গাছে ‘ঠোক্কর’ দিয়ে মারা গেলেন ব্যবসায়ী
jugantor
গাছে ‘ঠোক্কর’ দিয়ে মারা গেলেন ব্যবসায়ী

  কেন্দুয়া (নেত্রকোনা)) প্রতিনিধি  

২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:১৯:০৪  |  অনলাইন সংস্করণ

বাড়ির সীমানা নিয়ে দীর্ঘদিন চলে আসা বিরোধ মীমাংসার লক্ষ্যে নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলায় গ্রাম্যসালিশে মাতবররা বিপক্ষে সিদ্ধান্ত দেওয়ার পরপরই গাছে ঠোক্কর (গাছে মাথা দিয়ে আঘাত) দিয়ে এক ব্যবসায়ী মারা গেছেন।

সোমবার বিকালে কেন্দুয়া উপজেলার চিরাং ইউনিয়নের বানিয়াগাতী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

মারা যাওয়া ব্যবসায়ী হলেন কাইয়ূম মিয়া (৩৭)। তিনি বানিয়াগাতী গ্রামের মৃত আব্দুল মজিদের ছেলে।

কেন্দুয়া থানার ওসি কাজী শাহ নেওয়াজের সঙ্গে কথা হলে তিনি মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ঘটনার সংবাদ পেয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়। এ ঘটনায় পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পুলিশ ও স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বাড়ির সীমানা নিয়ে একই গ্রামের ফজলুর রহমান ও মতিউর রহমানের সঙ্গে কাইয়ূম মিয়ার দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ ও মামলা-মোকদ্দমা চলে আসছিল। বিষয়টি মীমাংসার জন্য কয়েক দফা দরবার সালিশও করেন স্থানীয় মাতবররা।

এ ঘটনায় সোমবার দুপুরেও গ্রাম্য মাতবররা সালিশে বসেন। পরে সালিশে মাতবররা কাইয়ূম মিয়ার বিপক্ষে সিদ্ধান্ত দেন। এ সিদ্ধান্ত শোনার পরপরই কাইয়ূম নিজে নিজেই একটি গাছের সঙ্গে সজোরে ঠোক্কর দিলে তিনি গুরুতর আহত হন। আহত কাইয়ূমকে দ্রুত কেন্দুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

গাছে ‘ঠোক্কর’ দিয়ে মারা গেলেন ব্যবসায়ী

 কেন্দুয়া (নেত্রকোনা)) প্রতিনিধি 
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:১৯ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বাড়ির সীমানা নিয়ে দীর্ঘদিন চলে আসা বিরোধ মীমাংসার লক্ষ্যে নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলায় গ্রাম্যসালিশে মাতবররা বিপক্ষে সিদ্ধান্ত দেওয়ার পরপরই গাছে ঠোক্কর (গাছে মাথা দিয়ে আঘাত) দিয়ে এক ব্যবসায়ী মারা গেছেন।

সোমবার বিকালে কেন্দুয়া উপজেলার চিরাং ইউনিয়নের বানিয়াগাতী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

মারা যাওয়া ব্যবসায়ী হলেন কাইয়ূম মিয়া (৩৭)। তিনি বানিয়াগাতী গ্রামের মৃত আব্দুল মজিদের ছেলে।

কেন্দুয়া থানার ওসি কাজী শাহ নেওয়াজের সঙ্গে কথা হলে তিনি মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ঘটনার সংবাদ পেয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়। এ ঘটনায় পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পুলিশ ও স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বাড়ির সীমানা নিয়ে একই গ্রামের ফজলুর রহমান ও মতিউর রহমানের সঙ্গে কাইয়ূম মিয়ার দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ ও মামলা-মোকদ্দমা চলে আসছিল। বিষয়টি মীমাংসার জন্য কয়েক দফা দরবার সালিশও করেন স্থানীয় মাতবররা।

এ ঘটনায় সোমবার দুপুরেও গ্রাম্য মাতবররা সালিশে বসেন। পরে সালিশে মাতবররা কাইয়ূম মিয়ার বিপক্ষে সিদ্ধান্ত দেন। এ সিদ্ধান্ত শোনার পরপরই কাইয়ূম নিজে নিজেই একটি গাছের সঙ্গে সজোরে ঠোক্কর দিলে তিনি গুরুতর আহত হন। আহত কাইয়ূমকে দ্রুত কেন্দুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন