তরুণীকে ধর্ষণের মিথ্যা অপবাদ, প্রতিকার না পেলে মামলা
jugantor
তরুণীকে ধর্ষণের মিথ্যা অপবাদ, প্রতিকার না পেলে মামলা

  কুমিল্লা ব্যুরো  

০৪ অক্টোবর ২০২১, ২২:৩১:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার মুরাদনগরে অসহায় এক তরুণীকে ধর্ষণের মিথ্যা অপবাদ দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার দুপুরে কুমিল্লা প্রেস ক্লাবে ভুক্তভোগী ওই তরুণী তার বিরুদ্ধে অপবাদ দেওয়ার প্রতিবাদে স্বজনদের নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন।

প্রতিকার না পেলে অপবাদে জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলার কথা জানান ওই তরুণী।

প্রেস ক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ওই তরুণী বলেন, আমি জেলার মুরাদনগর উপজেলার বাসিন্দা। সোমবার আমাকে জড়িয়ে বেশ কয়েকটি জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকায় মুরাদনগর থানায় ধর্ষণের মামলা ৮০ হাজার টাকায় রফাদফা শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। বাস্তবে মুরাদনগর থানায় এ ধরনের কোনো টাকাপয়সা লেনদেন এবং রফাদফার ঘটনা ঘটেনি।

তিনি বলেন, প্রবাসী মামাতো ভাই শাহিনের সঙ্গে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আমার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। দেশে এসে সে আমাকে বিয়ে করার জন্য আশ্বাস প্রদান করেছিল। কিন্তু আমাকে বিয়ে না করে অন্যত্র বিয়ে করায় আমি ক্ষুব্ধ হয়ে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছিলাম। পরে পারিবারিক উদ্যোগে এলাকার মাতবরদের করা আপস-মীমাংসায় সন্তুষ্ট হয়ে আমি বাদী-বিবাদীগণকে নিয়ে থানায় গিয়ে আমার দায়ের করা অভিযোগটি প্রত্যাহার করে নেই। এর সাথে থানা পুলিশের কোনো যোগসূত্র নেই।

ওই তরুণী বলেন, এর আগে অভিযোগ দায়েরের সময় কোথাও আমাকে ধর্ষণ করা হয়েছে এমন অভিযোগ আমি করিনি। আমার অভিযোগে ধর্ষণের কোনো কথা উল্লেখ নেই। কিন্তু বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় আমাকে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে যে অভিযোগ লেখা হয়েছে তাতে আমার শুধু মানসম্মান ক্ষুণ্ণই হয়নি আমার জীবন নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। এমতাবস্থায় আমি আমার জীবন নিয়ে অনেকটাই শঙ্কিত।

ওই তরুণী বলেন, গণমাধ্যমের ভিত্তিহীন সংবাদে আমার জীবনের অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেছে। আপনার সাংবাদিক বন্ধুরা আমার পাশে দাঁড়িয়ে এ মিথ্যা বিষয়টি সম্পর্কে এলাকাবাসীকে অবহিত না করলে আমার জীবন বিপন্ন হয়ে যেতে পারে।

এ বিষয়ে মুরাদনগর থানার ওসি সাদেকুর রহমান বলেন, ইউসুফনগর এলাকার এক তরুণী তার মামাতো ভাইয়ের বিরুদ্ধে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছিল। সেটি কোনো ধর্ষণের অভিযোগ নয়। মামাতো ভাই আর ফুফাতো বোনের নিছক এক ভুল বোঝাবুঝির অভিযোগ। পরে বিষয়টি নিয়ে আমরা তদন্ত করার আগেই তারা স্থানীয়ভাবে বিষয়টি সুরাহা করে আমাদের জানিয়ে দিয়েছে। এছাড়া ওই তরুণী তার দায়ের করা অভিযোগ প্রত্যাহারও করে নিয়েছে। তবে গণমাধ্যমে যে সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ ভুল এবং ভিত্তিহীন।

তিনি বলেন, এসব সংবাদ প্রকাশ করে একজন তরুণীর জীবন বিপন্ন করা কোনো দায়িত্বশীল আচরণের আওতায় পড়ে না।

তরুণীকে ধর্ষণের মিথ্যা অপবাদ, প্রতিকার না পেলে মামলা

 কুমিল্লা ব্যুরো 
০৪ অক্টোবর ২০২১, ১০:৩১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার মুরাদনগরে অসহায় এক তরুণীকে ধর্ষণের মিথ্যা অপবাদ দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার দুপুরে কুমিল্লা প্রেস ক্লাবে ভুক্তভোগী ওই তরুণী তার বিরুদ্ধে অপবাদ দেওয়ার প্রতিবাদে স্বজনদের নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন।

প্রতিকার না পেলে অপবাদে জড়িতদের বিরুদ্ধে মামলার কথা জানান ওই তরুণী।
 
প্রেস ক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ওই তরুণী বলেন, আমি জেলার মুরাদনগর উপজেলার বাসিন্দা। সোমবার আমাকে জড়িয়ে বেশ কয়েকটি জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকায় মুরাদনগর থানায় ধর্ষণের মামলা ৮০ হাজার টাকায় রফাদফা শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। বাস্তবে মুরাদনগর থানায় এ ধরনের কোনো টাকাপয়সা লেনদেন এবং রফাদফার ঘটনা ঘটেনি।

তিনি বলেন, প্রবাসী মামাতো ভাই শাহিনের সঙ্গে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আমার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। দেশে এসে সে আমাকে বিয়ে করার জন্য আশ্বাস প্রদান করেছিল। কিন্তু আমাকে বিয়ে না করে অন্যত্র বিয়ে করায় আমি ক্ষুব্ধ হয়ে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছিলাম। পরে পারিবারিক উদ্যোগে এলাকার মাতবরদের করা আপস-মীমাংসায় সন্তুষ্ট হয়ে আমি বাদী-বিবাদীগণকে নিয়ে থানায় গিয়ে আমার দায়ের করা অভিযোগটি প্রত্যাহার করে নেই। এর সাথে থানা পুলিশের কোনো যোগসূত্র নেই।

ওই তরুণী বলেন, এর আগে অভিযোগ দায়েরের সময় কোথাও আমাকে ধর্ষণ করা হয়েছে এমন অভিযোগ আমি করিনি। আমার অভিযোগে ধর্ষণের কোনো কথা উল্লেখ নেই। কিন্তু বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় আমাকে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে যে অভিযোগ লেখা হয়েছে তাতে আমার শুধু মানসম্মান ক্ষুণ্ণই হয়নি আমার জীবন নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। এমতাবস্থায় আমি আমার জীবন নিয়ে অনেকটাই শঙ্কিত।

ওই তরুণী বলেন, গণমাধ্যমের ভিত্তিহীন সংবাদে আমার জীবনের অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে গেছে। আপনার সাংবাদিক বন্ধুরা আমার পাশে দাঁড়িয়ে এ মিথ্যা বিষয়টি সম্পর্কে এলাকাবাসীকে অবহিত না করলে আমার জীবন বিপন্ন হয়ে যেতে পারে।

এ বিষয়ে মুরাদনগর থানার ওসি সাদেকুর রহমান বলেন, ইউসুফনগর এলাকার এক তরুণী তার মামাতো ভাইয়ের বিরুদ্ধে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছিল। সেটি কোনো ধর্ষণের অভিযোগ নয়। মামাতো ভাই আর ফুফাতো বোনের নিছক এক ভুল বোঝাবুঝির অভিযোগ। পরে বিষয়টি নিয়ে আমরা তদন্ত করার আগেই তারা স্থানীয়ভাবে বিষয়টি সুরাহা করে আমাদের জানিয়ে দিয়েছে। এছাড়া ওই তরুণী তার দায়ের করা অভিযোগ প্রত্যাহারও করে নিয়েছে। তবে গণমাধ্যমে যে সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ ভুল এবং ভিত্তিহীন।

তিনি বলেন, এসব সংবাদ প্রকাশ করে একজন তরুণীর জীবন বিপন্ন করা কোনো দায়িত্বশীল আচরণের আওতায় পড়ে না।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন