পিতাকে কোদাল দিয়ে কুপিয়ে হত্যা, পুত্রের আমৃত্যু কারাদণ্ড
jugantor
পিতাকে কোদাল দিয়ে কুপিয়ে হত্যা, পুত্রের আমৃত্যু কারাদণ্ড

  জামালপুর প্রতিনিধি  

০৩ অক্টোবর ২০২১, ১৯:০৮:৫১  |  অনলাইন সংস্করণ

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে পিতা হত্যার দায়ে পুত্রের আমৃত্যু কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকার অর্থদণ্ড দিয়েছেন জেলা ও দায়রা জজ আদালত।

রোববার দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সিনিয়র বিচারক মো. জুলফিকার আলী খান এ দণ্ডাদেশ দেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত শাহীনুর রহমান (২৫) ২০১৭ সালের ২৪ জুলাই দেওয়ানগঞ্জের খড়মা খানপাড়া এলাকায় তার নিজ বাড়িতে তার পিতা আবু সাঈদকে কোদাল দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার খড়মা গুচ্ছগ্রাম এলাকায় শাহীনুর রহমান ও তার স্ত্রী হালিমা খাতুন একত্রে এবং পিতা আবু সাঈদ একই বাড়িতে পৃথক বসবাস করতো। ঘটনার দিন শাহীনুর রহমান তার স্ত্রী হালিমা বেগমের সহায়তায় বাবা আবু সাঈদকে পারিবারিক ঝগড়াঝাঁটির একপর্যায়ে কোদাল দিয়া মাথায় ও পেটে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে বাড়ির উঠানে ফেলে রেখে তারা দুজনই পালিয়ে যায়।

পরে গুরুত্বর আহত আবু সাঈদকে উদ্ধার করে দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যাওয়ার সময় পথিমধ্যেই আবু সাঈদের মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় নিহতের মেয়ে কালনী আক্তার বাদী হয়ে শাহীনুর রহমান ও তার স্ত্রী হালিমা খাতুনের বিরুদ্ধে দেওয়ানগঞ্জ মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলাটি প্রকাশ্যে আদালতে বিচারের নিমিত্তে বিগত ২০১৭ সালের ১৭ নভেম্বর আদালতে দাখিল করা হয়।

রাষ্ট্রপক্ষ মামলাটি ২৫ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আসামি শাহীনুর রহমানকে পিতা হত্যার দায়ে ৩০২ ধারার অপরাধে আমৃত্যু যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড এবং ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়।

মামলাটির রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ছিলেন নির্মূল কান্তি ভদ্র এবং আসামি পক্ষের আইনজীবী ছিলেন তাইজুল ইসলাম তাজুল।

পিতাকে কোদাল দিয়ে কুপিয়ে হত্যা, পুত্রের আমৃত্যু কারাদণ্ড

 জামালপুর প্রতিনিধি 
০৩ অক্টোবর ২০২১, ০৭:০৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে পিতা হত্যার দায়ে পুত্রের আমৃত্যু কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকার অর্থদণ্ড দিয়েছেন জেলা ও দায়রা জজ আদালত। 

রোববার দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সিনিয়র বিচারক মো. জুলফিকার আলী খান এ দণ্ডাদেশ দেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত শাহীনুর রহমান (২৫) ২০১৭ সালের ২৪ জুলাই দেওয়ানগঞ্জের খড়মা খানপাড়া এলাকায় তার নিজ বাড়িতে তার পিতা আবু সাঈদকে কোদাল দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। 

মামলা সূত্রে জানা যায়, দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার খড়মা গুচ্ছগ্রাম এলাকায় শাহীনুর রহমান ও তার স্ত্রী হালিমা খাতুন একত্রে এবং পিতা আবু সাঈদ একই বাড়িতে পৃথক বসবাস করতো। ঘটনার দিন শাহীনুর রহমান তার স্ত্রী হালিমা বেগমের সহায়তায় বাবা আবু সাঈদকে পারিবারিক ঝগড়াঝাঁটির একপর্যায়ে কোদাল দিয়া মাথায় ও পেটে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে বাড়ির উঠানে ফেলে রেখে তারা দুজনই পালিয়ে যায়।

পরে গুরুত্বর আহত আবু সাঈদকে উদ্ধার করে দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যাওয়ার সময় পথিমধ্যেই আবু সাঈদের মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় নিহতের মেয়ে কালনী আক্তার বাদী হয়ে শাহীনুর রহমান ও তার স্ত্রী হালিমা খাতুনের বিরুদ্ধে দেওয়ানগঞ্জ মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলাটি প্রকাশ্যে আদালতে বিচারের নিমিত্তে বিগত ২০১৭ সালের ১৭ নভেম্বর আদালতে দাখিল করা হয়।

রাষ্ট্রপক্ষ মামলাটি ২৫ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আসামি শাহীনুর রহমানকে পিতা হত্যার দায়ে ৩০২ ধারার অপরাধে আমৃত্যু যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড এবং ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়।

মামলাটির রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ছিলেন নির্মূল কান্তি ভদ্র এবং আসামি পক্ষের আইনজীবী ছিলেন তাইজুল ইসলাম তাজুল।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন