পদ্মায় ২২ দিন ইলিশ ধরা বন্ধ
jugantor
পদ্মায় ২২ দিন ইলিশ ধরা বন্ধ

  বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি  

০২ অক্টোবর ২০২১, ১২:২৬:৪২  |  অনলাইন সংস্করণ

ইলিশ ধরা বন্ধ

রাজশাহীর পদ্মায় মা ইলিশ রক্ষায় ২৬ কিলোমিটার এলাকায় ইলিশ শিকারেনিষেধাজ্ঞা জারি করা করেছে। ৪ অক্টোবর রাত ১২টা থেকে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত ২২ দিনের জন্য এ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।

বাঘা উপজেলা মৎস্য অফিস মা ইলিশের প্রজনন নিরাপদ করতে শনিবার সকালে এক মতবিনিময় সভায় মাধ্যমে এ আদেশ জারি করা হয়।

বাঘা উপজেলা ভারপ্রাপ্ত মৎস্য কর্মকর্তা আমিরুল ইসলাম বলেন, ৪ অক্টোবর রাত ১২টা থেকে ইলিশের প্রজনন সময়। এ সময় ডিম ছাড়ার জন্য মা ইলিশ মিঠা পানিতে চলে আসে। মা ইলিশ নির্বিঘ্নে আসা-যাওয়া করার
জন্য ২২ দিনের এ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

এছাড়া এই দিনে ইলিশ আহরণ, বেচাকেনা, পরিবহন ও মজুদ সম্পূর্ণ বন্ধ রাখার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ আদেশ বাস্তবায়ন করবে মৎস্য অফিস, বর্ডার গার্ড, পুলিশ, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

শনিবার সকালে উপজেলা হলরুমে আড়ানী, বাঘা, বাউসা, গড়গড়ি, মনিগ্রাম, বাজুবাঘা, চকরাজাপুর এলাকার প্রান্তিক পর্যায়ের জেলে ও জনপ্রতিধিদের নিয়ে জনসচেতনামূলক সভা করা হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পাপিয়া সুলতানা।

উপজেলা ভারপ্রাপ্ত মৎস্য কর্মকর্তা আমিরুল ইসলামের পরিচালনায় আয়োজিত সভায় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল, যুগ্ম সম্পাদক অধ্যক্ষ নছিম উদ্দিন, সিরাজুল ইসলাম মন্টু, সদস্য মাসুদ রানা তিলু প্রমুখ।

পদ্মায় ২২ দিন ইলিশ ধরা বন্ধ

 বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি 
০২ অক্টোবর ২০২১, ১২:২৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ইলিশ ধরা বন্ধ
ফাইল ছবি

রাজশাহীর পদ্মায় মা ইলিশ রক্ষায় ২৬ কিলোমিটার এলাকায় ইলিশ শিকারে নিষেধাজ্ঞা জারি করা করেছে। ৪ অক্টোবর রাত ১২টা থেকে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত ২২ দিনের জন্য এ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। 

বাঘা উপজেলা মৎস্য অফিস মা ইলিশের প্রজনন নিরাপদ করতে শনিবার  সকালে এক মতবিনিময় সভায় মাধ্যমে এ আদেশ জারি করা হয়।

বাঘা উপজেলা ভারপ্রাপ্ত মৎস্য কর্মকর্তা আমিরুল ইসলাম বলেন, ৪ অক্টোবর রাত ১২টা থেকে ইলিশের প্রজনন সময়। এ সময় ডিম ছাড়ার জন্য মা ইলিশ মিঠা পানিতে চলে আসে। মা ইলিশ নির্বিঘ্নে আসা-যাওয়া করার
জন্য ২২ দিনের এ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। 

এছাড়া এই দিনে ইলিশ আহরণ, বেচাকেনা, পরিবহন ও মজুদ সম্পূর্ণ বন্ধ রাখার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ আদেশ বাস্তবায়ন করবে মৎস্য অফিস, বর্ডার গার্ড, পুলিশ, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

শনিবার সকালে উপজেলা হলরুমে আড়ানী, বাঘা, বাউসা, গড়গড়ি, মনিগ্রাম, বাজুবাঘা, চকরাজাপুর এলাকার প্রান্তিক পর্যায়ের জেলে ও জনপ্রতিধিদের নিয়ে জনসচেতনামূলক সভা করা হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পাপিয়া সুলতানা। 

উপজেলা ভারপ্রাপ্ত মৎস্য কর্মকর্তা আমিরুল ইসলামের পরিচালনায় আয়োজিত সভায় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল, যুগ্ম সম্পাদক অধ্যক্ষ নছিম উদ্দিন, সিরাজুল ইসলাম মন্টু, সদস্য মাসুদ রানা তিলু প্রমুখ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন