীর সঙ্গে মিজানের পরিচয় হয়। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ও ঘনিষ্ঠতা তৈরি হয়। গত ৯ সেপ্টেম্বর ওই ছাত্রী মাদ্রাসায় যায়। মিজান খবর দিয়ে ছাত্রীকে মাদ্রাসার ফটকের সামনে নিয়ে আসে। পরে নানাভাবে ফুসলিয়ে সেখান থেকে অপহরণ করে ছাত্রীকে হাজীগঞ্জের পালাখাল এলাকায় তার (মিজান) বাসায় নিয়ে যায়।

এরপর বিয়ের আশ্বাস দিয়ে ছাত্রীকে সেখানে একাধিকবার ধর্ষণ করে। গত ১২ সেপ্টেম্বর পরিবারের লোকজন ছাত্রীর অবস্থানের কথা জানতে পারে। ওই দিন ছাত্রীর মা তার মেয়েকে আনার জন্য পালাখাল এলাকায় ওই যুবকের বাসায় যান। সেখানে গিয়ে মেয়ের মাধ্যমে জানতে পারেন বিয়ের আশ্বাস দিয়ে তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করেছে মিজান।

মিজান আগেও একটি বিয়ে করেছে বলে জানতে পারে ভুক্তভোগীর পরিবার। অনেক কৌশল করে সেখান থেকে গত শুক্রবার দুপুরে মেয়েটিকে নিজের বাড়িতে নিয়ে আসেন তার মা।

পুলিশ জানায়, শনিবার বেলা ১১টায় ছাত্রীর মা বাদী হয়ে ওই যুবককে আসামি করে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেন।

মতলব দক্ষিণ থানার ওসি মোহাম্মদ মহিউদ্দিন মিয়া জানান, মতলব দক্ষিণ উপজেলার নারায়ণপুর এলাকা থেকে ওই যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। ছাত্রীকে দুপুরে চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হয়েছে। আসামিকে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

ছাত্রীকে উঠিয়ে নিয়ে বাড়িতে রেখে ধর্ষণ

 চাঁদপুর প্রতিনিধি 
২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:২৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ উপজেলায় এক ছাত্রীকে (১৪) উঠিয়ে নিয়ে বাড়িতে রেখে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ অভিযোগে মো. মিজান (রাসেল) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গত ৯ সেপ্টেম্বর মাদ্রাসার সামনে থেকে ওই ছাত্রীকে অপহরণ করা হয়। এ ঘটনায় ছাত্রীর মা থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ শনিবার দুপুরে নারায়ণপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারকৃত মিজান জামালপুরের বকশীগঞ্জ উপজেলার নিলক্ষীয়া গ্রামের ফরহাদ হোসেনের ছেলে। সে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার পালাখাল এলাকায় একটি গ্যারেজে শ্রমিকের কাজ করে।

অভিযোগে জানা যায়, ওই ছাত্রীর ভাবির মোবাইলের মাধ্যমে ছাত্রীর সঙ্গে মিজানের পরিচয় হয়। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ও ঘনিষ্ঠতা তৈরি হয়। গত ৯ সেপ্টেম্বর ওই ছাত্রী মাদ্রাসায় যায়। মিজান খবর দিয়ে ছাত্রীকে মাদ্রাসার ফটকের সামনে নিয়ে আসে। পরে নানাভাবে ফুসলিয়ে সেখান থেকে অপহরণ করে ছাত্রীকে হাজীগঞ্জের পালাখাল এলাকায় তার (মিজান) বাসায় নিয়ে যায়। 

এরপর বিয়ের আশ্বাস দিয়ে ছাত্রীকে সেখানে একাধিকবার ধর্ষণ করে। গত ১২ সেপ্টেম্বর পরিবারের লোকজন ছাত্রীর অবস্থানের কথা জানতে পারে। ওই দিন ছাত্রীর মা তার মেয়েকে আনার জন্য পালাখাল এলাকায় ওই যুবকের বাসায় যান। সেখানে গিয়ে মেয়ের মাধ্যমে জানতে পারেন বিয়ের আশ্বাস দিয়ে তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করেছে মিজান।

মিজান আগেও একটি বিয়ে করেছে বলে জানতে পারে ভুক্তভোগীর পরিবার। অনেক কৌশল করে সেখান থেকে গত শুক্রবার দুপুরে মেয়েটিকে নিজের বাড়িতে নিয়ে আসেন তার মা।

পুলিশ জানায়, শনিবার বেলা ১১টায় ছাত্রীর মা বাদী হয়ে ওই যুবককে আসামি করে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেন। 

মতলব দক্ষিণ থানার ওসি মোহাম্মদ মহিউদ্দিন মিয়া জানান, মতলব দক্ষিণ উপজেলার নারায়ণপুর এলাকা থেকে ওই যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। ছাত্রীকে দুপুরে চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হয়েছে। আসামিকে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন