হোটেলে মিলল ২ শতাধিক পাখির মাংস
jugantor
হোটেলে মিলল ২ শতাধিক পাখির মাংস

  শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি  

৩০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৩১:১৮  |  অনলাইন সংস্করণ

পাখির মাংস

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলায় দুই শতাধিক পাখির মাংস রাখার অপরাধে একটি হোটেলের ম্যানেজারকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বুধবার বিকালে উপজেলার কানসাট বাজারের পুরনো ব্রিজ এলাকার শরিফা হোটেলে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে হোটেলের ম্যানেজার জাহাঙ্গীর আলমকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রহুল আমিন।

জানা যায়, রাজশাহী বিভাগীয় বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় এ অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় হোটেলের ফ্রিজে থাকা ২০০টি ও রান্না করা ১০টি পাখির মাংস এবং জীবিত দুটি তিলা ঘুঘু পাখি উদ্ধার করা হয়।

পরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে কেরোসিন ঢেলে সেগুলো মাটিতে পুঁতে ফেলা হয়। জীবিত দুটি পাখিকে খোলা আকাশে অবমুক্ত করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রহুল আমিন বলেন, দীর্ঘদিন ধরে শরিফা হোটেলে প্রকাশ্যে পাখির মাংস বিক্রি করা হতো। এমনকি দূরদূরান্ত থেকে রান্না করা পাখির মাংস খেতে আসতেন অনেকেই। হোটেলে অভিযান পরিচালনা করে ১০টি রান্না করা ও দুটি জীবিত পাখি পাওয়া যায়। হোটেলের ফ্রিজ খুলে পাওয়া যায় আরও ২০০টি পাখির মাংস।

আইন অনুযায়ী পাখির মাংস ভক্ষণ, ক্রয়-বিক্রয়, পরিবহণ, দখলে রাখা দণ্ডনীয় অপরাধ। তাই হোটেলের ম্যানেজারকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। আগামীতেও এমন অভিযান চলমান থাকবে বলে জানান তিনি।

হোটেলে মিলল ২ শতাধিক পাখির মাংস

 শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি 
৩০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৩১ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
পাখির মাংস
ছবি: যুগান্তর

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলায় দুই শতাধিক পাখির মাংস রাখার অপরাধে একটি হোটেলের ম্যানেজারকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বুধবার বিকালে উপজেলার কানসাট বাজারের পুরনো ব্রিজ এলাকার শরিফা হোটেলে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে হোটেলের ম্যানেজার জাহাঙ্গীর আলমকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রহুল আমিন। 

জানা যায়, রাজশাহী বিভাগীয় বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় এ অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় হোটেলের ফ্রিজে থাকা ২০০টি ও রান্না করা ১০টি পাখির মাংস এবং জীবিত দুটি তিলা ঘুঘু পাখি উদ্ধার করা হয়। 

পরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে কেরোসিন ঢেলে সেগুলো মাটিতে পুঁতে ফেলা হয়। জীবিত দুটি পাখিকে খোলা আকাশে অবমুক্ত করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। 

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রহুল আমিন বলেন, দীর্ঘদিন ধরে শরিফা হোটেলে প্রকাশ্যে পাখির মাংস বিক্রি করা হতো। এমনকি দূরদূরান্ত থেকে রান্না করা পাখির মাংস খেতে আসতেন অনেকেই। হোটেলে অভিযান পরিচালনা করে ১০টি রান্না করা ও দুটি জীবিত পাখি পাওয়া যায়। হোটেলের ফ্রিজ খুলে পাওয়া যায় আরও ২০০টি পাখির মাংস।

আইন অনুযায়ী পাখির মাংস ভক্ষণ, ক্রয়-বিক্রয়, পরিবহণ, দখলে রাখা দণ্ডনীয় অপরাধ। তাই হোটেলের ম্যানেজারকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। আগামীতেও এমন অভিযান চলমান থাকবে বলে জানান তিনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন