চার স্থান থেকে যুবকের খণ্ডিত লাশ উদ্ধার
jugantor
চার স্থান থেকে যুবকের খণ্ডিত লাশ উদ্ধার

  সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি  

০৬ অক্টোবর ২০২১, ২২:৪৯:৫৬  |  অনলাইন সংস্করণ

সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় এক যুবকের চার খণ্ড লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। লাশের চারটি খণ্ড পৃথক চার জায়গায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়েছিল। মঙ্গলবার রাতে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়নের নুরুজপুর গ্রাম সংলগ্ন কৃষক আব্দুল কাদিরের জমি থেকে লাশের টুকরোগুলো উদ্ধার করা হয়।

নিহতের নাম শামসুল হক (২৮)। তিনি নুরুজপুর গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের পুত্র এবং এক ছেলে ও এক মেয়ের জনক।

স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ জানায়, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে ২-৩ দিন আগে পরিকল্পিতভাবে শামসুল হককে খুন করে তার লাশটি টুকরো টুকরো করে পৃথক স্থানে ফেলে রাখা হয়েছে। লাশটির এক জায়গায় দেহ, আরেক জায়গায় মাথা, আরেক জায়গায় পা ও অন্য জায়গায় তার কলিজা পাওয়া যায়। কে বা কারা এ জঘন্য হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে এ ব্যাপারে এখনো নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ।

এ ঘটনায় বুধবার সদর থানা পুলিশ তার পিতা ও পরিবারের সদস্যদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। তবে এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কাউকে আটক দেখানো হয়নি।

সুনামগঞ্জ সদর থানার ওসি মো. সহিদুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, যে বা যারাই এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকুক না কেন তাদের খুঁজে বের করা হবে। এ ব্যাপারে পুলিশি তৎপরতা চলছে। পরিবারের লোকজন আজ দাফন-কাফন নিয়ে ব্যস্ত ছিল। বৃহস্পতিবার পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা করার কথা রয়েছে।

চার স্থান থেকে যুবকের খণ্ডিত লাশ উদ্ধার

 সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি 
০৬ অক্টোবর ২০২১, ১০:৪৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় এক যুবকের চার খণ্ড লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। লাশের চারটি খণ্ড পৃথক চার জায়গায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়েছিল। মঙ্গলবার রাতে সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়নের নুরুজপুর গ্রাম সংলগ্ন কৃষক আব্দুল কাদিরের জমি থেকে লাশের টুকরোগুলো উদ্ধার করা হয়। 

নিহতের নাম শামসুল হক (২৮)। তিনি নুরুজপুর গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের পুত্র এবং এক ছেলে ও এক মেয়ের জনক। 

স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ জানায়, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে ২-৩ দিন আগে পরিকল্পিতভাবে শামসুল হককে খুন করে তার লাশটি টুকরো টুকরো করে পৃথক স্থানে ফেলে রাখা হয়েছে। লাশটির এক জায়গায় দেহ, আরেক জায়গায় মাথা, আরেক জায়গায় পা ও অন্য জায়গায় তার কলিজা পাওয়া যায়। কে বা কারা এ জঘন্য হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে এ ব্যাপারে এখনো নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ। 

এ ঘটনায় বুধবার সদর থানা পুলিশ তার পিতা ও পরিবারের সদস্যদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। তবে এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কাউকে আটক দেখানো হয়নি। 

সুনামগঞ্জ সদর থানার ওসি মো. সহিদুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, যে বা যারাই এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকুক না কেন তাদের খুঁজে বের করা হবে। এ ব্যাপারে পুলিশি তৎপরতা চলছে। পরিবারের লোকজন আজ দাফন-কাফন নিয়ে ব্যস্ত ছিল। বৃহস্পতিবার পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা করার কথা রয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন