মাইকিং করে প্রচারণা, টিকা নিতে এসে ফিরে গেলেন সহস্রাধিক মানুষ
jugantor
মাইকিং করে প্রচারণা, টিকা নিতে এসে ফিরে গেলেন সহস্রাধিক মানুষ

  উলিপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি  

০৬ অক্টোবর ২০২১, ২২:১২:০৩  |  অনলাইন সংস্করণ

কুড়িগ্রামের উলিপুরে মাইকিং করে প্রচার-প্রচারণা চালানো হলেও করোনার টিকা নিতে এতে এসে ফিরে গেলেন সহস্রাধিক মানুষ। টিকা নিতে আসা লোকজন স্বাস্থ্য বিভাগের উদাসীনতাকে দায়ী করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার ব্রহ্মপুত্র নদ বেষ্টিত সাহেবের আলগা ইউনিয়নে।

সরেজমিন ঘুরে জানা গেছে, মঙ্গলবার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নির্দেশনা মোতাবেক সাহেবের আলগা ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে করোনা ভ্যাকসিন প্রদান করা হবে জানিয়ে দিনব্যাপী মাইকিংসহ প্রচারণা চালানো হয়। বুধবার সকাল থেকে ওই ইউনিয়নের বিভিন্ন চর ও দ্বীপ চরের মানুষজন টিকা নিতে ইউপি কার্যালয়ের সামনে জড়ো হন। দিনভর অপেক্ষার পরও ওই স্থানে টিকা সরবরাহ তো দুরের কথা উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ইউপি চেয়ারম্যানের সঙ্গে যোগাযোগ পর্যন্ত করেননি।

সাহেবের আলগা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সিদ্দিক মণ্ডল জানান, বুধবার সকাল থেকে ইউপি কার্যালয়ে সহস্রাধিক লোক এসে টিকা নেয়ার জন্য ভিড় করেন।

তিনি বলেন, স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা জানিয়েছিলেন, টিকা প্রদান অনুষ্ঠানে স্থানীয় এমপি, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাসহ অনেকেই উপস্থিত থাকবেন। বুধবার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম হোসেন মন্টু, ভাইস চেয়ারম্যানসহ স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্মীরা সকালে এসে উপস্থিত হন। কিন্তু এমপিসহ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা উপস্থিত হননি।

তিনি আরও বলেন, অজ্ঞাত কারণে টিকা সরবরাহ না করায় মানুষজন আমাকে দোষারোপ করছেন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে টিকা সরবরাহ না করায় টিকা প্রদান অনুষ্ঠানটি পণ্ড হয়ে যায়।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সুভাষ চন্দ্র সরকারের সঙ্গে বারবার ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হই। পরে বিকাল পর্যন্ত সবাই অপেক্ষা করে টিকা না পেয়ে চলে যান।

টিকা নিতে আসা জাহাজের আলগা এলাকার এরশাদুল হক ও রাশেদা দম্পতি জানান, মাইকিং শুনে সন্তানসহ টিকা নিতে সকালে এসেছি, এখন শুনতেছি আজ টিকা দিবে না। কবে দিবে তাও বলতে পারছে না।

মেকুরের আলগার চরের জহুরুল ইসলাম, ছানোয়ার হোসেন, দইখাওয়ার চরের নুরুজ্জামান মিয়া, শোলেকা বেগম, রিনা বেগম, কাজিয়ার চরের নুর জামান, আব্দুল কুদ্দুসসহ অনেকেই বলেন, কাজ ফেলে নৌকা ভাড়া করে টিকা নিতে এসেছি। এখানে এসে দেখি টিকা দেওয়ার কোনো ব্যবস্থা নেই।


ওই ইউনিয়নের দায়িত্বরত স্বাস্থ্য সহকারী বাবুল হোসেন ও জয়নুল আবেদীন জানান, টিএইচও (পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা) স্যারের নির্দেশে এসেছি। আজ এখানে সহস্রাধিক লোক টিকা নেওয়ার জন্য এসেছে, যথারীতি তারা রেজিস্ট্রেশনও করছেন। কিন্তু কী কারণে টিকা দেয়া হলো না তা বুঝলাম না।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সুভাষ চন্দ্র সরকার বলেন, ওই ইউনিয়নে মাত্র ২০০ জন মানুষের রেজিস্ট্রেশন করা আছে। সেখানে আজ প্রচুর লোক উপস্থিত হয়েছিল। কি পরিমাণ টিকা সরবরাহ করতে হবে তা আগে থেকে জানা ছিল না, তাই স্বাস্থ্যকর্মীদের বুধবার সবার রেজিস্ট্রেশন শেষ করতে বলা হয়েছে। পরবর্তীতে তারিখ করে প্রয়োজনীয় টিকা সরবরাহ করা হবে।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মন্টু জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আমাকে এবং এমপি সাহেবকে সাহেবের আলগা ইউনিয়নে টিকা প্রদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার অনুরোধ করেন। সে অনুযায়ী বুধবার সকালে আমি যথাসময়ে সেখানে উপস্থিত হই। ইউপি কার্যালয়ে গিয়ে দেখি শত শত লোক টিকা নেওয়ার জন্য এসেছেন। কিন্তু অজ্ঞাত কারণে দুপুর পর্যন্ত সেখানে টিকা সরবরাহ করা হয়নি এবং এমপিসহ স্বাস্থ্য কর্মকর্তা যাননি।

এ বিষয়ে কুড়িগ্রাম-৩ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক এমএ মতিন বলেন, সাহেবের আলগা ইউনিয়নে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে জানানো হয়েছে, সেখানে সবার রেজিস্ট্রেশন করা হয়নি। রেজিস্ট্রেশন শেষ করে আগামী সপ্তাহে সেখানে টিকা প্রদান করা হবে।

মাইকিং করে প্রচারণা, টিকা নিতে এসে ফিরে গেলেন সহস্রাধিক মানুষ

 উলিপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি 
০৬ অক্টোবর ২০২১, ১০:১২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুড়িগ্রামের উলিপুরে মাইকিং করে প্রচার-প্রচারণা চালানো হলেও করোনার টিকা নিতে এতে এসে ফিরে গেলেন সহস্রাধিক মানুষ। টিকা নিতে আসা লোকজন স্বাস্থ্য বিভাগের উদাসীনতাকে দায়ী করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার ব্রহ্মপুত্র নদ বেষ্টিত সাহেবের আলগা ইউনিয়নে।

সরেজমিন ঘুরে জানা গেছে, মঙ্গলবার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নির্দেশনা মোতাবেক সাহেবের আলগা ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে করোনা ভ্যাকসিন প্রদান করা হবে জানিয়ে দিনব্যাপী মাইকিংসহ প্রচারণা চালানো হয়। বুধবার সকাল থেকে ওই ইউনিয়নের বিভিন্ন চর ও দ্বীপ চরের মানুষজন টিকা নিতে ইউপি কার্যালয়ের সামনে জড়ো হন। দিনভর অপেক্ষার পরও ওই স্থানে টিকা সরবরাহ তো দুরের কথা উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ইউপি চেয়ারম্যানের সঙ্গে যোগাযোগ পর্যন্ত করেননি।

সাহেবের আলগা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সিদ্দিক মণ্ডল জানান, বুধবার সকাল থেকে ইউপি কার্যালয়ে সহস্রাধিক লোক এসে টিকা নেয়ার জন্য ভিড় করেন।

তিনি বলেন, স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা জানিয়েছিলেন, টিকা প্রদান অনুষ্ঠানে স্থানীয় এমপি, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাসহ অনেকেই উপস্থিত থাকবেন। বুধবার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম হোসেন মন্টু, ভাইস চেয়ারম্যানসহ স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্মীরা সকালে এসে উপস্থিত হন। কিন্তু এমপিসহ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা উপস্থিত হননি।

তিনি আরও বলেন, অজ্ঞাত কারণে টিকা সরবরাহ না করায় মানুষজন আমাকে দোষারোপ করছেন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে টিকা সরবরাহ না করায় টিকা প্রদান অনুষ্ঠানটি পণ্ড হয়ে যায়। 

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সুভাষ চন্দ্র সরকারের সঙ্গে বারবার ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হই। পরে বিকাল পর্যন্ত সবাই অপেক্ষা করে টিকা না পেয়ে চলে যান।

টিকা নিতে আসা জাহাজের আলগা এলাকার এরশাদুল হক ও রাশেদা দম্পতি জানান, মাইকিং শুনে সন্তানসহ টিকা নিতে সকালে এসেছি, এখন শুনতেছি আজ টিকা দিবে না। কবে দিবে তাও বলতে পারছে না।

মেকুরের আলগার চরের জহুরুল ইসলাম, ছানোয়ার হোসেন, দইখাওয়ার চরের নুরুজ্জামান মিয়া, শোলেকা বেগম, রিনা বেগম, কাজিয়ার চরের নুর জামান, আব্দুল কুদ্দুসসহ অনেকেই বলেন, কাজ ফেলে নৌকা ভাড়া করে টিকা নিতে এসেছি। এখানে এসে দেখি টিকা দেওয়ার কোনো ব্যবস্থা নেই।


ওই ইউনিয়নের দায়িত্বরত স্বাস্থ্য সহকারী বাবুল হোসেন ও জয়নুল আবেদীন জানান, টিএইচও (পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা) স্যারের নির্দেশে এসেছি। আজ এখানে সহস্রাধিক লোক টিকা নেওয়ার জন্য এসেছে, যথারীতি তারা রেজিস্ট্রেশনও করছেন। কিন্তু  কী কারণে টিকা দেয়া হলো না তা বুঝলাম না।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সুভাষ চন্দ্র সরকার বলেন, ওই ইউনিয়নে মাত্র ২০০ জন মানুষের রেজিস্ট্রেশন করা আছে। সেখানে আজ প্রচুর লোক উপস্থিত হয়েছিল। কি পরিমাণ টিকা সরবরাহ করতে হবে তা আগে থেকে জানা ছিল না, তাই স্বাস্থ্যকর্মীদের বুধবার সবার রেজিস্ট্রেশন শেষ করতে বলা হয়েছে। পরবর্তীতে তারিখ করে প্রয়োজনীয় টিকা সরবরাহ করা হবে।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মন্টু জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আমাকে এবং এমপি সাহেবকে সাহেবের আলগা ইউনিয়নে টিকা প্রদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার অনুরোধ করেন। সে অনুযায়ী বুধবার সকালে আমি যথাসময়ে সেখানে উপস্থিত হই। ইউপি কার্যালয়ে গিয়ে দেখি শত শত লোক টিকা নেওয়ার জন্য এসেছেন। কিন্তু অজ্ঞাত কারণে দুপুর পর্যন্ত সেখানে টিকা সরবরাহ করা হয়নি এবং এমপিসহ স্বাস্থ্য কর্মকর্তা যাননি।

এ বিষয়ে কুড়িগ্রাম-৩ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক এমএ মতিন বলেন, সাহেবের আলগা ইউনিয়নে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে জানানো হয়েছে, সেখানে সবার রেজিস্ট্রেশন করা হয়নি। রেজিস্ট্রেশন শেষ করে আগামী সপ্তাহে সেখানে টিকা প্রদান করা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন