মাছ ধরা নিয়ে সংঘর্ষে যুবক নিহত
jugantor
মাছ ধরা নিয়ে সংঘর্ষে যুবক নিহত

  ছাতক (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:০৫:৫২  |  অনলাইন সংস্করণ

মাছ ধরা নিয়ে সংঘর্ষে যুবক নিহত

সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলায় মাছ ধরার ঘটনা কেন্দ্র করে দুপক্ষের সংঘর্ষে খসরু মিয়া (৩৫) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে দুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

উপজেলার ভাতগাঁও ইউনিয়নের জহিরপুর গ্রামে শনিবার রাত ৮টায় ঘটে এ ঘটনা। এতে নিহত খছরু মিয়া উপজেলার ভাতগাঁও ইউনিয়নের জহিরপুর গ্রামের আলতাব উল্লাহর ছেলে।

স্হানীয় সূত্রে জানা যায়, একই গ্রামের খসরু মিয়া ও মজু মিয়ার মধ্যে দীঘদিন ধরে জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। শনিবার রাতে মাছ ধরা কেন্দ্র করে খসরু মিয়া ও মজু মিয়ার মধ্যে কথা কাটাকাটির জেরে উভয়পক্ষের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে খসরু মিয়াসহ ১০ জন আহত হন।

গুরুতর অবস্থায় খসরু মিয়াকে ওই দিন রাতেই সিলেটের ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনার পুলিশ দুজনকে গ্রেফতার করেছে। তারা হচ্ছেন— একই গ্রামের আবুল হোসেনের স্ত্রী শফিকুন নেছা ও আব্দুল নুরের ছেলে শফিকুনুর।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন থানার ওসি শেখ নাজিম উদ্দিন।

মাছ ধরা নিয়ে সংঘর্ষে যুবক নিহত

 ছাতক (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:০৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মাছ ধরা নিয়ে সংঘর্ষে যুবক নিহত
ফাইল ছবি। যুগান্তর

সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলায় মাছ ধরার ঘটনা কেন্দ্র করে দুপক্ষের সংঘর্ষে খসরু মিয়া (৩৫) নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে দুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

উপজেলার ভাতগাঁও ইউনিয়নের জহিরপুর গ্রামে শনিবার রাত ৮টায় ঘটে এ ঘটনা। এতে নিহত খছরু মিয়া উপজেলার ভাতগাঁও ইউনিয়নের জহিরপুর গ্রামের আলতাব উল্লাহর ছেলে।

স্হানীয় সূত্রে জানা যায়, একই গ্রামের খসরু মিয়া ও মজু মিয়ার মধ্যে দীঘদিন ধরে জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। শনিবার রাতে মাছ ধরা কেন্দ্র করে খসরু মিয়া ও মজু মিয়ার মধ্যে কথা কাটাকাটির জেরে উভয়পক্ষের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়।  এতে খসরু মিয়াসহ ১০ জন আহত হন।

গুরুতর অবস্থায় খসরু মিয়াকে ওই দিন রাতেই সিলেটের ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনার পুলিশ দুজনকে গ্রেফতার করেছে।  তারা হচ্ছেন—  একই গ্রামের আবুল হোসেনের স্ত্রী শফিকুন নেছা ও আব্দুল নুরের ছেলে শফিকুনুর।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন থানার ওসি শেখ নাজিম উদ্দিন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন